বিনোদন

২৮ বছরে ১১ বিয়ে!

বয়স মাত্র ২৮। আর এর মধ্যেই বিয়ে করে ফেলছেন ১১ পুরুষকে! কী পরিণতি হল মহিলার?
সিনেমার গল্প এবার বাস্তবে। ‘ডলি কি ডোলি’-ছবিতে একের পরে এক পুরুষের সঙ্গে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হয়েছিলেন সোনম কপুর। আর রাত ফুরোলেই ঘর থেকে দামি জিনিসপত্র নিয়ে হাওয়া হয়ে যেত নায়িকা। দীর্ঘদিন এমনটাই চলার পর অবশেষে পুলিশের জালে ধরা পড়ে সে।

এবার রিয়েল লাইফের সেই ঘটনারই বাস্তবিক সাক্ষী থাকল ভারত। মেঘা ভার্গব নামে বছর আঠাশের এক মহিলা ঠিক এমন কাণ্ডটাই ঘটালেন। এক বা দুই নয়, ১১জন পুরুষকে বিয়ে করে তাঁদের সর্বস্ব হাতিয়ে নিয়েছেন এই মহিলা। অবশেষে শনিবার নয়ডা থেকে তাঁকে গ্রেফতার করে পুলিশ।

অক্টোবর মাসে কোচি-র লোরেন জাস্টিন পুলিশের কাছে একটি অভিযোগ দায়ের করেন। সেখানে বলা হয়, তাঁর স্ত্রী মেঘা ১৫ লাখ টাকার গয়না নিয়ে পালিয়ে গিয়েছে। তার প্রায় দু’মাস পর কেরালা পুলিশ এবং দিল্লি পুলিশ যৌথভাবে নয়ডা থেকে গ্রেফতার করে ভার্গবকে। তার বোন প্রাচী ও দেওর দেবেন্দ্র শর্মাকেও গ্রেফতার করেছে পুলিশ।
পুলিশ জানিয়েছে, মোট ১১জন পুরুষকে বিয়ে করেছিল মেঘা। কেরলেই মেঘার চতুর্থ শিকার ছিলেন জাস্টিন। মুলত ডিভোর্সি, দেখতে খারাপ, প্রতিবন্ধী যুবকদেরই টার্গেট করত এই মহিলা। দেখতে সুন্দরী হওয়ায় সহজেই তাকে বিশ্বাসও করে নিত ওই যুবকরা। বিয়ের পরে ওই যুবকদের সঙ্গে বেশ কয়েকদিন কাটাতো সে। তারপর সুযোগ পেলেই খাবারে ঘুমের ওষুধ মিশিয়ে সর্বস্ব হাতিয়ে পালাত।

পুলিশ আরও জানিয়েছে, মেঘার আসল বাড়ি ইন্দোরে। জেরায় ওই যুবকদের সঙ্গে বিয়ে হওয়ার কথাও স্বীকার করে নিয়েছে সে। যদিও মেঘার দাবি, বিয়ে হওয়ার পরে পুরুষদের সঙ্গে সম্পর্কের অবনতি হওয়ার কারণেই মেঘা তাঁদের ছেড়ে চলে যেত।

ভিডিও:কেঁচো খুড়তে সাপ বেড়লো!ঠিক তেমনই ভাঙ্গা ডিমের উৎপতি খুঁজতে যেয়ে যা বেরিয়ে আসলো সেটা সবার কাছে ছিলো অকল্পনীয়!

Add Comment

Click here to post a comment