বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি

২১১৬ সালে কেমন হবে পৃথিবী

টাইম মেশিনের কথা অনেক পড়েছেন। এছাড়াও আপনার কল্পনার জগতেই তো আপনি কতবার আগে পিছিয়ে ভাবেন। আজ থেকে ঠিক ১০০ বছর পর অর্থাৎ‍ ২১১৬ সালে কেমন হবে পৃথিবী। বলাইবাহুল্য সেই পৃথিবীর সঙ্গে নাকি আজকের পৃথিবীর কোনো মিলই থাকবে না। বাস্তবে কেমন হবে সেই সময়টা? সেই অদ্ভুত সময়টায় এমন অনেক কিছু ঘটবে যা আপনার কল্পনাতেও নেই।

২১১৬ সালে পানির নিচে থাকবে অনেক বাবল সিটি। এই শহরগুলো যেমন আকারে বড় হবে। তেমনই থাকবে অত্যাধুনিক সব রকম সুযোগ সুবিধা। শুধু তাই নয়, চাঁদে ঘুরতে যাওয়াটা তেমন কোনো ব্যাপারই থাকবে না। এই পৃথিবীর অনেক মানুষই বছরে একবার করে চাঁদে ঘুরতে যাবেন, লন্ডন কিংবা সিঙ্গাপুরের মতো করেই। মানুষ হলিডে কাটাতে যাবে চাঁদে। লোকের বাড়ি ঘরে থাকবে শুধুই থ্রি ডি পেইন্টিং। এমনি আঁকা জিনিস থাকবে। তারও কদরও থাকবে।

আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স গবেষক ডেভিড লেভি বলছেন, মানুষ রোবটের প্রেমে পড়বে এবং বিয়েও করবে রোবট-সঙ্গী বা রোবট-সঙ্গিনী। শুধু তাই নয়, এই বিয়ে আইনসম্মতও হবে।

তিনি বলেন, পৃথিবীর মোট জনসং‌খ্যা দাঁড়াবে ৯.৬ বিলিয়ন। এর অর্ধেক মানুষ বাস করবেন শহরে। পৃথিবীর অনেক জায়গায় বায়ুদূষণ বাড়বে মারাত্মক হারে। বাড়বে ক্যানসার ও ফুসফুসের রোগ। বিজ্ঞানীদের ধারণা, সারা পৃথিবীতে বছরে গড়ে প্রায় ৬ মিলিয়ন মানুষ মারা যাবেন। সাধারণের হাতের নাগালে এসে যাবে ড্রাইভারলেস কার। তাই কার অ্যাক্সিডেন্টের সংখ্যা তুলনামূলকভাবে কমবে।

ওয়র্ল্ড ফুটপ্রিন্ট নেটওয়র্ক জানিয়েছে, ১.১ বিলিয়ন মানুষ প্রয়োজনীয় পানি পাবেন না। ২.৫ বিলিয়ন মানুষ এমন অঞ্চলে বাস করবেন যেখানে পরিষ্কার জল পাওয়ার সমস্যা রয়েছে। মানুষের গড় আয়ু বাড়বে। ২০৫০ সালে গড়ে মানুষ ৭৬ বছর বয়স পর্যন্ত বাঁচবেন।

বিজ্ঞানীরা জানান, মানুষের কাছের দৃষ্টিক্ষমতা বাড়বে, কমবে দূরের দৃষ্টি। সারাদিন কম্পিউটার এবং গ্যাজেট আঁকড়ে থাকতে থাকতে দূরের জিনিস দেখার স্বাভাবিক ক্ষমতা কমবে। অর্থাৎ মাইনাস পাওয়ার বাড়বে। পৃথিবীর কোণে কোণে ছড়িয়ে পড়বে ইন্টারনেট। মোট জনসংখ্যার ৯৭.৫ শতাংশের কাছে ইন্টারনেট অ্যাকসেস থাকবে। ‘ডিজাইনার বেবি’ ট্রেন্ডে তৈরি হবে সুপারহিউম্যান। জেনেটিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের মাধ্যমে শিশুর গড়ন, বুদ্ধি, শারীরিক ক্ষমতা ইত্যাদি আগে থেকে চিকিৎসককে জানাবেন বাবা-মা। জিন মডিফিকেশন করে তৈরি হবে ডিজাইনার বেবি।

ভিডিওঃ কাবা শরীফের গোপন রহস্য উদ্ধার করেছেন বিজ্ঞানীরা

Add Comment

Click here to post a comment