বিনোদন

ছবিতে দেখে নিন বিশ্বের সেরা ১০ আবেদনময়ী অভিনেত্রী

ফটোশুট, ইভেন্ট, মডেলিং, প্রমোশন ইত্যাদি নানা কাজে দর্শকদের নজর কেড়েছেন তারা। সেইসঙ্গে পৃথিবী সেরা আবেদনময়ী অভিনেত্রীর তালিকায় শীর্ষ অবস্থানে রয়েছেন তারা। এমন ১০ অভিনেত্রীকে নিয়ে এ প্রতিবেদন।

মিলেনা মারকোভনা বা মিলা কুনিস: জনপ্রিয় অভিনেত্রী মিলা কুনিসের আসল নাম মিলেনা মারকোভনা। ১৯৮৩ সালের ১৪ আগস্ট জন্মগ্রহণ করেন। যুক্তরাষ্ট্রের একজন হলিউড অভিনেত্রী। ১৯৯১ সালে সাত বছর বয়সে তিনি তৎকালীন সোভিয়েত শাসিত ইউক্রেন থেকে তার পরিবার সমেত দেশান্তরিত হয়ে লস এঞ্জেলেসে চলে আসেন। শৈশবে পড়াশোনার পাশাপাশি অভিনয় শিক্ষার ক্লাসে অধ্যয়নের সময় চলচিত্র জগতের একজন প্রতিনিধি তার অভিনয় প্রতিভা আবিষ্কার করেন। ১৫ বছর বয়স পার হওয়ার আগেই তিনি একাধিক টেলিভিশন ধারাবাহিক এবং বিজ্ঞাপনে অভিনয় করেন। তিনি জ্যাকি বার্খার্ট চরিত্রে দ্যাট সেভেন্টিজ শোতেও অভিনয় করেছিলেন। ১৯৯৯ সাল থেকে একটি অ্যানিমেইটেড ধারাবাহিক ফ্যামিলি গাইয়ে ম্যাগ গ্রিফিনের চরিত্রে কণ্ঠ দিয়েছিলেন।

জেনিফার অ্যানিস্টন : জেনিফার জোয়ানা অ্যানিস্টন ১৯৬৯ সালের ১১ ফেব্রুয়ারি জন্মগ্রহণ করেন। একজন প্রতিষ্ঠিত হলিউড অভিনেত্রী, চিত্র পরিচালক, প্রযোজক এবং ব্যবসায়িক। তিনি আমেরিকার বিখ্যাত টিভি ধারাবাহিকে ফ্রেন্ডস এর জনপ্রিয় রয়্যালচেল গ্রিন চরিত্রে অভিনয় করার জন্য বিশ্বব্যাপী পরিচিতি পান। ফ্রেন্ডস টিভি ধারাবাহিকে তার চরিত্রের নৈপুন্যের কারনে এই চরিত্রটির জন্য তিনি একবার করে এমি, গোল্ডেন গ্লোব ও স্ক্রিন অ্যাক্টরস গিল্ড পুরস্কার লাভ করেছেন। তাছাড়া মেন`স হেলথ ম্যাগাজিন তাকে সেক্সিয়েস্ট ওম্যান অফ অল টাইমএর জন্য খ্যাতি পান।

কার্স্টেন স্টুয়ার্ট : ‘টোয়াইলাইট’ সিরিজে অভিনয়ের মাধ্যমে দর্শকপ্রিয়তা পেয়েছেন মার্কিন অভিনেত্রী ক্রিস্টেন স্টুয়ার্ট। সম্প্রতি পর্দায় আসছেন সম্পূর্ণ ভিন্ন রূপে। সত্য ঘটনা অবলম্বনে নির্মিত পরিচালক পিটার স্যাটলারের ক্যাম্প এক্স-রে সিনেমায় তাকে দেখা যাবে গুয়ানতানামো বে কারাগারের এক সৈনিকের চরিত্রে। ইতোমধ্যে প্রকাশিত হয়েছে সিনেমাটির ট্রেইলার। প্রথমবারের মত রাশভারী এক সেনার চরিত্রে দেখা যাবে ২৪ বছর বয়সী স্টুয়ার্টকে। গুয়ানতানামো বে কারাগারে কয়েদীদের দৈনন্দিন জীবন এবং কারারক্ষীদের সঙ্গে তাদের সম্পর্ক- মূলত এই বিষয়গুলোই ফুটে উঠবে ক্যাম্প এক্স-রে সিনেমাটির মাধ্যমে।

ড্রিউ ব্লিথ ব্যারিমোর : ১৯৭৫ সালের ২২ ফেব্রুয়ারি জন্ম। হলিউড অভিনেত্রী এবং চলচ্চিত্র প্রযোজক হিসেবে সমাদৃত। তিনি ব্যারিমোর পরিবারের সর্বকনিষ্ঠ আমেরিকান অভিনেত্রী। তার অভিনয় জীবন শুরু হয় যখন তার বয়স মাত্র এগারো মাস। ব্যারিমোরের পর্দায় অভিষেক ঘটে ১৯৮০ সালে, অলটার্ড স্টেটস-এর মাধ্যমে। ১৯৮০ সালে অলর্টাড স্টেটসে অভিষেকের পথ ধরে তিনি আবির্ভূত হন। তার সাড়াজাগানো চরিত্র ই.টি. দ্য এক্সট্রা টেরিস্ট্রিয়াল-তে। এর মাধ্যমে অল্প সময়েই তিনি হলিউডে সবচেয়ে পরিচিত শিশু অভিনেত্রী রুপে আবির্ভূত হন। নিজেকে প্রধানত বিভিন্ন কমিক চরিত্রে রূপদানকারী অভিনেত্রী রুপে প্রতিষ্ঠিত করেন।
ক্যাথরিন হেগল : 
হলিউডের একজন জনপ্রিয় অডিভনেত্রী। ১৯৭৮ সালের  ২৪ নভেম্বর তিনি জন্মগ্রহণ করেন। অভিনয়ের পাশাপাশি তিনি প্রযোজনাও পরিচালনার কাজ করেছেন। ফ্যাশন মডেল হিসেবে ক্যারিয়ার শুরু করা এই অভিনেত্রী ২০০৫ সালের সেরা অভিনেত্রীর পুরস্কার পান।

স্যান্ড্রা বুলক : স্যান্ড্রা বুলক নাকি ‘ডেট’ করছেন ব্রায়ান  রয়ান্ডাল নামে এক ব্যক্তির সঙ্গে। ব্রায়ান পেশায় একজন ফটোগ্রাফার। রুপোলি চুল, নীল চোখ আর সুন্দর চেহারায় তিনি নাকি ফিল্মস্টারদের মতোই দেখতে! বন্ধুদের মাধ্যমে স্যান্ড্রার সঙ্গে আলাপ হয়েছিলো তার। তারপর থেকেই মন দেওয়া-নেওয়া চলছে দুজনের। শোনা যাচ্ছে, বেশ কয়েক মাস ধরেই একসঙ্গে রয়েছে তারা। সম্প্রতি পিপলস ম্যাগাজিনের দেওয়া এক প্রতিবেদনে জানা যায়, জেনিফার অ্যানিস্টন ও জাস্টিন থেরাক্সের বিয়েতেও ব্রায়ানকে নিয়ে উপস্থিত ছিলেন হলিউডের এই অভিনেত্রী। কয়েকদিন আগে একসঙ্গে নৈশভোজে দেখা গেছে তাদের। সেখানেই ৫০ বছর বয়সী এই অভিনেত্রীর আলো-ঠিকরানো চেহারাই টের পাইয়ে দিয়েছে তিনি কতটা খুশি!

ক্যামেরন ডায়াজ : লোডেড ম্যাগাজিনের জন্য ১৯৯৯ সালে ক্যামেরার সামনে নগ্ন হয়ে পোজ দিয়েছিলেন হলিউড স্টার ক্যামেরন ডায়াজ। সেইসব নগ্ন ছবি ফাঁস হওয়ায় আবারো আলোচনায় উঠে এসেছেন ‘ড এন্ড নাইট’ ছবির এই নায়িকা। সম্প্রতি একটি সেক্স টেপ ফাঁস হয়ে যাওয়ার পর প্রকাশ্যে এসেছে ক্যামেরুনের সেইসব নগ্ন ছবির কিছু। ওই ম্যাগাজিনের তরফে দাবি করা হয়েছে, ১৯৯৯-তে ক্যামেরার সামনে নগ্ন হয়ে দাঁড়িয়ে ছবি তুলেছিলেন ক্যামেরন। আর সেই ছবি শুধু তাদের সংগ্রহেই রয়েছে। সেগুলো নিয়ে নতুন করে চলছে ক্যামেরনকে নিয়ে গবেষণা। তরুণ প্রজন্মের কাছে নাকি হঠাৎ করেই জনপ্রিয়তা বেড়ে গেছে এই সেক্স সিম্বল তারকার। হলিউড যাত্রার শুরু থেকেই শরীরে আবেদনে এই কন্যের জুড়ি মেলা ভার। ১৯৯৪ সালে ‘নিউইউক ফিল্ম অ্যাওয়ার্ডে’ সেরা অভিনেত্রীর তকমাটা পান তিনি। তারপর থেকেই মুগ্ধতা দিয়ে বশ করে রেখেছেন হলিউড।

ব্লেক লাইভলি : আমেরিকান এ মডেল ও অভিনেত্রী যতটা পারদর্শী ঘরের কাজে, ততটাই অভিনয়ে। ৩০ বছরের কম বয়সী অভিনেত্রীদের নিয়ে ফোর্বসের প্রতিবেদনে তাকে বলা হয়েছে হলিউডে ওই বয়সের সর্বাধিক ক্ষমতাধর অভিনেত্রী। শুধু ফোর্বস নয়, ব্লেক লাইভলিকে নিয়ে নানা সময়ে কভার স্টোরি করেছে বিখ্যাত সব ম্যাগাজিন। ২০১১ সালে টাইম ম্যাগাজিনের বর্ষশেষ সংখ্যায় বিশ্বের ১০০ জন প্রভাবশালী নারীর তালিকায় ছিল তার নামটি। অভিনয় আর মডেলিংয়ে পটু লাইভলি আবার সফল ব্লগারও। লাইফস্টাইল বিষয়ক ব্লগ ‘প্রিজার্ভে’ লাইফস্টাইল গুরু হিসেবে কাজ করছেন। এ ব্লগে তার ফলোয়ারের সংখ্যা গড়িয়েছে পাঁচ লাখে। এত কিছু করেও অভিনয় ছাড়েননি তিনি। ২৭ বছর বয়সী এ তারকাকে বলা হয়ে থাকে তার প্রজন্মের সবচেয়ে সফল অভিনেত্রী।

নাতালি পোর্টম্যান : হলিউড অভিনেত্রী হিসেবে নাতালির স্বীকৃতি উঁচু পর্যায়ে। মেইনস্ট্রিম হলিউডের বাণিজ্যিক রোমান্টিক কমেডি ছবির পাশাপাশি ‘ব্ল্যাক সোয়ান’এর মতন ছবিতেও নাতালি পোর্টম্যান সব সময় সপ্রতিভ। বিনোদনভিত্তিক ওয়েবসাইট ভালচারের খবরে পাওয়া গেল, পরিচালক হিসেবে অভিষেক ঘটেছে তার, ছবিটিতে মূল ভূমিকায় অভিনয়ও করেছেন তিনি। এরই মধ্যে ছবিটির অফিশিয়াল ট্রেইলার মুক্তি পেয়েছে। ২০০২ সালে প্রথম হিব্রু ভাষায় ছাপা হয়েছিল উপন্যাসটি, পরে বিশ্বজুড়ে ২৮টি ভাষায় এর অনুবাদ হয়েছে। এই ছবির সংলাপও হিব্রু ভাষাতেই। মজার বিষয় হচ্ছে, পরিচালনার পাশাপাশি ছবির চিত্রনাট্যও লিখেছেন নাতালি পোর্টম্যান নিজেই!

কিয়ের্স্টেন ডানস্ট : জন্ম ১৯৮২ সালের ৩০ এপ্রিল। হলিউডের জনপ্রিয় একজন অভিনেত্রী। তিনি একাধারে একজন চলচ্চিত্রভিনেত্রী, সংগীতশিল্পী, মডেল এবং পরিচালক। উডি এলেনের Woody Allen স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচিত্র Oedipus Wrecks দিয়ে তার অভিনয় জীবন শুরু হয়। মাত্র বারো বছর বয়সে তিনি উল্লেখযোগ্য ছবি ‘ইন্টারভিউ উইথ দ্য ভ্যাম্পায়ার’ ছবিতে অভিনয় করেন। ডান্‌স্ট সম্প্রতি স্পাইডারম্যান চলচ্চিত্রসমূহে স্পাইডারম্যানের ভালোবাসার পাত্রী মেরি জেন ওয়াটসন-এর ভূমিকায় অভিনয় করেছেন।