বিনোদন

সিনেমায় ফিরছেন শাবনূর

ঢাকাই ছবির সফল নায়িকা শাবনূর। ব্যক্তিগত জীবনকে আড়ালে রাখলেও অনেক কথাই গোপন থাকেনি। ক্যারিয়ারের শুরু থেকেই বেশ কয়েকজন নায়কের সঙ্গে ছিল প্রেমের গুঞ্জন। তবে দীর্ঘদিন ধরেই চলচ্চিত্র থেকে নিজেকে সরিয়ে রেখেছেন ‘স্বপ্নের ঠিকানা’খ্যাত এ নায়িকা। তবে হতে পারেননি দর্শকদের মনের আড়াল। তাই তো প্রিয় নায়িকার জন্মদিনে (১৭ ডিসেম্বর) শুভেচ্ছা জানাতে ভুলেননি ভক্তরা।

এহতেশাম পরিচালিত ‘চাঁদনী রাতে’ ছবি দিয়ে ঢাকাই ছবিতে শাবনূরের আবির্ভাব। মূলত তার নাম নূপুর। পরিচালক এহতেশাম তার নিজের নাম থেকে ‘শা’ এবং নূপুরের নূর অংশ নিয়ে দেন শাবনূর। এমনটাই আলোচনা চলচ্চিত্রাঙ্গনে।

অল্প সময়েই মিষ্টি মেয়ে শাবনূর অভিনয় ক্ষমতা, গ্ল্যামার, হাসি ও নাচে পরিপূর্ণ একজন নায়িকা হিসেবে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করেন। অভিনয়ের স্বীকৃতিস্বরূপ মোস্তাফিজুর রহমান মানিক পরিচালিত ‘দুই নয়নের আলো’ ছবির জন্য পান জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার।

চলচ্চিত্রে সালমান শাহ-শাবনূর জুটি ছিল দর্শকদের কাছে ব্যাপক জনপ্রিয়। ১৯৯৪ সালে এ জুটির প্রথম ছবি ‘তুমি আমার’ মুক্তি পায়। পরিচালনায় ছিলেন জহিরুল হক। সালমানের সঙ্গে তার ১৪টি চলচ্চিত্রের সবগুলোই ছিল ব্যবসায়িক মানদণ্ডে সফল। ১৯৯৫ সালে ‘স্বপ্নের ঠিকানা’, ১৯৯৬ সালে ‘স্বপ্নের পৃথিবী’, ‘তোমাকে চাই’, ১৯৯৭ সালে শিবলি সাদিক পরিচালিত ‘আনন্দ অশ্রু’ এরমধ্যে অন্যতম।

অনেকেই তাকে সালমান শাহনির্ভর নায়িকা বলতে শুরু করেন। সালমানের মৃত্যুর পর নায়কশূন্য হয়ে পড়েন শাবনূর। ওমর সানী, আমিন খানের সঙ্গে জুটি হয়ে এ নায়িকা তেমন সুবিধা করতে পারেননি। এরপর রিয়াজ-শাবনূর জুটি দারুণ সফলতা অর্জন করে।

রিয়াজের সঙ্গে জুটি হয়ে করা ‘মন মানে না’, ‘তুমি শুধু তুমি’, ‘ভালোবাসি তোমাকে’ ও ‘বুক ভরা ভালোবাসা’ চলচ্চিত্র ব্যবসা সফল হয়। ফেরদৌস, মান্না, শাকিব খানের বিপরীতেও উজ্জ্বল ছিলেন শাবনূর। একে একে তিনি ‘বউ-শ্বাশুরীর যুদ্ধ’, ‘দুই নয়নের আলো’, ‘নিরন্তর’, ‘মেয়ে সাক্ষী’, ‘আমার প্রাণের স্বামী’, ‘এক টাকার বউ’সহ বহু জনপ্রিয় ছবি উপহার দেন।

২০১১ সালের ৬ ডিসেম্বর ব্যবসায়ী অনিক মাহমুদের সঙ্গে আংটি বদল হয় শাবনূরের। বছর ঘুরতেই ২৮ ডিসেম্বর তারা বিয়ে করেন। তখন থেকেই আড়ালে চলে যান এ নায়িকা। স্বামীর সঙ্গে পাড়ি জমান অস্ট্রেলিয়ায়। ২০১৩ সালের ২৯ ডিসেম্বর ছেলে সন্তানের মা হন তিনি, নাম আইজান নিহান।

কিছুদিন আগে খবর রটে বিচ্ছেদের দিকে যাচ্ছে শাবনূর-অনিক দম্পতি। তবে এ নায়িকা এখনো অস্ট্রেলিয়াতেই অবস্থান করছেন।

পরিচালকরা এখনো তাকে নিয়ে কাজ করার আগ্রহ দেখান। ২০১৫ সালে বেশ কয়েকবার চলচ্চিত্রে ফেরার ঘোষণা দিয়েও কথা রাখেননি শাবনূর। তবে বিএফডিসিতে ‘পাগল মানুষ’ নামে একটি ছবির গানের চিত্রধারণে অংশ নিয়েছিলেন। তখনও তিনি বলেছিলেন, দর্শকদের ভালোবাসায় খুব শিগগিরই ফিরবেন। ভালো গল্পের অপেক্ষায় আছেন।

হয়তো সেই গল্পকে খুঁজে পেয়েছেন তিনি। ‘এত প্রেম এত মায়া’ ছবিতে একটি বিশেষ চরিত্রে অভিনয় করবেন। যেখানে তাকে দেখা যাবে একজন গানের শিক্ষকের ভূমিকায়। সে অনুযায়ী নিজেকে প্রস্তুতও করছেন শাবনূর। কারণ ভক্তদের মাঝে ভালোভাবেই ফিরতে চান এ লাভার গার্ল।

ছবির পরিচালক মোস্তাফিজুর রহমান মানিক আরটিভি অনলাইনকে বললেন, ‘আমার সঙ্গে শাবনূরের দিন দশেক আগে কথা হয়েছে। আসছে জানুয়ারির শুরুর দিকেই দেশে ফিরবেন তিনি। দেশে ফিরেই আমার ছবির শুটিংয়ে অংশ নেবেন বলে কথা দিয়েছেন।’

মানিকের ছবি ‘দুই নয়নের আলো’তে অভিনয় করেই জীবনের একমাত্র জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কার পান জনপ্রিয় এ নায়িকা। তার মতো আরো অনেক পরিচালকই চাইছেন দেশে ফিরে চলচ্চিত্রে নিয়মিত হোক শাবনূর। তার অভিনয় দক্ষতায় ফের উজ্জ্বল হয়ে ওঠুক চলচ্চিত্রাঙ্গন।

ভিডিও:বিশাল মালবাহী জাহাজ কিভাবে মাল খালাস করলো দেখলে আপনি হা হয়ে যাবেন (ভিডিও)

Add Comment

Click here to post a comment



সর্বশেষ খবর