আন্তর্জাতিক

সাপ দেখিয়ে স্বীকারোক্তি আদায়, তারপর…

[better-ads type='banner' banner='1187323' ]

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : সন্দেহভাজন এক ব্যক্তিকে জিজ্ঞাসাবাদে সাপ দেখিয়ে স্বীকারোক্তি আদায়ের অভিযোগ উঠেছে ইন্দোনেশিয়ার পুলিশের বিরুদ্ধে।

ইন্দোনেশিয়ায় এ ঘটনার জন্য পুলিশ দুঃখ প্রকাশ করেছে।

পুলিশের হাতে আটক ব্যক্তির গায়ে সাপ পেঁচিয়ে জিজ্ঞাসাবাদের একটি ভিডিও অনলাইনে ছড়িয়ে পড়লে বিষয়টি নিয়ে হইচই শুরু হয়। মানবাধিকারকর্মীরাও এর তীব্র সমালোচনা করেন।

ভিডিওতে দেখা যায়, পাপুয়া অঞ্চলে পুলিশের কর্মকর্তা এক ব্যক্তির গায়ে সাপ জড়িয়ে দিচ্ছেন, আর হাতকড়া পরা লোকটি ভয়ে চিৎকার করছে।

পুলিশ জানায়, একটি মোবাইল ফোন চুরির সন্দেহে ওই ব্যক্তিকে আটক করা হয়।

স্থানীয় পুলিশ বাহিনীর প্রধান টন্নি আনন্দা সদায়া জিজ্ঞাসাবাদে সাপ ব্যবহারের কৌশল নিয়ে বলেন, সাপটি ছিল পোষা এবং নির্বিষ। তবে এই ঘটনাকে তিনি অপেশাদার বলে মন্তব্য করেছেন।

তিনি বলেন, ওই কর্মকর্তার বিরুদ্ধে আমরা কড়া ব্যবস্থা নিয়েছি ।

তিনি দাবি করেন, পুলিশ ওই ব্যক্তিকে মারধর করেনি। স্বীকারোক্তি আদায়ে তারা শুধু নিজেদের উদ্ভাবিত এক কৌশল কাজে লাগিয়েছে।

এই ভিডিওটি টুইট করেছেন মানবাধিকার বিষয়ক আইনজীবী ভেরোনিকা কোমন। তিনি দাবি করেন, সম্প্রতি পুলিশ পাপুয়ার স্বাধীনতাপন্থী এক আন্দোলনকারীকে আটকের পর সাপসহ একটি সেলের ভেতর রাখে।

পাপুয়ায় বিচ্ছিন্নতাবাদীরা ইন্দোনেশিয়া থেকে আলাদা হওয়ার জন্য আন্দোলন করে আসছে।

পাপুয়া নিউগিনির সঙ্গে সীমান্তের এই এলাকা ১৯৬৯ সালে ইন্দোনেশিয়ার অংশ হয়।

সূত্র : বিবিসি বাংলা

জুমবাংলানিউজ/এএসএমওআই