লাইফস্টাইল

সময় পেছানো যায়?

ফাইল ছবি

জুমবাংলা ডেস্ক :  প্রযুক্তির নতুন আবিষ্কার কোয়ান্টাম কম্পিউটারে ‘ডিরেকশন অব টাইম’ এর পরিবর্তন আবিষ্কারের দাবি তুলেছেন বিজ্ঞানীরা। তারা বলছেন, এই আবিষ্কার পদার্থ বিজ্ঞানের মৌলিক সূত্রের বিপরীত।

কোয়ান্টাম কম্পিউটার এক ধরনের বিশেষ প্রযুক্তি। জটিল সব সমস্যার সমাধান করতে বিজ্ঞানীরা এই কম্পিউটারের সফল ব্যবহার করতে দীর্ঘদিন ধরে চেষ্টা করছেন।

পদার্থ বিজ্ঞানীরা কম্পিউটারে একটি ইভেন্ট পর্যবেক্ষণ করেন। সেটি দেখলে যে কারও মনে হবে সময় পিছিয়ে যাচ্ছে। মস্কো ইনস্টিটিউটের বিজ্ঞানীরা সময়ের এই অবস্থাটি আবিষ্কার করেছেন।

প্রধান গবেষক ড. গোরডি লেসোভিক বলেন, ‘আমরা কৃত্রিমভাবে এমন একটি অবস্থার সৃষ্টি করেছি, যেটা অ্যারো অব টাইমের বিপরীত অবস্থা নির্দেশ করে।’

এই আবিষ্কারকে টাইম মেশিনের সঙ্গেও তুলনা করা হচ্ছে।

কোয়ান্টাম কম্পিউটার কী?

সাধারণ কম্পিউটার কাজ করে বাইনারি সংখ্যা দিয়ে। বাইনারি পদ্ধতিতে সংখ্যা মাত্র দুটি- ০ ও ১। এই দুটি সংখ্যা দিয়েই যাবতীয় কাজ করে এখনকার কম্পিউটার। বর্তমান ব্যবস্থায় প্রতিবার হয় ০ নতুবা ১ ব্যবহার করতে পারে কম্পিউটার। কিন্তু কোয়ান্টাম কম্পিউটার ০ ও ১ দুটিরই প্রতিনিধিত্ব করতে পারে। আবার একই সময়ে একই সঙ্গে ০ ও ১’র প্রতিনিধিত্ব করতে পারে কোয়ান্টাম কম্পিউটার। বিশেষ এই কম্পিউটারের মৌলিক একককে বলা হয় কিউবিটস। বাইনারি সংখ্যা হিসেবে ০ ও ১ ব্যবহারের অনবদ্য বৈশিষ্ট্যের কারণেই কোয়ান্টাম কম্পিউটার জটিল গাণিতিক সমস্যার দ্রুত সমাধান করতে পারে।

জুমবাংলানিউজ/এসএস