জাতীয় বিভাগীয় সংবাদ

সংস্কৃতির বিকাশ এবং লালনের জন্য সরকার বদ্ধপরিকর: পরিকল্পনা মন্ত্রী

জুমবাংলা ডেস্ক: পরিকল্পনা মন্ত্রী এম এ মান্নান বলেছেন, বাঙালিরা পৃথিবীর যে প্রান্তেই থাকুক না কেন, তাদের নিজস্ব সংস্কৃতি বিশ্ববাসীর সামনে তুলে ধরতে হবে। নিজস্ব সংস্কৃতির বিকাশ এবং লালনের জন্য দেশের যেখানে যা করা প্রয়োজন সরকার তা করতে বদ্ধপরিকর। খবর ইউএনবি’র।

পরিকল্পনা মন্ত্রী এম এ মান্নান। ছবি: ইউএনবি

তিনি বলেন, ‘পৃথিবীর যেকোনো দেশের সংস্কৃতি তার নিজস্ব পরিচয় বহন করে। আমাদের নিজস্ব সংস্কৃতিও অত্যন্ত সমৃদ্ধ। আমরা বাঙালি, আমাদের বাঙালি সংস্কৃতি আজ সারাবিশ্বে সমাদৃত।’

শুক্রবার সকাল ১০টায় নেত্রকোনা জেলার মোহনগঞ্জ উপজেলার আদর্শ নগর শহীদ স্মৃতি মহাবিদ্যালয়ে ‘বাউল সাধক উকিল মুন্সি স্মরণে বাউল উৎসবে’ প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

মান্নান বলেন, আমাদের এদেশের হাওর জনপদের সংস্কৃতি বাঙালির চেতনাকে সমৃদ্ধ করেছে। শিল্প সাহিত্যে হাওর সংস্কৃতির বিকাশ ঘটেছে ব্যাপকভাবে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা হাওর জনপদের সাধারণ মানুষের দুঃখ কষ্ট উপলব্ধি করে হাওর অঞ্চলের উন্নয়নে বিশেষ গুরুত্ব দিয়ে নানামুখী উন্নয়নমূলক কাজ করছেন। তার নির্দেশেই র্বতমান গণতান্ত্রিক সরকার সুনামগঞ্জ থেকে নেত্রকোনা আসতে হাওরের ওপর দিয়া ফ্লাইওভার নির্মাণ করার পরিকল্পনা করছেন। এ পরিকল্পনা বর্তমান সরকারের সময়েই বাস্তবায়ন করা হবে।

পরিকল্পনা মন্ত্রী আরও বলেন, নেত্রকোনা, সুনামগঞ্জ, কিশোরগঞ্জের হাওরাঞ্চল হচ্ছে বোরো ধান উৎপাদনের ভাণ্ডার। আমরা চাইলেই এখানে একটি এগ্রিকালচার ট্রেনিং ইনস্টিটিউট (এটিআই) স্থাপন করে ফেলতে পারি।

প্রধানমন্ত্রী কার্যালয়ের সচিব সাজ্জাদুল হাসানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন নেত্রকোনা-৪ (মোহনগঞ্জ-মদন খালিয়াজুরী) আসনের সংসদ সদস্য রেবেকা মমিন।

প্রধান আলোচক হিসেবে আলোচনা করেন স্বাধীনতা পদকপ্রাপ্ত প্রাবন্ধিক অধ্যাপক যতীন সরকার। অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন জেলা প্রশাসক মঈনউল ইসলাম, পুলিশ সুপার জয়দেব চৌধুরী ও শহীদ স্মৃতি মহাবিদ্যালয়ের অধ্যক্ষ জীবন কৃষ্ণ সরকার।

পরে দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে আগত বাউলশিল্পীরা বাউল গান ও মনোঞ্জ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিবেশন করেন।

জুমবাংলানিউজ/একেএ