গাজীপুর ঢাকা বিভাগীয় সংবাদ

শ্রীপুরে শ্বশুর বাড়ির লোককে কুপাল জামাতা

নিজস্ব প্রতিবেদক, গাজীপুরগাজীপুরের শ্রীপুরের নগর হাওলা গ্রামে শাশুড়ি ও শ্যালিকাকে ধারালো অস্ত্র দিয়ে কুপিয়ে আহত করার ঘটনায় স্বামী রিয়াজউদ্দিনকে আটক করে পুলিশে দিয়েছে স্থানীয়রা।

অভিযুক্ত রিয়াজ উদ্দিন (২৫) কুড়িগ্রাম জেলার উলিপুর উপজেলার আপোয়ারকাতা গ্রামের মৃত ইয়াকুব আলীর ছেলে। তিনি স্ত্রী বকুলী আক্তার ও আট বছরের এক সন্তানসহ নগরহাওলা গ্রামের মুজিবর মিয়ার বাড়িতে ভাড়া থেকে স্থানীয় একটি কারখানায় চাকরি করেন। সোমবার সকাল নয়টার দিকে মুজিবর মিয়ার বাড়িতে এ ঘটনা ঘটে।

আহতরা হলেন নেত্রকোনা জেলার দুর্গাপুর উপজেলার ঝানজাইড় গ্রামের বকুল মিয়ার স্ত্রী খোরশেদা (৬৫) ও একই এলাকার মনজুর মিয়ার মেয়ে মর্জিনা আক্তার (৩৫)। খোরশেদা রিয়াজউদ্দিনের শাশুড়ি ও মর্জিনা সম্পর্কে শ্যালিকা। তারা উভয়েই গত শুক্রবার মেয়ে বকুলির বাড়িতে বেড়াতে এসেছিলেন।

বকুলি আক্তার এ ঘটনার বিষয়ে বলেন, তিনি গত চার বছর ধরে স্বামী রিয়াজউদ্দিন ও এক ছেলেকে নিয়ে নগরহাওলা গ্রামের মুজিবর মিয়ার বাড়িতে ভাড়া থেকে স্বামী-স্ত্রী উভয়েই একটি কারখানায় চাকরি করেন। বিভিন্ন সময় রিয়াজউদ্দিন ব্যবসা করার উদ্দেশ্যে শাশুড়ির কাছে ২০ হাজার টাকা ধার হিসেবে দাবি করে আসছিল। কিন্তু শ্বশুর বাড়ির লোকজন টাকা দিতে না পারায় গত ছয় মাস ধরে শ্বশুর বাড়ির সাথে সম্পর্কের অবনতি হয় রিয়াজউদ্দিনের।

এদিকে গত শুক্রবার সন্ধ্যায় তাঁর মা খোরশেদা ও মামাতো বোন মর্জিনা বেড়াতে এলে রিয়াজউদ্দিন মনোক্ষুণ্ন হন।এর জের ধরে সোমবার সকালে রিয়াজউদ্দিন তার ছেলেকে নিয়ে বাড়ি থেকে বের হওয়ার প্রস্তুতি নিলে শাশুড়ি খোরশেদার সঙ্গে কথা কাটাকাটি হয়। এর একপর্যায়ে তিনি ঘর থেকে দা নিয়ে শাশুড়ি ও শ্যালিকাকে কুপিয়ে আহত করেন। পরে স্থানীয়রা মুমূর্ষু অবস্থায় তাঁদের উদ্ধার করে প্রথমে শ্রীপুর উপজেলা হাসপাতালে পরে সেখান থেকে ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করে।

শ্রীপুর থানার উপপরিদর্শক (এসআই) মোহসিন মিয়া বলেন, এ ঘটনায় স্থানীয়রা অভিযুক্ত রিয়াজউদ্দিনকে আটকে শ্রীপুর থানা খবর দিলে থানা পুলিশ দুপুর ১২টার দিকে অভিযুক্তকে পুলিশ হেফাজতে নেয়। এ বিষয়ে মামলা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।