আন্তর্জাতিক

শুধু মুসলিম নয়, রাজ্যের ২৩.৯ শতাংশ তফসিলিদেরও দেখব: মমতা

পঞ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেছেন, আমি ভয় পাই না। যতক্ষণ বাঁচব, সব ধর্মের জন্য লড়ে যাব। নির্বাচিত সরকারের ভিত্তি হলো জনগণ। জনগণের উন্নয়নই সরকারের আসল ধর্ম। কিন্তু এখন দেশে (ভারতে) ধর্মের ভিত্তিতেই সরকার চালাচ্ছে একটি দল।

বাবরি মসজিদ ধ্বংসের ২৫ বছর পূর্তি উপলক্ষে গাঁধী মূর্তির পাদদেশে তৃণমূল গত বুধবার সংহতি দিবসের সমাবেশের ডাক দিয়েছিল। সেই সমাবেশে মমতা এসব কথা বলেন।

কেন্দ্র সরকারকে আক্রমণ করে তিনি বলেন, ‘মানুষই নির্বাচিত সরকারের ভিত্তি। কিন্তু মানুষের দুর্দশা, উন্নয়নের দিকে দৃষ্টি না দিয়ে নির্দিষ্ট একটি ধর্মের ভিত্তিতে দিল্লির সরকার চলছে। শুধুমাত্র একটা ধর্ম নিয়ে সরকার চলতে পারে না।’

মমতা বলেন, ‘উল্টো পাল্টা ছবি দেখিয়ে বলা হচ্ছে, আমি নাকি মুসলিমদের তোষণ করি। রাজ্যে ৩১.৯ শতাংশ মুসলিম রয়েছেন। যদি বলেন, আমি তোষণ করছি, বলবো তাদের কোটি বার তোষণ করবো। শুধু মুসলিম নয়, রাজ্যের ২৩.৯ শতাংশ তফসিলিদের ভালোবাসি। তফসিলি-আদিবাসীদেরও তোষণ করবো। রাজ্যে একজনও অন্য সম্প্রদায়ের মানুষ থাকলে, তাকে সুরক্ষা দেওয়া আমার কাজ।’

মমতার আরও বলেন, ‘আমি ভয় পাই না। যতক্ষণ বাঁচব, সব ধর্মের জন্য লড়ে যাব। বিজেপির বি রুদ্ধে বলব। কেন্দ্র ধর্ম, বর্ণ, জাতি নিয়ে খালি সুড়সুড়ি দিচ্ছে। আপনারা (কেন্দ্র) উঁচু-নিচু, সাদা-কালো দেখেন। ধর্ম-বর্ণ নিয়ে ভাগ করেন। আমরা করি না। কেউ যাতে পয়সা ছড়িয়ে কোনো অশান্তি বাধাতে না পারে, সে দিকে খেয়াল রাখবেন। পুলিশকে জানাবেন।’

এদিকে মুখ্যমন্ত্রীর এমন বক্তব্যে পাল্টা রাজনীতি দেখছেন অনেকে। সামনেই পঞ্চায়েত ভোট, সেই ভোটে গ্রামাঞ্চলে নির্ণায়ক শক্তি হতে চলেছে সংখ্যালঘু, তফসিলি ও আদিবাসী ভোট ব্যাংক। বিরোধী পরিসরে দ্রুত জায়গা করে নেওয়া বিজেপি তৃণমূল সরকারের বিরুদ্ধে বরাবর মুসলিম তোষণের অভিযোগ তুলেছে। সেই অভিযোগ খণ্ডনের পরিবর্তে মমতা সোজাসাপ্টা তা স্বীকার করে নিয়ে মুসলিম ভোটকে কাছে টানছেন বলে মনে করছেন রাজনীতিকদের একাংশ। সূত্র : আনন্দবাজার