জাতীয়

শিক্ষকদের জন্য ১১ নির্দেশনা

মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তরাধীন স্কুল-কলেজ ও মাদরাসার শিক্ষকদের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে যথাসময়ে উপস্থিতি নিশ্চিতসহ ১১ দফা নির্দেশনা দেয়া হয়েছে। বৃহস্পতিবার মহারপিচালক ড. সৈয়দ মো. গোলাম ফারুক স্বাক্ষরিত ওই নির্দেশ জারি করেছে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তর।

নির্দেশনগুলো হলো:

১. শিক্ষকগণের শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে যথাসময়ে উপস্থিতি ও ফলপ্রসূ পাঠদান নিশ্চিত করতে হবে।

২. প্রাত্যহিক সমাবেশে শিক্ষার্থীদেরকে দিয়ে দুইটি নৈতিক বাক্য পাঠ করাতে হবে।

৩. শিক্ষকগণের দক্ষতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে প্রতিষ্ঠান প্রধানগণ শিক্ষকদের নিয়ে নিয়মিত ইন-হাউস প্রশিক্ষণের আয়োজন নিশ্চিত করবেন।

৪. নির্ধারিত শিক্ষকের অনুপস্থিতিতে কোনো ক্লাস বন্ধ রাখা যাবে না।

৫. শ্রেণিকক্ষে পাঠ্যপুস্তকের বাইরে কোনো নোটবুক ও গাইড বই ব্যবহার করা যাবে না।

৬. মাল্টিমিডিয়া ও কম্পিউটার ল্যাব ব্যবহার নিশ্চিত এবং সকল শিক্ষককে আইসিটি বিষয়ে পারদর্শী হতে হবে।

৭. সহশিক্ষা কার্যক্রম যথাযথভাবে বাস্তবায়ন এবং বিজ্ঞানাগার ও লাইব্রেরি ব্যবহার নিশ্চিত করতে হবে।

৮. শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে (মাধ্যমিক) নির্বাচিত স্টুডেন্টস ক্যাবিনেট-এর কার্যকর ব্যবহার নিশ্চিত করতে হবে।

৯. মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনা মোতাবেক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন এবং স্বাস্থ্যসম্মত রাখার নিশ্চয়তা বিধান করতে হবে।

১০. প্রতিষ্ঠানের লাইব্রেরিতে শিক্ষার্থীদের নাগালের মধ্যে বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের দলিলপত্র (১৫ খণ্ড) রাখার এবং পড়ার জন্য উৎসাহিত করতে হবে।

১১. শিক্ষা মন্ত্রণালয় , মাধ্যমিক উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তর এবং শিক্ষাবোর্ড কর্তৃক সময় সময় জারিকৃত অফিস আদেশ, পরিপত্র, ও প্রজ্ঞাপন সংরক্ষণ অনুসরণ ও বাস্তবায়ন নিশ্চিত করতে হবে।

জুমবাংলানিউজ/ জিএলজি