আন্তর্জাতিক শিল্প ও সাহিত্য

বসে নয়, দাড়িয়ে দাড়িয়ে লেখালেখি করে বিশ্ব কাঁপিয়েছেন যে লেখক!

রেহেনা আক্তার রেখা: আপনার প্রিয় লেখক কে? কথাটি শুনে ভাবছেন তো? আসলে কে আপনার প্রিয় লেখক?  আপনার হয়তো দেশে এবং দেশের বাইরে কয়েকজন লেখকের লেখা খুবই পছন্দ। তাই আপনার প্রিয় লেখক কে সে সম্পর্কে হঠাৎ বলতে পারছেন না। যাইহোক আজকে জুমবাংলার পাঠকদের জন্য বিশ্বব্যাপী সুপরিচিত একজন লেখকের দৈনন্দিন জীবন সম্পর্কে সামান্য কিছু তথ্য তুলে ধরবো যা শুনে আপনি অনুপ্রাণিত হবেন। বলছিলাম  নোবেল বিজয়ী জনপ্রিয় লেখক আনের্স্ট হেমিংওয়ের কথা।

তিনি ছিলেন আমেরিকান একজন লেখক। যার লেখনীতে বিংশ শতাব্দীর সাহিত্য নতুন মোড় নিয়েছিলো। জীবনকে তিনি দেখেছেন খুব কাছ থেকে। তাঁর লেখা বিখ্যাত উপন্যাস ‘ওল্ড ম্যান এন্ড দ্য সি’। আর এটি হলো পৃথিবীর সবচেয়ে ছোট উপন্যাস। এই উপন্যাসের একটি কথার জন্য তিনি নোবেল পেয়েছিলেন।

সেই বিখ্যাত কথাটি হলো, ‘‘Man can be destroyed but not be defeated’’ অর্থাৎ মানুষ ধ্বংস হয়ে যেতে পারে কিন্তু পরাজয় মেনে নিতে পারেনা। এই মহান লেখক প্রতিদিন সকাল ৫.৩০ থেকে ৬ টার মধ্যে উঠে যেতেন। তারপর লেগে যেতেন লেখালেখিতে।

যখন তার লেখালেখি ভালো যেত না তখন তিনি ব্যস্ত থাকতেন চিঠিপত্রের উত্তর দেওয়া নিয়ে। আপনি শুনে অবাক হবেন এই জনপ্রিয় লেখক বসে নয়, দাড়িয়ে দাড়িয়ে লেখালেখি করে বিশ্ব কাঁপিয়েছিল।

আর  এই বিশ্বে অল্পকিছু লেখক ছিলেন যারা দাড়িয়ে লিখতেন তাদের মধ্যে আনের্স্ট হেমিংওয়ে ছিলেন অন্যতম। তিনি দাঁড়িয়ে টাইপরাইটারে লেখালেখি করতেন। সত্যিই তিনি সাহিত্যজগতে এক উজ্জ্বল নক্ষত্র যার লেখা পড়ে আমরা অনুপ্রাণিত হয়, বেঁচে থাকার নতুন স্বাদ খোঁজে পাই।