আন্তর্জাতিক

রোহিঙ্গাদের ‘মগজ ধোলাই’ হচ্ছে: মিয়ানমারের ধর্মমন্ত্রী

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : মিয়ানমারের ধর্মমন্ত্রী থুরা অং কো বাংলাদেশের কক্সবাজারের শরণার্থী শিবিরে থাকা রোহিঙ্গাদের ‘মগজ ধোলাই’ করা হচ্ছে বলে দাবি করেছেন।

থুরা রোহিঙ্গাদের ‘বাঙালি’ বলে সম্মোধন করে বলেন, বাংলাদেশ শিবিরে মিয়ানমারের দিকে ‘ধেয়ে আসতে’ তাদের ‘মগজ ধোলাই’ করা হচ্ছে। তাদের ভবিষ্যত লক্ষ্য হল বিপুল পরিমাণ বাঙালিকে মিয়ানমারের দিকে ধাবিত করা। এদের ফিরে আসা বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীদের জন্য হুমকি স্বরূপ হবে।’

সাবেক এই সামরিক কর্মকর্তা বলেন, ‘বাংলাদেশ তাদের ফেরত দিতে চায় না। যদি তারা তাদের ফেরত দেয়, তবে তাদের জনসংখ্যা কমে যাবে।’ এই ধর্মমন্ত্রী বলেন, ‘মিয়ানমারের বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীরা যেখানে দুই বা এক সন্তান নীতিতে বিশ্বাসী, সেখানে একটি চরমপন্থি ধর্ম তিন থেকে চারটি বিয়ে ও ১৫ থেকে ২০টি করে সন্তান নিতে উৎসাহ দিয়ে থাকে। মুসলিম জনসংখ্যা বাড়তে থাকলে বৌদ্ধ ধর্মাবলম্বীরা হুমকির মুখে পড়বে। তারাই সংখ্যালঘু হয়ে পড়বে।’ এই সময় তিনি স্বীকার করেন, চরমপন্থী ধর্ম বলতে তিনি মুসলিমদের বুঝিয়েছেন।

এর আগে দুই দেশের সরকারের আলোচনা সাপেক্ষে বাংলাদেশের রোহিঙ্গা ক্যাম্প থেকে আড়াই হাজারের বেশি শরণার্থীকে প্রথম দফায় ফেরত পাঠানোর পরিকল্পনা হাতে নেয়া হয়। তবে রোহিঙ্গারা ফিরত যেতে অস্বীকৃতি জানানোয় এই সিদ্ধান্ত কার্যকর করা এখনও সম্ভব হয়নি। ক্যাম্পে অবস্থানরত রোহিঙ্গারা তাদের নিরাপত্তা ও নাগরিকত্বের নিশ্চয়তা দাবি করেছেন। তাই পুনর্বাসন প্রকল্প আপাতত স্থগিত রয়েছে।

২০১৭ সালের আগস্টে মিয়ানমারের সেনাবাহিনীর নৃশংসতার শিকার হয়ে সাড়ে ৭ লাখেরও বেশি রোহিঙ্গা বাংলাদেশে আশ্রয় গ্রহণ করে। জাতিসংঘ মিয়ানমারের ওপর গণহত্যা, ধর্ষণ ও শতশত গ্রাম পোড়ানোর অভিযোগ এনেছে। সূত্র : রয়টার্স

জুমবাংলানিউজ/এএসএমওআই