শিক্ষা

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ে উদ্বোধন হলো টিএসসিসি

উদ্বোধনের প্রায় এক বছর পর চালু হলো রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের শহীদ সুখরঞ্জন সমাদ্দার ছাত্র-শিক্ষক সাংস্কৃতিক কেন্দ্র (টিএসসিসি)। আজ শুক্রবার সন্ধ্যা ৬টায় মহান বিজয় দিবস উপলক্ষে আয়োজিত সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের মাধ্যমে এ কেন্দ্রের আনুষ্ঠানিক কার্যক্রম শুরু হলো।

গত বছর ২৮ অক্টোবর নির্মাণাধীন অবস্থায় টিএসসিসি উদ্বোধন করেন সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর।

টিএসসিসি’র পরিচালক অধ্যাপক টি এম এম নূরুল মোদ্দাসের চৌধুরীর সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য অধ্যাপক চৌধুরী সারওয়ার জাহান। অনুষ্ঠানে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক মুহম্মদ মিজানউদ্দিন বলেন, “বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র-শিক্ষক ও সংস্কৃতিকর্মীদের দীর্ঘদিনের দাবি ছিল এই টিএসসিসি। তাদের দাবির পরিপ্রেক্ষিতে অর্থ বরাদ্দ ও নকশা প্রণয়ন করে কাজ শুরু করা হলেও অসম্পূর্ণ রেখে তা বন্ধ করে দেওয়া হয়। এরপর ২০০৬ সালে পুনরায় কাজ শুরু করা হলেও নির্মাণাধীন ভবনের ছাদ ভেঙে পড়ায় তা পরিত্যক্ত ভবনে পরিণত হয়। ”

উপাচার্য আরো বলেন, “দায়িত্ব গ্রহণের পর টিএসসিসি চালুর উদ্যোগ নিই। এরপর সেই পরিত্যক্ত ভবনের ওপর কাজ শুরু করা হয়। নির্মাণাধীন অবস্থায় গত বছর সংস্কৃতিমন্ত্রীকে দিয়ে উদ্বোধন করা হলেও অনুষ্ঠান করা সম্ভব হয়নি। আমাদের ইচ্ছাশক্তি ও বিশ্ববিদ্যালয় প্রকৌশল দপ্তরের রাত-দিন পরিশ্রমের ফলে আজ আমরা অনুষ্ঠান করতে পেরেছি। ” রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় সংস্কৃতিচর্চার কেন্দ্র উল্লেখ করে উপাচার্য বলেন, “রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় জ্ঞান, গবেষণা, খেলাধুলা এবং সংস্কৃতি চর্চার কেন্দ্র। বাইরের লোকজন শুধু এখানকার নেতিবাচক খবরগুলোই দেখেন, ইতিবাচক বিষয়গুলো সেভাবে উঠে আসে না। পরবর্তীকালে আমরা এ বিশ্ববিদ্যালয়কে পূর্ণাঙ্গ সাংস্কৃতিক জোন হিসেবে গড়ে তোলার চেষ্টা করব। ”

ভারতীয় দূতাবাসের সহকারী হাইকমিশনার অভিজিৎ চট্টোপাধ্যায় বলেন, “মুক্তিযুদ্ধের সময় থেকেই ভারতবর্ষ বাংলাদেশের পাশে ছিল, আছে এবং ভবিষ্যতে থাকবে। বাংলাদেশ ও ভারত দুইটি আলাদা দেশ হলেও একটি হৃদয়। দুই দেশের মৈত্রী দিনে দিনে দৃঢ়তর হয়েছে ও সম্পর্ক নতুন স্তরে পৌঁছেছে। ” অনুষ্ঠানে বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের উর্ধ্বতন কর্তাব্যক্তিরা উপস্থিত ছিলেন।

 

Add Comment

Click here to post a comment