জাতীয় বিভাগীয় সংবাদ স্লাইডার

রাঙ্গামাটি হত্যাকান্ড : ছয় মরদেহের ময়নাতদন্ত সম্পন্ন, হয়নি কোনো মামলা

রাঙ্গামাটি প্রতিনিধি : জেলার বাঘাইছড়িতে দুর্বৃত্তের ব্রাশ ফায়ারে নিহত সাত জনের মধ্যে ছয় জনের মরদেহের ময়নাতদন্ত শেষ হয়েছে। তবে এ হত্যাকান্ডে এখনও অবধি কোনো মামলা হয়নি।

১৯ মার্চ মঙ্গলবার দুপুরে খাগড়াছড়ি আধুনিক সদর হাসপাতালে এই ময়নাতদন্ত সম্পন্ন হয়েছে।

খাগড়াছড়ি আধুনিক সদর হাসপাতালের ভারপ্রাপ্ত আবাসিক চিকিৎসক অনুতোষ চাকমা জানান, সহকারী প্রিজাইডিং অফিসার মো. আমির হোসেন, আনসার ও ভিডিপি সদস্য আল আমিন, বিলকিস আক্তার, জাহানারা বেগম, মিহির কান্তি দত্ত ও গাড়ীর হেলপার মন্টু চাকমা’র ময়না তদন্ত করা হয়েছে। অফিসিয়াল বিষয়াদি শেষ করার পর লাশগুলোর পুলিশের কাছে বুঝিয়ে দেয়া হবে। পুলিশ আইনানুগ প্রক্রিয়া শেষে লাশগুলো নিহতদের পরিবার ও আত্মীয়-স্বজনের হাতে তুলে দিবেন। খাগড়াছড়ি জেলা প্রশাসক মোঃ শহীদুল ইসলাম, পুলিশ সুপার মোঃ আহমার উজ্জামান আধুনিক সদর হাসপাতালে যান এবং নিহতদের পরিবারের সদস্যদের সমবেদনা জানান।

নিহত আনসারের প্লাটুন কমান্ডার মিহির কান্তি দত্তের ছেলে পিয়াল দত্ত ঘটনায় পাহাড়ি সন্ত্রাসীদের দায়ী করে বলেন, সরকারী দায়িত্ব পালন করতে গিয়ে সন্ত্রাসীদের বিরাগভাজন হয়েছেন তার বাবাসহ অন্যান্যরা। তিনি জড়িতদের দ্রুত গ্রেফতার, দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি এবং যথাযথ ক্ষতিপূরণের দাবি জানিয়েছেন।

বাঘাইছড়ি থানার ওসি (তদন্ত) মোঃ জাহাঙ্গীর আলম জানান, যত দ্রুত সম্ভব লাশগুলো স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হবে। তিনি আরো জানান নির্মম এই হত্যাকান্ডের ঘটনায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে। সন্ত্রাসীদের ধরতে আইন শৃংখলাবাহিনীর সাড়াশি অভিযান চালাচ্ছে বলেও জানান পুলিশের এই কর্মকর্তা। এদিকে বাঘাইছড়ির নির্মম হত্যাকান্ডের জেরে খাগড়াছড়িতেও থমথমে পরিস্থিতি বিরাজ করছে।

খাগড়াছড়ি পুলিশ সুপার মোহা. আহমার উজ্জামান জানিয়েছেন ঘটনাটি পাশের জেলায় হলেও খাগড়াছড়িতে বাড়তি সতর্কতামূলক ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। গুরুত্বপূর্ন সকল জায়গায় আইন-শৃংখলা বাহিনীর সদস্য মোতায়েন আছে।

খাগড়াছড়ি জেলা প্রশাসক মো. শহিদুল ইসলাম জানান, সকল উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে যে কোন পরিস্থিতি মোকাবেলা করতে প্রস্তুত থাকতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

উল্লেখ্য, গতকাল সন্ধ্যায় রাঙ্গামাটির বাঘাইছড়ি উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের দায়িত্ব পালন শেষে সাজেকের ৩টি কেন্দ্র থেকে নির্বাচনী সরঞ্জাম নিয়ে বাঘাইছড়িতে ফেরার পথে সন্ত্রাসী হামলার ঘটনাস্থলে ৬ জন ও হেলিকপ্টারে করে চট্টগ্রামে নিয়ে যাওয়ার পথে পোলিং অফিসার আবু তৈয়ব (৪০) মারা যায়। আবু তৈয়বের তার লাশ এখানো আনা হয়নি।

জুমবাংলানিউজ/পিএম