অপরাধ-দুর্নীতি আইন-আদালত জাতীয় রাজশাহী

যে মামলায় সাবেক মন্ত্রী লতিফ সিদ্দিকী আবার কারাগারে

জুমবাংলা ডেস্ক: দুর্নীতি দমন কমিশনের (দুদক) মামলায় হাজিরা দিতে গিয়ে কারাগারে গেছেন সাবেক বস্ত্র ও পাটমন্ত্রী এবং আওয়ামী লীগ নেতা আবদুল লতিফ সিদ্দিকী।

বৃহস্পতিবার তিনি জামিন আবেদনের জন্য বগুড়া জেলা ও সিনিয়র বিশেষ জজ আদালতে গেলে বিচারক নরেশ চন্দ্র সরকার জামিন নামঞ্জুর করে তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।

মামলার বিবরণ অনুযায়ী, আদমদীঘী উপজেলার দারিয়াপুর এলাকায় বাংলাদেশ জুট করপোরেশনের (বিজেসি) একটি ক্রয়কেন্দ্রসহ ২ একর ৩৮ শতক জমি ক্ষমতার অপব্যবহার ও দুর্নীতির আশ্রয় নিয়ে বিনা টেন্ডারে বগুড়ার জাহানারা রশিদকে লিজ দেন তৎকালীন পাটমন্ত্রী লতিফ সিদ্দিকী।

এতে সরকারের রাজস্ব ক্ষতি হয় ২৩ লাখ ৪০ হাজার টাকা। বিষয়টি গণমাধ্যমে আসার পর দুদক অনুসন্ধান শুরু করে।

পরে অভিযোগের প্রাথমিক সত্যতা পাওয়ার পর দুদকের বগুড়া জেলা সমন্বিত কার্যালয়ের সহকারী পরিচালক আমিনুল ইসলাম ২০১৭ সালের ১০ অক্টোবর আদমদীঘী থানায় মামলা করেন।

মামলার তদন্ত শেষে ২০১৯ সালের ১৮ ফেব্রুয়ারি আদালতে অভিযোগপত্র দেয়া হয়। এ মামলায় জামিনের জন্য বৃহস্পতিবার আদালতে হাজির হন লতিফ সিদ্দিকী।

২০১৪ সালে হজ নিয়ে মন্তব্য করে আওয়ামী লীগের সভাপতিমণ্ডলীর পদ হারান লতিফ সিদ্দিকী। পরে মন্ত্রিত্ব থেকেও বাদ পড়েন এবং সব শেষে দল থেকে বহিষ্কার হন তিনি। ২০১৪ সালে আওয়ামী লীগ সরকার গঠন করলে লতিফ সিদ্দিকী দুই মন্ত্রণালয়- ডাক ও টেলিযোগাযোগ এবং তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তির দায়িত্ব পান। কিন্তু এক বছর না পেরোতেই বিদায় নিতে হয় তাকে। এর আগে ২০০৯ সালে শেখ হাসিনার সরকারে পাট ও বস্ত্রমন্ত্রীর দায়িত্ব নিয়ে ৫ বছর তা পালন করেন।

সর্বশেষ ২০১৮ সালের ৩০ ডিসেম্বরের একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে স্বতন্ত্র প্রার্থী হলেও মাঝপথে ভোট থেকে সরে দাঁড়ান আবদুল লতিফ সিদ্দিকী।

জুমবাংলানিউজ/এইচএম