বিনোদন

যে কারণে ভাবনাকে পাত্তা দেয় না কেউ!

টেলিভিশনের জনপ্রিয় দুই অভিনেত্রী বিজরী বরকতুল্লাহ ও শাহানাজ খুশির জন্মদিন বুধবার (১৫ নভেম্বর)। এ উপলক্ষে দুই তারকাকে শুভেচ্ছা জানান অভিনেত্রী আশনা হাবিব ভাবনা। পাশাপাশি ফেসবুকে শেয়ার করলেন অভিজ্ঞতা।

‘ভয়ঙ্কর সুন্দর’ তারকা জানান, তার অভ্যাস হলো চেনা-অচেনা সবার দিকে তাকিয়ে হাসি দেওয়া। কিন্তু মাঝে মাঝে এ কাণ্ড করেও পাত্তা পান না।

ভাবনা লেখেন, ‘আজকে দুজন মিষ্টি মানুষের জন্মদিন। বিজরী বরকতুল্লাহ আপু যাকে আমি প্রথম দেখেছিলাম তানভীন সুইটি আপুর বাসায়। অন্য অনেকেই সেদিন নতুন হিসেবে পাত্তা দিচ্ছিল না। আমার একটা বাজে অভ্যাস কাউকে দেখলে চিনি না চিনি, আগে দেখা হোক না হোক আমি হেসে তার দিকে তাকাই, কী এক অজানা কারণে সেদিন আমি অনেকের দিকে তাকিয়ে স্মাইলি ফেস করার পরও আমাকে অনেকে পছন্দ করছিল না।’

তিনি আরো লেখেন, ‘আমি এক রুম থেকে অন্য আসলাম দেখলাম বিজরী আপু চলে যাচ্ছে, আমি আর তাকে দেখে স্মাইল করলাম না, যে অনেকের মতো সেও আমাকে পছন্দ করবে না। কিন্তু হলো তার উল্টো— আপু নিজে আমার দিকে তাকিয়ে হাসলেন। বলল এই কেমন আছ, ভালো? এত ভালো লেগেছিল সেদিন আপুর এ আচরণটি কখন ভুলব না। ভালো মানুষরা হয়ত এমন হয়।’

শাহনাজ খুশি সম্পর্কে ভাবনা লেখেন, ‘আমার প্রিয়তম শাহানাজ খুশি দি প্রথম দিন থেকে এখন পর্যন্ত এই মানুষটাকে আপন লাগে। কেন লাগে জানি না। আমি তাকে দেখলে আহ্লাদ করি, আপুও প্রশয় দেয়। এখন তো আমরা এক পরিবারের মতো হয়ে গেছি।’

ভাবনার স্ট্যাটাসের মন্তব্যের ঘরে অভিনেত্রী তানভীন সুইটি লেখেন, ‘মনে কখনো কষ্ট রাখবে না এখনতো ফেসবুকের কারণে তুমি এই কথাগুলো বলতে পারছো। আমরা যখন নতুন এলাম বড়দের সামনে বসারও সাহস পেতাম না। মাঝে মাঝে মন খারাপ লাগতো কিন্তু এখন মনে হয় সেই সময়ের জন্য সেটাই ঠিক ছিল এবং এখনো এই অভ্যাসটা রয়ে গেছে। সেই সময় হয়তো যাদের দিকে তাকিয়ে হাসি দিয়েছিলে তারা হয়তো তোমাকে বুঝতে পারেনি তুমি মন খারাপটা ভুলে যাও। যাক, তোমাকে আমরা সবাই খুব আদর করি এবং ভালোবাসি বাবু। তোমার লেখাটা পড়ে ভালো লাগলো, তুমি ভালো থেকো। শুভ জন্মদিন বিজরী বরকতুল্লাহ ও শাহানাজ খুশি।’