অন্যরকম খবর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি

যানজট এড়িয়ে যাবে উড়ন্ত গাড়ি, দিন শেষে বাসটা হবে দোকান!

বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি ডেস্ক :: অনুপযুক্ত পরিবহন, অনুন্নত যোগাযোগ ব্যবস্থা, যানজটে সময়ের অপচয় নিয়ে বাংলাদেশিরা যে মুহূর্তে হতাশায় ভুগছেন, সেই মুহূর্তে উন্নত বিশ্বের মানুষ কোথায়? পরিবহন ও যোগাযোগ ব্যবস্থার আরও উন্নতি সাধনের প্রচেষ্টায় আরও কয়েক ধাপ এগিয়ে গেছে তারা। যানজট এড়াতে আসছে উড়ন্ত গাড়ি, দিন শেষে বাসটা হবে দোকান!

বলা বাহুল্য, তাদের উদ্ভাবন একদিন এসে পৌঁছবে আমাদের দেশেও। তাই আশার আলো দেখা যাচ্ছে হতাশার মাঝেও। আসুন দেখি কী উদ্ভাবন আসছে।

উড়ন্ত গাড়ি : উবার, বোয়িং, এয়ারবাস উড়ন্ত গাড়ি তৈরির বিভিন্ন প্রকল্প হাতে নিচ্ছে। ২০২৩ সালের মধ্যে উবার উড়ন্ত গাড়ি বাজারে আনার ঘোষণাও দিয়েছে; এমনকি এ নিয়ে নাসার সঙ্গেও তাদের চুক্তি হয়েছে। যানজটকে টাটা বলার সময় বুঝি এসেই গেল।

উইলি ট্রান্সপারেন্ট এলসিডি বাস : বাসকে আরো আকর্ষণীয় করে তুলতে ডিজাইনার ট্যাড অরলউস্কি বাসের চারপাশে স্বচ্ছ এলসিডি স্ক্রিন বসিয়ে ভ্রাম্যমাণ বিলবোর্ড এবং যাত্রীদের জন্য প্রয়োজনীয় তথ্য যেমন—রুট প্ল্যান, আবহাওয়ার খবর ইত্যাদি প্রদর্শনের ব্যবস্থা রেখে একটা মডেল বাস তৈরি করেছে।

হাইপারলুপ : হাইপারলুপ হলো দারুণ শক্তপোক্ত একটা টিউবের ভেতর বসে দ্রুত চলাচল ব্যবস্থা। টেসলা ও হাইপারলুপ ওয়ান এই দুই কোম্পানি এটি নিয়ে কাজ করছে। জিওস্পেশাল ওয়ার্ল্ডের তথ্যমতে, হাইপারলুপ ঘণ্টায় ৬০০ মাইল গতিতে চলবে।

দিন শেষে বাসটা হয়ে যাবে দোকান : টয়োটার ই-প্যালেট কনসেপ্ট ভেহিকলের ধারণা অনুযায়ী, একটি সাধারণ গাড়ি মুহূর্তের মধ্যেই ভোল পাল্টে হয়ে যাবে ভ্রাম্যমাণ দোকান, শোরুম, হোটেল কিংবা রেস্তোরাঁ। এতে ফ্রিল্যান্সারদের কাজের পরিবেশও থাকবে। ফলে বাসে বসেই চাইলে সেরে নিতে পারেন অফিসের কাজ।

নিউজরুম ডট টয়োটা থেকে জানা যায়, বিদ্যুৎচালিত এ গাড়িগুলোতে তাদের পণ্য বাজারজাত করতে আমাজন, পিৎজা হাট, উবার টেকনোলজি এরই মধ্যে অংশীদার হিসেবে যোগ দেওয়ার চিন্তা করছে।

জুমবাংলানিউজ/এইচএমজেড