খেলা-ধুলা

ম্যাচ ফিক্সিংয়ের মূল অনেক গভীরে

পাকিস্তানের ক্রিকেটে ফিক্সিং নতুন কিছু নয়। ২০১০ সালের আগস্টে লর্ডসে আমির-বাট-আসিফদের স্পট-ফিক্সিংয়ের পরও পিএসএলে একই কর্মকাণ্ডে নিষিদ্ধ হয়েছেন নাসির জামশেদ, শারজিল খান। বিচার চলছে আরও অনেকের।

তবে আসন্ন পাকিস্তান সুপার লীগ (পিএসএল) টি ২০ টুর্নামেন্টের আগে দেশটির সাবেক অধিনায়ক ওয়াকার ইউনুস বলেছেন, ক্রিকেটে এখনও ফিক্সিং হচ্ছে। এই
স্পট-ফিক্সিং পাকিস্তান ক্রিকেটের ইমেজ ক্ষুণ্ণ করেছে।

পিএসএল ফ্র্যাঞ্চাইজি ইসলামাবাদ ইউনাইটেডের এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, ‘ম্যাচ ফিক্সিংয়ের মূল অনেক গভীরে। এখনও সব পর্যায়ের ক্রিকেটে ফিক্সিং হচ্ছে। সমন্বিতভাবে এটা উৎখাতে আমাদের সমন্বিত উদ্যোগ প্রয়োজন।’

তিনি আরও বলেন, ‘আমার প্রধান কাজ হবে মাঠে এবং মাঠের বাইরে খেলোয়াড়দের গাইড করা। নোংড়া কাজ থেকে দূরে থেকে কীভাবে সুন্দর একটা ক্যারিয়ার গড়া যায় সে বিষয়ে তাদের বলা।’

পিএসএলের আসন্ন তৃতীয় আসরে ইউনাইটেডের ডিরেক্টর হিসেবে দায়িত্ব পালন করতে যাওয়া ওয়াকার ম্যাচ ফিক্সিংয়ের বিষয়ে নজর রাখবেন। তরুণ ক্রিকেটারদের মনিটরিং করবেন বলে উল্লেখ করেন তিনি।