অপরাধ-দুর্নীতি জাতীয় ঢাকা

মৌখিক বিয়ে করে পাঁচ বছর ধর্ষণ, স্ত্রীর মর্যাদা চাওয়ায় হত্যার হুমকি

জুমবাংলা ডেস্ক : রাজধানীতে দুই সন্তানের জননীকে ‘মাজার স্বাক্ষী রেখে’ মৌখিক বিয়ের করে টানা পাঁচ বছর ধর্ষণের পর স্ত্রীর মর্যাদা চাওয়ায় ধর্ষিতাকে  হত্যার হুমকি দেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে এক ব্যবসায়ীর বিরুদ্ধে।

দারুস সালাম থানার জিডি সূত্রে জানা গেছে, প্রায় ছয় বছর আগে গাবতলীর মাজার রোডস্থ ১ নম্বর কলোনির ৭/এ/এ নম্বর বাড়ির মৃত সিরাজউদ্দৌলার ছেলে সানাউল্লাহ সানীর (৪৫) সাথে পরিচয় হয় ওই বিধবা নারীর। এরপর ধীরে ধীরে দুই সন্তানের ওই মায়ের সঙ্গে গভীর প্রেমের সম্পর্ক গড়ে তোলেন সানী। এক পর্যায়ে ওই নারীকে ফুঁসলিয়ে মিরপুরের হযরত শাহ্ আলী (রহ) মাজারের সামনে শাহ আলী আবাসিক হোটেলে নিয়ে প্রথমবারের মতো ধর্ষণ করেন এবং শাহ্ আলী মাজার স্বাক্ষী রেখে ‘মৌখিক বিয়ে’ করে্ন। ২০১৪ সালের ওই ঘটনার পর তারা সাভার থানাধীন বিভিন্ন এলাকায় বাসা ভাড়া করে পাঁচ বছর একসঙ্গে বসবাস করেন।

বিষয়টি ওই নারীর মৃত স্বামীর বাড়ির লোকজন জেনে ফেলায় বিশেষ চাপে পড়ে যান তিনি। স্বামী মারা যাওয়ার আগে সরকারি চাকরি করার সুবাদে তার মৃত্যুপরবর্তী সময়ে স্ত্রী হিসেবে তিনি যে পেনশন-ভাতার টাকা পেতেন, তা-ও পাঠানো বন্ধ করে দেয় শ্বশুরবাড়ির লোকজন।

এদিকে সানাউল্লাহরও স্ত্রী-সন্তান রয়েছে। পারিবারিক ব্যস্ততার কারণে কয়েক মাস নতুন সঙ্গীর খোঁজ-খবর নেওয়া বন্ধ করে দেন তিনি। এতে দুই সন্তান নিয়ে আরও বিপাকে পড়ে যান ওই নারী। সানাউল্লাহকে বার বার মুঠোফোনে ফোন করলে সাড়া না দিয়ে নানাভাবে হুমকি দিতে থাকেন। উপায় না দেখে সর্বশেষ চলতি মাসের ৮ তারিখ সকালে সানাউল্লাহর গাবতলীর মাজার রোডস্থ ১ নম্বর কলোনির ৭/এ/এ বাসায় হাজির হয়ে তাকে সামাজিকভাবে বিয়ে করে স্ত্রীর মর্যাদা দেওয়ার দাবি করেন ভুক্তভোগী নারী। কিন্তু বাড়িতে আসার কারণে উত্তেজিত হয়ে সানাউল্লাহ জানান, তাকে বিয়ে তো করবেনই না, বরং দুই সন্তানসহ হত্যা করে গুম করে ফেলবেন।

আতঙ্কিত ওই নারী উপায় না দেখে ওইদিনই মিরপুরের দারুস সালাম থানায় হাজির হয়ে ঘটনার বিবরণ দিয়ে সানাউল্লাহর বিরুদ্ধে একটি সাধারণ ডায়েরি করেন। দারুস সালাম থানার জিডি নম্বর-৩৫২।

এ বিষয়ে সাংবাদিক পরিচয় দিয়ে অভিযুক্ত সানাউল্লাহ সানীর মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি প্রথমে ওই নারীকে চেনেন না বলে দাবি করেন। পরে চেনেন বলে স্বীকার করলেও দাবি করেন, সে আমার কিছুই করতে পারবে না। আমি প্রমাণ রেখে কোনও কাজ করিনি। মামলা মোকদ্দমা করে সে যা ইচ্ছা করুক।

জুমবাংলানিউজ/এইচএমজেড