খেলা-ধুলা

‘মুশফিকের কাছে ক্ষমা চাইতে হবে বরিশাল বুলসকে’

বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ (বিপিএল) টি-টোয়েন্টির গত আসরে বরিশাল বুলসের হয়ে খেলেন বাংলাদেশ দলের টেস্ট অধিনায়ক মুশফিকুর রহিম। মুশফিকের নেতৃত্বে বেশ কয়েকটি ম্যাচে জয়ও পেয়েছে বরিশাল বুলস, ব্যাট হাতেও বেশ সফল ছিলেন এই উইকেট-রক্ষক ব্যাটসম্যান। তবে শেষ পর্যন্ত টুর্নামেন্টে সাফল্যের দেখা পায়নি বুলস।

টুর্নামেন্ট চলাকালীন দল নিয়ে জল কম ঘোলা হয়নি বরিশাল বুলসকে। দলের মালিকের সঙ্গে ক্রিকেটারদের বোঝাপড়ায়ও সমস্যা হয়েছিলো গুঞ্জন উঠেছিলো যার প্রভাব পড়েছে মাঠেও। তবে দলের এই ব্যর্থতার দায় মুশফিকের উপর চাপিয়ে দিচ্ছেন দলটির অন্যতম কর্ণধার এম এ আউয়াল চৌধুরী।

এবারের আসরে মুশফিককে দলে না নেওয়ার ইচ্ছা প্রকাশ করেছেন এই কর্ণধার। মুশফিকের উপর তিনি বেশ কয়েকটি অভিযোগ এনেছিলেন। প্রশ্ন তুলেছিলেন মুশফিকের দায়বদ্ধতা, অধিনায়কত্ব ও দলের অন্যান্য ক্রিকেটারদের সঙ্গে মুশফিকের সম্পর্ক নিয়েও। তবে বুলসের এমন ভাষ্যে আঘাত লেগেছে টেস্ট অধিনায়ক মুশফিকের মনে।

যার কারণে এই ব্যাপারে নালিশ দেন বিসিবির কাছে। পরবর্তীতে সংবাদ সম্মেলন করেন মুশফিক। সংবাদ সম্মেলনে বুলসের কর্ণধারের ঐ মন্তব্যে বিরাট প্রভাব ফেলেছে মুশফিকের উপর। দলের ক্রিকেটার হতে বাংলাদেশের অধিকাংশ মানুষই জানেন মুশফিকের দায়িত্ববোধ ও শৃঙ্খলা নিয়ে কতটা সচেতন। নিজের এমন বিষয়ে প্রশ্ন তোলাতে সম্মেলের এক সময় প্রায় কেঁদেই দিয়েছিলেন মুশফিক।

বাংলাদেশ দলের টেস্ট ক্রিকেট দলের অধিনায়কের উপর এমন বিব্রতিকর মন্তব্য করার কারণে বরিশাল বুলসের উপর চটেছেন বিপিএল গভর্নিং কাউন্সিল। সদস্য সচিব ইসমাইল হায়দার মল্লিক বলেন, বিষয়টি নিয়ে ভাবছে বিসিবি। দলের একজন অধিনায়ক প্রতি এমন মন্তব্য মেনে নেওয়ার মতো নয় বলে জানান তিনি। মল্লিক আরো বলেন, প্রয়োজনে মুশফিকের কাছে ক্ষমা চাইতে হবে বরিশাল বুলসের।

“মুশফিকের বিরুদ্ধে যেসব অভিযোগ করা হয়েছে তার প্রমাণ দিতে হবে আউয়াল চৌধুরীকে। এ ব্যাপারে কোনোরকম ছাড় দেওয়া হবে না। যে অভিযোগ করা হয়েছে তা প্রমাণ করতে না পারলে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে।প্রয়োজেনে মুশফিকের কাছে ক্ষমা চাইতে হবে বুরিশাল বুলসকে।”