জাতীয় স্বাস্থ্য

মুক্তামনির চিন্তায় গতরাতে ঘুমাইনি ডা. সামন্ত

রাতভর উত্তেজনা আর টেনশন। এ কারণে নির্ঘুম রাত কেটেছে ডা. সামন্ত লাল সেনের। সকালে চাপা উত্তেজনা আর টেনশন নিয়ে ঢোকেন অপারেশন থিয়েটারে। সেখানে টানা তিন ঘণ্টা অস্ত্রোপচার করা মুক্তামনির ডান হাতে। অপারেশন সফল হওয়ায় উচ্ছ্বসিত তিনি। ডা. সামন্ত লাল সেন এই প্রতিবেদককে তাৎক্ষণিক এক প্রতিক্রিয়ায় বলেন, আমি খুব আনন্দিত, খুব খুশি। যেহেতু মুক্তামনির রোগটি ক্যান্সারে রূপান্তরিত হয়নি। তাই আমি সম্পূর্ণ আশাবাদী যে মুক্তামনি পুরোপুরি সুস্থ হয়ে উঠবে।

 

শনিবার সকাল ৮টায় ঢাকা মেডিকেল কলেজ (ঢামেক) হাসপাতালের অপারেশন থিয়েটারে নেওয়া হয় সাতক্ষীরার মুক্তামনিকে। বিরল রোগে আক্রান্ত তার ডান হাতে অস্ত্রোপচার শুরু হয় সাড়ে ৮টায়। শেষ হয় সোয়া ১১ টার দিকে।

ঢামেকের বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইউনিটের সমন্বয়ক ডা. সামন্ত লাল সেন বলেন, গত রাত আমি, আমার স্ত্রী ও সন্তান উত্তেজনায় ঘুমাইনি।
তিনি বলেন, আমি আনন্দিত। যে মেয়েটি চিকিৎসার জন্য কোনদিন সাতক্ষীরা শহরেই আসেনি’ সে আজ ঢাকা মেডিকেলের সর্বোচ্চ চিকিৎসা পাচ্ছে।

ডা. সামন্ত লাল সেন জানান, এই অপারেশনটি ঢামেক হাসপাতালের টিমওয়ার্কের একটি মাইলফলক। এখানকার ওয়ার্ড বয় থেকে শুরু করে প্রফেসররা পর্যন্ত সবার একটি সফল টিমওয়ার্ক মুক্তামণির সফল অপারেশন।
এই চিকিৎসক বলেন, প্রধানমন্ত্রী তার কার্যালয়ের কর্মকর্তা লেলিন সাহেবকে দিয়ে যে অভিনন্দন জানিয়েছেন তাও সবার জন্য একটি বাড়তি উৎসাহ।
ডা. সামন্ত লাল গর্বের সঙ্গে বলেন, কে বলে বাংলাদেশের মানুষ খারাপ? দেশের মানুষ যেভাবে মুক্তামনির পাশে দাঁড়িয়েছে তা আমাদের আত্মবিশ্বাস অনেক বাড়িয়ে দিয়েছিলো।

তিনি পরিবর্তন ডটকমকে বিশেষ ধন্যবাদ জানিয়ে বলেন, বার্ন ও প্লাস্টিক সার্জারি ইউনিটের প্রতিটি সফলতার সাথে পরিবর্তন ডটকম চিকিৎসকদের পাশে ছিলো।

সাতক্ষীরা সদর উপজেলার কামারবায়সা গ্রামের মুদি দোকানি ইব্রাহীম হোসেনের মেয়ে মুক্তামনি (১২)। জন্মের দেড় বছর পর তার হাতে একটি ছোট মার্বেলের মতো গোটা দেখা দেয়। এরপর থেকে সেটি বাড়তে থাকে।
দেশের বিভিন্ন হাসপাতালে নিয়েও তার কোনো চিকিৎসা হয়নি। তার আক্রান্ত ডান হাত ছোট আকারের গাছের গুড়ির রূপ নিয়ে প্রচণ্ড ভারী হয়ে উঠে। এতে পচনও ধরে। পোকাও জন্মে। দিন রাত চুলকানি ও যন্ত্রণায় অস্থির হয়ে থাকতো মুক্তামনি।

এ রোগ তার দেহের সর্বত্র ছড়িয়ে গেছে বলে জানিয়েছেন ডাক্তাররা। এসব কারণে তাদের বাড়িতে আত্মীয় স্বজন ও পড়শিদের যাতায়াতও এক রকম বন্ধ হয়ে গেছে।

সম্প্রতি মুক্তামনির এ বিরল রোগ নিয়ে দেশের বিভিন্ন গণমাধ্যমে সংবাদ প্রকাশিত হয়। এরপরই তাকে ঢাকায় পাঠিয়ে সরকারি ব্যবস্থাপনায় চিকিৎসার উদ্যোগ নেয় স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়।

গত ১১ জুলাই মুক্তামনিকে ঢামেক হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে ভর্তি করা হয়। বর্তমানে সে ৬০৮ নম্বর বেডে চিকিৎসাধীন। ঢামেক হাসপাতালের বার্ন অ্যান্ড প্লাস্টিক সার্জারি ইউনিটের অপারেশন থিয়েটারে শনিবার (৫ আগস্ট) তার বায়োপসি সম্পন্ন হয়। বায়োপসি রিপোর্টে তার রক্তনালীতে টিউমার ধরা পড়ে। যা অপসারণ করা হয়েছে।

Advertisements