অর্থনীতি-ব্যবসা জাতীয় স্লাইডার

মানি লন্ডারিংয়ের মাধ্যমে সন্ত্রাসী কাজে অর্থায়ন, কঠোর অবস্থানে সরকার : অর্থমন্ত্রী

জুমবাংলা ডেস্ক : অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল বলেছেন, আমদানি – রপ্তানীর আড়ালে অর্থ পাঁচারকারীদের চিহ্নিত করতে বিশেষ সংস্থা আসছে। এই বিষয়ে কঠোর অবস্থানে রয়েছে সরকার।

আজ বৃহস্পতিবার (১৬মে) সচিবালয়ে মানি লন্ডারিং সংক্রান্ত জাতীয় কমিটির বৈঠক শেষে সাংবাদিকদেরকে তিনি এসব কথা বলেন।

অর্থমন্ত্রী বলেন, অর্থপাচার রোধে সকল আমদানি-রফতানিকৃত পণ্য যথাযথভাবে স্ক্যানিং করা হবে। পাশাপাশি আমদানি-রফতানিতে ওভার অ্যান্ড আন্ডার ইনভয়েসিংয়ের সঙ্গে জড়িতদের জরিমানার পাশাপাশি মামলা করা হবে। মামলার রায় অনুযায়ী তাদেরকে কঠোর শাস্তি দেয়া হবে।

মুস্তফা কামাল বলেন, আমাদের অর্থ পাচার মূলত ব্যাংক ও এনবিআর এই দুই জায়গার মাধ্যমে হয়। এর বাইরে বড় আকারে মানি লন্ডারিংয়ের ব্যবস্থা নেই। মিখ্যা ঘোষণা দিয়ে আমদানি-রফতানির মাধ্যমে এবং ব্যাংকের মাধ্যমে এলসি খোলার মধ্য দিয়ে অর্থ পাচার হয়। আমদানি-রফতানির মাধ্যমে অর্থ পাচার রোধে আমরা শতাভাগ স্ক্যানারের ব্যবস্থা করছি।

তিনি জানান, ওভার প্রাইসিং আর আন্ডার প্রাইসিং রোধে পিএসআই’র আদলে এনবিআরে একটি সেল খোলা হবে। তারা নেটের মাধ্যমে বিশ্বের বিভিন্ন এলাকায় ঢুকে পণ্যের দাম জানবে। তারপর তারা রিপোর্ট করবে। ওই দামের চেয়ে ঊনিশ-বিশ হলে সমস্যা থাকবে না। তবে বেশি পার্থক্য থাকলে সেসব পণ্য বাজেয়াপ্ত করা হবে। এখানেই শেষ নয়, এটা পাথর, বালি, ইট-বালু হতে পারে। সেক্ষেত্রে যারা এর সঙ্গে জড়িত থাকবে এখন তাদেরকে একটা শুধুমাত্র জারিমানা করা হয়। আগামীতে জারিমানা করার পাশাপাশি আইন অনুযায়ী মামলা করা হবে। মামলার রায় অনুযায়ী তারদেরক কঠোর শাস্তির মুখোমুখি করা হবে।

মন্ত্রী বলেন, মানি লন্ডারিং এবং সন্ত্রাসে অর্থায়ন এ দুটোই রোধ করতে হবে। প্রধানমন্ত্রী বলেই দিয়েছেন আমরা আর দুর্নীতি চাই না। মানি লন্ডারিংও একটা দুর্নীতি। আর দুর্নীতির অর্থই সন্ত্রাসে অর্থায়ন হয়। সুতরাং এ দু’ক্ষেত্রকেই না করতে হবে। এটা বাস্তবায়ন করার জন্য যেখানে মানি লন্ডারিংয়ের কিছু হয় এমন তথ্য থাকলেই বাস্তবায়নকারী সংস্থাকে দেয়া হবে। একই সাথে সেটা বাস্তবায়ন করতে হবে।

তিনি বলেন, এর আগে এ সংক্রান্ত কমিটির বৈঠক বছরে তিনটা হতো। এখন থেকে চারটা বৈঠক হবে। সেখানে পর্যালোচনা হবে বৈঠকের সিদ্ধান্তগুলো কতটা বাস্তবায়ন হলো।

জুমবাংলানিউজ/পিএম