অর্থনীতি-ব্যবসা আন্তর্জাতিক বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি

মাত্র এক মিনিটেই ইন্টারনেটে যা ঘটে যায়

বিজ্ঞান-প্রযুক্তি ডেস্ক : ১ মিনিট বা ৬০ সেকেন্ড খুব বেশি সময় নয়। কিন্তু ইন্টারনেট দুনিয়ায় ১ মিনিটের গুরুত্ব অনেক বেশি। ইন্টারনেট ব্যবহার করে প্রতি মিনিটে অসংখ্য কাজ সম্পন্ন হচ্ছে, যার প্রকৃত সংখ্যাটা জানলে চোখ কপালে ওঠার অবস্থা হবে আপনার। ইন্টারনেটে প্রতি মিনিটে যা কিছু ঘটছে, সেগুলো নিয়ে আয়োজনের আজ শেষ পর্ব—

টুইট

অভিজাত শ্রেণীর কাছে টুইটারের গ্রহণযোগ্যতা বাড়ছে। ফেসবুক ঘিরে নানা বিতর্ক বাড়তে থাকায় মানুষ এখন টুইটারের ওপর নির্ভরশীল হয়ে উঠছে। টুইটারের প্লাটফর্ম ব্যবহার করে প্রতি মিনিটে ৮৭ হাজার ৫০০ টুইট করা হচ্ছে। টুইটারের ব্যবহারকারীর তালিকায় সাধারণ মানুষের পাশাপাশি অসংখ্য বিখ্যাত রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব, সেলিব্রিটি, পেশাজীবী ও ক্রিড়াবিদ রয়েছেন।

টুইচ

লাইভ স্ট্রিমিং ভিডিও প্লাটফর্ম টুইচ। ইন্টারনেটের বিস্তারের ফলে তরুণ প্রজন্মের কাছে সেবাটি দিনকে দিন জনপ্রিয় হয়ে উঠছে। ২০১১ সালে চালু হওয়া এ প্লাটফর্মে এখন প্রতি মিনিটে ১০ লাখ ভিডিও দেখা হচ্ছে। টুইচের গেমিং স্ট্রিমিং সেবাও রয়েছে।

টিন্ডার

অবস্থানভিত্তিক সোস্যাল সার্চ মোবাইল অ্যাপ টিন্ডার, যা মূলত ডেটিং সাইট হিসেবে সর্বাধিক ব্যবহূত হয়। এখানে একজন ব্যবহারকারী অন্যকে লাইক কিংবা ডিজলাইক করতে পারেন এবং উভয় পক্ষ পরস্পরকে লাইক করলে পরস্পরের সঙ্গে চ্যাট করতে পারেন। সোয়াইপ, ম্যাচ ও চ্যাট এ তিন শব্দকে মূলমন্ত্র ধরে টিন্ডারের কার্যক্রম। অ্যাপটি ব্যবহার করে প্রতি মিনিটে ১৪ লাখ সোয়াইপ করা হয়।

অ্যামাজন ইকো

বৈশ্বিক স্মার্ট স্পিকারের বাজারে একচ্ছত্র আধিপত্য বিস্তার করে আছে অ্যামাজন ইকো। এর বেশ কয়েকটি প্রতিদ্বন্দ্বী ডিভাইস বাজারে এসেছে। তবে জনপ্রিয়তায় শ্রেষ্ঠত্ব ধরে রেখেছে অ্যামাজন ইকো। এরই মধ্যে তৃতীয় প্রজন্মের ইকো স্মার্ট স্পিকার বাজারে ছেড়েছে অ্যামাজন। এখন স্মার্ট স্পিকারের অনলাইন ক্রেতাদের মধ্যে প্রতি মিনিটে ১৮০টি ইকো ডিভাইস সরবরাহ করা হচ্ছে।

ই-মেইল

ইলেকট্রনিক ডিভাইস ব্যবহার করে মেসেজিং কিংবা ফাইল আদান-প্রদানের অন্যতম মাধ্যম হয়ে উঠেছে ই-মেইল। ইন্টারনেট সংযুক্ত ডিভাইসের মাধ্যমে এখন মানুষ দৈনন্দিনের অফিসসংশ্লিষ্ট কার্যক্রম পরিচালনা করতে পারছে। অবাক করার মতো হলেও সত্যি, প্রতি মিনিটে বিশ্বব্যাপী ১৮ কোটি ৮০ লাখ ই-মেইল পাঠানো হচ্ছে।

জিআইএফ

শর্ট লুপিং ভিডিও হলো জিআইএফ। জিআইএফ অনলাইনে যোগাযোগের সময় ভিন্ন মাত্রা যোগ করে। মূলত চ্যাটিংয়ের সময় মজা করার জন্য এ ধরনের শর্ট ভিডিও ব্যবহার করা হয়। মেসেঞ্জারের মতো চ্যাটিং সেবায় বার্তার সঙ্গে সংশ্লিষ্ট সংক্ষিপ্ত ভিডিও হিসেবে জিআইএফ পাঠানো যায়। এখন অনলাইন চ্যাটিংয়ের সময় প্রতি মিনিটে ৪৮ লাখ জিআইএফ ভিডিও পাঠানো হচ্ছে।

সূত্র: টাইমস অব ইন্ডিয়া

জুমবাংলানিউজ/পিএম