চট্টগ্রাম জাতীয়

মন্ত্রিপরিষদের তিন সদস্যকে নিয়ে চট্টগ্রামে উচ্ছ্বাস

চট্টগ্রাম অফিস :: একাদশ সংসদ নির্বাচনে বিজয়ী হয়ে সরকার গঠন করা আওয়ামী লীগের মন্ত্রিসভায় স্থান পাওয়া চট্টগ্রামের তিন নেতাকে ঘিরে উচ্ছ্বাস দেখাচ্ছেন দলীয় নেতা-কর্মী থেকে শুরু করে বিভিন্ন স্তরের মানুষ।

এই তিন নেতা হচ্ছেন- তথ্যমন্ত্রীর দায়িত্ব পাওয়া আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক ড. হাসান মাহমুদ, ভূমিমন্ত্রীর দায়িত্ব পাওয়া দলের নির্বাহী কমিটির সদস্য সাইফুজ্জামান চৌধুরী জাবেদ এবং শিক্ষা উপমন্ত্রীর দায়িত্ব পাওয়া সাংগঠনিক সম্পাদক ব্যারিস্টার মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেল।

দলীয় ফোরাম, একান্ত আড্ডা কিংবা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমের সর্বত্র চট্টগ্রামের এই নেতাদের ঘিরে চলছে নানা আলোচনা। বলা হচ্ছে নানা প্রত্যাশার কথাও।

নবম সংসদের মন্ত্রিসভায় বন ও পরিবেশ মন্ত্রীর দায়িত্বে ছিলেন ড. হাসান মাহমুদ। দশম সংসদের সরকারে অবশ্য মন্ত্রিসভার বাইরে ছিলেন তিনি। তবে আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক হিসেবে সবসময়ই সক্রিয় ছিলেন তিনি। দলের মুথপাত্র হিসেবে দক্ষতার পরিচয় দিয়েছিলেন। যার ফলে সরকারের অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ তথ্য মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব লাভ করেছেন এবার।

হাসান মাহমুদ তথ্য মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব গ্রহণের প্রতিক্রিয়ায় চট্টগ্রাম উত্তর জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক আবু তৈয়ব ফেসবুকে লিখেছেন, ‘আমরা মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে কৃতজ্ঞ’।

এবারের মন্ত্রিসভার অধিকাংশ সদস্যই প্রথমবারের মতো দায়িত্ব পেয়েছেন মন্ত্রণালয়ের। এর মধ্যে যে অল্প ক’জন বিগত মন্ত্রিপরিষদে ছিলেন, তাদের একজন ভূমিমন্ত্রী সাইফুজ্জামান চৌধুরী জাবেদ। বিগত মন্ত্রিপরিষদে ছিলেন একই মন্ত্রণালয়ের প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্বে। সাইফুজ্জামান জাবেদ হচ্ছেন আটের দশকে আওয়ামী লীগের দুঃসময়ের যোদ্ধা আখতারুজ্জামান চৌধুরী বাবুর ছেলে। দশম সংসদে চট্টগ্রাম-১২ আনোয়ারা আসন থেকে প্রথমবারের সদস্য নির্বাচিত হয়ে ঠাঁই পেয়েছেন সরকারে। একাদশ সংসদে নির্বাচিত হয়ে একই মন্ত্রণালয়ের পূর্ণমন্ত্রী। এই কারণে তাকে ঘিরে চট্টগ্রামবাসীর উচ্ছ্বাস-আনন্দ যেন একটু বেশিই।

সাইফুজ্জান জাবেদের পূর্ণমন্ত্রী হওয়ার সংবাদে চট্টগ্রামের সিনিয়র সাংবাদিক শামসুল ইসলাম ফেসবুকে লিখেছেন, ‘সুখবর, পূর্ণমন্ত্রী পাচ্ছে আনোয়ারাবাসী।’

সিনিয়র সাংবাদিক এজাজ মাহমুদ লিখেছেন, ‘আজ আমাদের বাঁধভাঙা আনন্দ; প্রিয় একজন যখন পূর্ণমন্ত্রী। নতুন মন্ত্রীসভার ভূমিমন্ত্রী- সৎ ও পরিচ্ছন্ন রাজনীতিবিদ সাইফুজ্জামান চৌধুরী জাবেদ। আপনাকে নিয়ে আমরা গর্ব করতে পারি।’

এবারের মন্ত্রিসভায় বয়সে একেবারেই তরুণ শিক্ষা উ্রপমন্ত্রী মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেলকে চট্টগ্রামের জন্য সেনসেশন বলা যায় ।

চট্টগ্রামবাসীর কাছে নবীন মন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদকের দায়িত্ব পালনকারী মহিবুল হাসান চৌধুরী নওফেলের আবেগময় পরিচয় হচ্ছে তিনি চট্টগ্রামের গণমানুষের নেতা প্রয়াত চট্টলবীর এ বি এম মহিউদ্দিন চৌধুরীর সন্তান।

মহিউদ্দিন চৌধুরীর সাজানো মাঠে ছেলে নওফেলের রাজনীতির হাতে-খড়ি হলেও ইতোমধ্যে নিজস্ব ধারার রাজনৈতিক সংস্কৃতির চর্চা করে যেমন চট্টগ্রামের সাধারণ মানুষের দৃষ্টি কেড়েছেন, তেমনি আস্থা অর্জন করেছেন দলের হাই কমান্ডেরও। যার ফল পেয়েছেন চট্টগ্রামের গুরুত্বপূর্ণ আসনে দলীয় মনোনয়ন লাভ করে। এই আসনে জয়লাভ করে অল্প বয়সে দায়িত্ব পেয়েছেন শিক্ষা উপমন্ত্রীর।

মহিউদ্দিন চৌধুরীর জীবদ্দশায় রাজনীতিতে আসেন তার ছেলে ব্যারিস্টার নওফেল। রাজনৈতিক আবহে বেড়ে ওঠা এই তরুণ রাজনীতিবিদ ইতোমধ্যে নিজস্ব একটি ধারা সৃষ্টি করতে সক্ষম হয়েছেন। বাবা মহিউদ্দিন চৌধুরীকে কেন্দ্র করে চট্টগ্রাম আওয়ামী লীগের একটি পৃথক বলয় সবসময় সক্রিয় ছিলো এবং এখনও আছে। মহিউদ্দিন চৌধুরীকে ঘিরে সক্রিয় থাকা এই বলয়টির এক ধরনের দূরত্ব ছিলো চট্টগ্রাম সিটির বর্তমান মেয়র আজম নাছিরের সাথে। তবে, বাবার রাজনৈতিক বিরোধের উত্তরাধিকার বহন করেননি নওফেল। এমনকি বাবার প্রতিপক্ষের সাথেও জড়াননি কোনও ধরনের বিরোধে।

নওফেলের মন্ত্রিপরিষদে ঠাঁই হওয়া প্রসঙ্গে চট্টগ্রামের আঞ্চলিক পত্রিকা দৈনিক সংবাদ প্রকাশ করেছে, ‘রাজনীতিতে পাঁচ বছরেই শীর্ষে নওফেল’ শিরোনামে। এই প্রতিবেদনে পত্রিকাটি বলছে, ২০১৩ সালের শেষের দিকে শুরু হওয়া রাজনীতির পাঠ এখন যেন পরিপূর্ণতা পেয়েছে। ২০১৯ সালের জানুয়ারিতে এসে ব্যারিস্টার নওফেল হয়েছেন বাংলাদেশ সরকারের উপমন্ত্রী। এর আগে ২০১৬ সালের ২৫ অক্টোবর অনুষ্ঠিত বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ২০তম জাতীয় সম্মেলনে সাংগঠনিক সম্পাদক ও একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে চট্টগ্রাম-৯ (কোতোয়ালী) আসনের সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। জীবদ্দশায় বড় ছেলে নওফেলের রাজনৈতিক পদে আসীন হওয়ার সাক্ষী হলেও সংসদ সদস্য ও মন্ত্রী হওয়ার সৌভাগ্য দেখে যেতে পারেননি ‘চট্টলবীর’ মহিউদ্দিন চৌধুরী। অনেকের মতে, বারবার পিতা এবিএম মহিউদ্দিন চৌধুরীর ত্যাগ ও বর্ণাঢ্য রাজনৈতিক ক্যারিয়ারের পুরস্কার জুটছে নওফেলের ভাগ্যে।

জুমবাংলানিউজ/এইচএমজেড