খেলাধুলা মতামত/বিশেষ লেখা/সাক্ষাৎকার

মন্ত্রিত্ব পেলে বিশ্বরেকর্ডের হ্যাট্রিক করবেন মাশরাফি

ফাইল ছবি

জুমবাংলা ডেস্ক : সাংসদ হিসেবে মাঠে নামা প্রথম অধিনায়ক, মন্ত্রী হিসাবে মাঠে নামা প্রথম ক্রিকেটার এবং বিশ্বকাপে মাঠে নামলেই তিনি হবেন সাংসদ হিসেবে বিশ্বকাপে অংশ নেওয়া প্রথম ক্রিকেটার। এই তিনটি রেকর্ডের সামনে দাঁড়িয়ে মাশরাফি বিন মর্তুজা।

বাংলাদেশ ক্রিকেট দলের অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজা সংসদ সদস্য হিসাবে গতকাল শপথ নিয়েছেন।  এবার না-কি তিনি মন্ত্রীও হতে চলেছেন, এ সংবাদ ঘুরপাক খাচ্ছে ঢাকার ক্রীড়াঙ্গণে। বিশেষ করে ক্রিকেট সংশ্লিষ্টরা মাশরাফিকে ক্রীড়ামন্ত্রী হিসাবে দেখতে চান। ২০১৪ সালের জাতীয় নির্বাচনে ফুটবলার আরিফ খান জয় সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছিলেন। তবে নির্বাচনের মাস কয়েক আগে তিনি খেলা থেকে অবসরে যান। পরে তাকে ক্রীড়া মন্ত্রণালয়ের উপমন্ত্রী দায়িত্ব দেয়া হয়। তারই ধারাবাহিকতায় এবার মাশরাফিকে যে কোনো মন্ত্রণালয়ের দায়িত্ব দেয়া হতে পারে বলে মনে করেন ক্রীড়াবিদরা।

যদি মাশরাফি মন্ত্রিত্ব পান তাহলে বিশ্বরেকর্ডের হ্যাটট্রিক গড়বেন। প্রথমত সাংসদ হিসেবে মাঠে নামা প্রথম অধিনায়ক, দ্বিতীয়ত মন্ত্রী হিসাবে মাঠে নামা প্রথম ক্রিকেটার ও অধিনায়ক সর্বশেষ আসন্ন বিশ্বকাপে মাঠে নামলেই তিনি হবেন বিশ্বকাপে অংশ নেওয়া প্রথম ক্রিকেটার। এভাবেই তিনটি রেকর্ড দিয়ে বিশ্বরেকর্ডের হ্যাটট্রিক হবে ক্যাপ্টেন ম্যাশের।
এ ব্যাপারে মাশরাফির সঙ্গে কথা হলে তিনি বলেন, এই মুহূর্তে আমার সব মনোযোগ ক্রিকেটকে ঘিরে। বিপিএল নিয়ে ব্যস্ত। ২০১৯ বিশ্বকাপের আগে ক্রিকেটের সঙ্গে কোনো আপস করবো না।

২০১৯ সালের জুনে ইংল্যান্ডে অনুষ্ঠিতব্য ক্রিকেটের বিশ্বমঞ্চে যদি পারফরম করতে পারেন, তাহলে ক্রিকেট ইতিহাসে তিনি হবেন বিশ্বকাপে যাওয়া প্রথম পার্লামেন্ট সদস্য। সংসদ সদস্য হয়ে অধিনায়কত্ব করার ক্ষেত্রেও ক্রিকেট বিশ্বে তিনি হবেন প্রথম। আর যদি তাকে মন্ত্রিসভায় নেয়া হয়, তাহলে আরেকটি বিরল ঘটনা জন্ম নেবে ইংল্যান্ড বিশ^কাপে।

২০১০ সালের এপ্রিলে শ্রীলঙ্কার ক্রিকেটার জয়সুরিয়া সে দেশের জাতীয় নির্বাচনে মাহেন্দ্র রাজা পাকসের দল ‘ইউএফপিএ’ থেকে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছিলেন। ২০১১ সালে তিনি সংসদ সদস্য হয়েও ইংল্যান্ড সফরে ওয়ানডে সিরিজ খেলেছেন।

এদিকে মাশরাফিকে নিয়ে বিসিবির সভাপতি নাজমুল হাসান পাপন বলেছেন, একটি দেশের সংসদ সদস্য হয়ে মাশরাফির  ক্রিকেট খেলাটা বিরাট বিষয়। আমার মনে হয়, ক্রিকেট ইতিহাসে এই প্রথমবারের মতো এটি হতে যাচ্ছে। আমার এটি জানা নেই বা কখনো শুনিনি যে, একজন পার্লামেন্ট সদস্য ক্রিকেট খেলছে মাঠে এবং অধিনায়কত্ব করছে। সুতরাং এটি পুরোপুরি নতুন হবে এবং আমি অনেক রোমাঞ্চিত এটি নিয়ে। সম্পাদনা : সালেহ্ বিপ্লব
-আমাদেরসময়.কম

জুমবাংলানিউজ/এসএস