খেলা-ধুলা

ভয়ংকর এক ক্রিকেটার আসছে বাংলাদেশ ক্রিকেট দলে, জেনে নিন কে এই টিপু সুলতান!

যুব বিশ্বকাপকে সামনে রেখে বাংলাদেশ অনূর্ধ্ব-১৯ দল ঘোষণা করা হয়েছে, এটা পুরানো খবর। তবে স্কোয়াড ঘোষণার পরপরই সাংবাদিকদের কপালে ভাঁজ ফেলেছে যে নামটি সেটি হচ্ছে, টিপু সুলতান!

কারণ এই নামটির সাথে বেশিরভাগ সাংবাদিকই পরিচিত নন। না তাকে যুবাদের কোন সিরিজে দেখা গেছে, না ছিলেন সদ্য সমাপ্ত যুব এশিয়া কাপের দলে। তাহলে কে এই টিপু সুলতান? যশোরের এই তরুণের সাথে আজ একান্তে কথা হয়। নিঃসংকোচে নিজের সব কথা খুলে বলেন। জানান তার ভাল লাগার কথা। শোনান তার উঠে আসার গল্প।

লাজুক চেহারায় এটাও জানান, ছোটবেলায় খুব একটা ভাল ছাত্র ছিলেন না। এজন্য খুব শাসনও করা হতো তাকে। তিনি বলেন, ‘আসলে যখন ছোট ছিলাম, তখন লেখা পড়া কম করতাম। এখানে ওখানে খেলতে যেতাম। বাসায় অনেক মার খেয়েছি। পড়াশুনা যেহেতু করি না। তারপরে আমার এক স্যার ছিল যে আমাকে খুব মারত।’

মজার ব্যাপার হলো, ওই মার দেয়া গৃহশিক্ষকের কথাতেই ক্রিকেটে পুরো মনোযোগ দেন টিপু সুলতান। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘স্যারই একদিন বাসায় বলেছিলেন। যেহেতু আমি খেলায় বেশি মনোযোগী, তাই আমাকে যেন খেলতে দেয়। তারপর বাসা থেকে খেলতে দিয়েছে। আস্তে আস্তে খেলা শুরু করি। সব জায়গায় ভাল খেলছি। তারপর একাডেমিতে ভর্তি হয়েছিলাম। সেখান থেকেও অনেক সাহায্য পেয়েছি। অনেক কিছু শিখেছি।’

কোন সিরিজ বা এশিয়া কাপ না খেলেও বিশ্বকাপের স্কোয়াডে থাকার রহস্য নিজেই ভাঙলেন এই বাঁহাতি স্পিনার। তিনি জানান, ‘আসলে পারফর্ম করেছি ঢাকা লিগে। ডিস্ট্রিক্ট লিগেও পারফর্ম করেছি। এ ছাড়া তারা হয়তো কিছু একটা ভেবেছেন। তাই হয়তো আমাকে নিয়েছেন।’

এদিকে নিজের গত কয়েক বছরের উল্লেখযোগ্য পারফরম্যান্স নিয়ে কথা বলতে গিয়ে তিনি বলেন, ‘প্রথম খেলেছি সেকেন্ড ডিভিশনে। তো সেখানে ১৪ ম্যাচে ৩১ টা উইকেট নিয়েছিলাম। প্রথম ম্যাচে ৫ উইকেট পেয়েছিলাম। ওই টিমটা ঐবার চ্যাম্পিয়ন হয়। পরে ফার্স্ট ডিভিশন খেলেছি ওই দলের হয়েই। সেবারও টপ উইকেট টেকার ছিলাম। সেবার ৩৪ টা পেয়েছিলাম ১৬ ম্যাচে। ডিস্ট্রিক্ট চ্যাম্পিয়নশিপের ফাইনালে তো ৫ উইকেট পেলাম। ১০ ওভারে ৫২ রান দিয়ে ৫ উইকেট নিয়েছিলাম। তারপরই ক্যাম্পে ডাক পেলাম।’

স্কোয়াডে থাকার বিষয়টা প্রথম টিভিতে দেখেছে টিপু। লাজুক হেসে সে কথাও জানালেন তিনি। তিনি বলেন, ‘ অনেক ভাল লেগেছে। আসমে প্রথমে এশিয়া কাপেও ছিলাম না। তারপরে হোম সিরিজেও ছিলাম না। ওয়ার্ল্ড কাপে আছি। খুব ভাল লাগছে। টিভিতে হেডলাইনে (স্ক্রলে) দেখেছি।

সেখান থেকে জানতে পেরেছি যে আমি আছি স্কোয়াডে।

নিজের লক্ষ্য নিয়ে বলতে গিয়ে তিনি বলেন, ‘লক্ষ্যটা হল, যেহেতু ওয়ার্ল্ড কাপে সুযোগ পেয়েছি, তো সেখানে অনেক ভাল করার ইচ্ছা আছে। এটাই আমার লক্ষ্য।’

বোলিংয়ের পাশাপাশি মিডল অর্ডারে ব্যাটিংটাও করেন টিপু। তবে বোলিংটাকেই বেশি প্রাধাণ্য দিচ্ছেন তিনি। এ নিয়ে তিনি বলেন, ‘আমার বোলিংটা আগে। তারপর ব্যাটিং। তবে ব্যাটিং নিয়েও কাজ করছি, যেন ভালো করতে পারি।