জাতীয় ময়মনসিংহ রাজনীতি স্লাইডার

ভাষাসৈনিক অধ্যক্ষ সৈয়দ আব্দুল হান্নান আর নেই

জুমবাংলা ডেস্ক : শেরপুরের সর্বজন শ্রদ্ধেয় ব্যক্তিত্ব, বিশিষ্ট শিক্ষাবিদ, শেরপুর সরকারি কলেজের সাবেক অধ্যক্ষ ভাষাসৈনিক সৈয়দ আব্দুল হান্নান আর নেই। খবর ইউএনবি’র।

মঙ্গলবার ভোর সাড়ে ৪টার দিকে রাজধানী ঢাকা সিটি হাসপাতালে ইন্তেকাল করেন তিনি (ইন্নালিল্লাহি ওয়া ইন্না ইলাহি রাজিউন)।

মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৮৭ বছর। স্ত্রী, দুই ছেলে, তিন মেয়েসহ অসংখ্য গুণগ্রাহী রেখে যান এই ভাষাসৈনিক।

পারিবারিক সূত্র জানায়, বিকাল সাড়ে চারটায় শেরপুর পৌর ঈদগাহ মাঠে নামাজে জানাযা শেষে শহরের মধ্যশেরি এলাকায় পারিবারিক কবরস্থানে তাকে সমাহিত করা হবে।

এদিকে তাঁর মৃত্যুতে সংসদ সদস্য আতিউর রহমান আতিক, জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান হুমায়ুন কবীর রুমান, পৌর মেয়র গোলাম মোহাম্মদ কিবরিয়া লিটন, সদর উপজেলা চেয়ারম্যান ছানুয়ার হোসেন ছানু বিভিন্ন সামাজিক-সাংস্কৃতিক ও রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দ গভীর শোক প্রকাশ করেছেন।

ভাষা সংগ্রামী ও প্রথিতযশা শিক্ষাবিদ হিসেবে সৈয়দ আব্দুল হান্নান শেরপুরের একজন সর্বজন শ্রদ্ধেয় ব্যক্তিত্ব। স্থানীয়ভাবে যিনি ‘হান্নান স্যার’ হিসেবে সমধিক পরিচিত। সৈয়দ আব্দুল হান্নান ১৯৩২ সালে ২৫ ডিসেম্বর শেরপুরে জন্ম গ্রহণ করেন। বাবা সৈয়দ আব্দুল হালিম, মা রাবেয়া খাতুন।

১৯৫২ সালে তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অনার্স প্রথম বর্ষের ছাত্র থাকা অবস্থায় ভাষা আন্দোলনে জড়িয়ে পড়েন। সেসময় বিশ্ববিদ্যালয়ে ভাষার দাবিতে মিছিল চলাকালে তিনি ও পরে তার বড় ভাই ছাত্রনেতা সৈয়দ আব্দুস সাত্তার গ্রেপ্তার হন।

১৯৫২ সালে বগুড়ার আজিজুল হক কলেজ থেকে তিনি আইএসসি পাশ করে ওই বছরই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হয়েছিলেন।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে তিনি ১৯৫৬ সালে ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিষয়ে এম এ মাস্টার্স এবং ১৯৬৪ সালে এলএলবি পাশ করেন।

তিনি ১৯৫৪ সালের যুক্তফ্রন্ট, ১৯৬৯ সালের গণঅভ্যুথান এবং ১৯৭১ সালের মহান মুক্তিযুদ্ধের একজন সংগঠক ছিলেন।

মুক্তিযুদ্ধ চলাকালে শেরপুরের বুদ্ধিজীবী ও মুক্তিযোদ্ধাদের নানা ভাবে সহায়তা করার অপরাধে তাকে ৩ বার গ্রেপ্তার করে প্রায় ৪ মাস জেলে রাখা হয়।

জুমবাংলানিউজ/এইচএম