খেলা-ধুলা

বয়কট পাত্তাই দিলেন না বিশ্ব একাদশকে

ভোটের মাধ্যমে কিছুদিন আগে সর্বকালের সেরা টেস্ট একাদশ বাছাই করে নেয় ক্রিকেটের প্রধান সংস্থা ইন্টারন্যাশনাল ক্রিকেট কাউন্সিল (আইসিসি)। তবে এ দলটিকে পছন্দ নয় ইংল্যান্ডের সাবেক ক্রিকেটার জিওফ বয়কটের। শুধু তাই নয়, একাদশটিকেই ‘হাস্যকর’ অভিহিত করে নিজের পছন্দের দলও ঘোষণা করেছেন ইংল্যান্ডের সাবেক এ অধিনায়ক। যে একাদশে নেই কোন ভারত বা পাকিস্তানের কোন খেলোয়াড়।

চেন্নাইয়ে চলছে ভারত ও ইংল্যান্ডের মধ্যকার পাঁচ ম্যাচ সিরিজের পঞ্চম ও শেষ টেস্ট। আর এই টেস্টের ধারাবিবরণী দিতে এখন ভারতেরই আছেন বয়কট। বিবিসি’র বিশেষজ্ঞ ধারাভাষ্যকার প্যানেলের সদস্যও তিনি। ধারাভাষ্য দেয়ার মাঝেই আইসিসির সর্বকালের সেরা টেস্ট একাদশ নিয়ে তুখোড় সমালোচনা করেছে তিনি। এরপর ভারতীয় পত্রিকা দ্য টেলিগ্রাফে ওই একাদশ নিয়ে কথা বলেন বয়কট। ওই একাদশটিকে হাস্যকর বলেই অভিহিত করলেন বয়কট, ‘এটিই কি সর্বকালের সেরা একাদশ? তুমি আমার সাথে মজা করছো। একাদশটি পুরোই হাস্যকর। আইসিসির অনলাইনে যারা সজাগ দৃষ্টি রাখে তারাই এটি নির্ধারণ করেছে এবং সকল রেকর্ড ও অর্জনকে অপমাণিত করা হয়েছে।’

কারা ছিলেন আইসিসির সর্বকালের সেরা একাদশে? একবার চোখ বুলানো যাক : বিরেন্দ্রার শেবাগ (ভারত), সুনীল গাভাস্কার (ভারত), ডন ব্রাডম্যান (অস্ট্রেলিয়া), সচিন টেন্ডুলকার (ভারত), ব্রায়ান লারা (ওয়েস্ট ইন্ডিজ), কপিল দেব (ভারত), এডাম গিলক্রিস্ট (অস্ট্রেলিয়া), শেন ওয়ার্ন (অস্ট্রেলিয়া), ওয়াসিম আকরাম (পাকিস্তান), কর্টলি অ্যামব্রোস (ওয়েস্ট ইন্ডিজ) ও গ্লেন ম্যাকগ্রা (অস্ট্রেলিয়া)। এই একাদশে ভারত ও অস্ট্রেলিয়ার চারজন করে, ওয়েস্ট ইন্ডিজের দু’জন ও পাকিস্তানের একজন।

আর এই একাদশটিতেই নিয়ে অনেক প্রশ্ন তুলেছেন বয়কট, ‘কেনো এটি সেরা একাদশ! অতীত খেলোয়াড়দের ব্যাপারে কোনো ধারণা বা জ্ঞান কিছুই নেই, তাই এমন একাদশ করা হয়েছে।’

এমন একাদশের কারণও বের করতে পারেন বয়কট, ‘এশিয়া থেকেই বেশিরভাগ ভোট পড়েছে, তাই এই হাস্যকর একাদশে পাঁচজনই ভারত ও পাকিস্তানের।’

অতীতের রেকর্ড বিবেচনায় না করেই এমন একাদশ দাঁড় করানো হয়েছে দাবি করে বয়কট বলেন, ‘আশির দশকের আগের সেরা খেলোয়াড়দের থেকে শুধুমাত্র ব্রাডম্যানকে নেয়া হয়েছে। আর বেশিরভাগ খেলোয়াড়ই এই জেনারেশনের। যাদের খেলা আমরা কিছুদিন আগে দেখেছি। তাই বলে তুমি অতীতের সব রেকর্ডের কথা ভুলে যাবে, অতীতকে ভুলে যাবে? গ্যারি সোবার্স-ভিভ রিচার্ডস-ম্যালকম মার্শালের মতো খেলোয়াড়দের জায়গা হবে না সেরা একাদশে?’

এতসব সমালোচনা করার পর বিরক্ত হয়েই নিজের সর্বকালের একাদশটিও ঘোষণা করে দেন বয়কট। তার পছন্দের সেরা একাদশটি এমন : জ্যাক হোবস (ইংল্যান্ড), লেন হাটন (ইংল্যান্ড), ডন ব্রাডম্যান (অস্ট্রেলিয়া), জিওর্জ হেডলি (ওয়েস্ট ইন্ডিজ), ভিভ রিচার্ডস (ওয়েস্ট ইন্ডিজ), গ্যারি সোবার্স (ওয়েস্ট ইন্ডিজ), অ্যালান নট (ইংল্যান্ড), সিডনি বার্নস (ইংল্যান্ড), ম্যালকম মার্শাল (ওয়েস্ট ইন্ডিজ), শেন ওয়ার্ন (অস্ট্রেলিয়া) ও ডেনিস লিলি (অস্ট্রেলিয়া)।

বয়কটের পছন্দের একাদশে ইংল্যান্ড ও ওয়েস্ট ইন্ডিজের চারজন করে এবং অস্ট্রেলিয়ার তিনজন। এখানে জায়গা হয়নি ভারত-পাকিস্তানের লিজেন্ডদের। এই একাদশে কপিল দেবের না থাকার ব্যাপারে নিজের ব্যাখাটা এভাবে দিয়েছেন বয়কট, ‘তুমি যদি সত্যি ক্রিকেট বুঝে থাকো, তবে সেরা অলরাউন্ডার হিসেবে কেন সোবার্সকে নেবে না?’

বয়কট আইসিসির একাদশ থেকে অ্যামব্রোস-আকরাম-ম্যাকগ্রাকে বাদ দিয়ে নিজেদের একাদশে নিয়েছেন লিলি-বার্নস-মার্শালকে। এ ব্যাপারে বয়কট বলেন, ‘আমাকে বলো, কে মার্শাল-লিলিকে একাদশ থেকে বাদ দিয়েছে। মার্শাল-লিলির রেকর্ড তারা জানে না!’

বয়কটের একাদশে জায়গা হয়নি টেস্ট ও ওয়ানডের সর্বোচ্চ রানের মালিক এবং আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে একশ’ সেঞ্চুরির মালিক ভারতের সাবেক মাস্টার ব্লাস্টার ব্যাটসম্যান সচিন টেন্ডুলকারের। তাকে বাদ দেয়ার ব্যাখাটা বেশ চালাকের সাথেই দিলেন বয়কট, ‘যে এখনো মাঝে মাঝে ক্রিকেট খেলে (ওয়ার্ন-টেন্ডুলকার ট্রফি), তাকে এই তালিকায় নেয়ার কোন যুক্তি নেই।’

উইকেটরক্ষক হিসেবে বয়কটের একাদশে সুযোগ হয়নি গিলক্রিস্টের। কারণ, হিসেবে বয়কট বলেন, ‘গিলক্রিস্টকে একাদশে নেয়া হয়েছে, এটা ভালো ছিলো। তবে আমার একাদশে নটকে নেবো আমি। কারণ, গিলক্রিস্টের চেয়েও ভালো ব্যাট করে নট। এ ছাড়া নট কিপিংও ভালো করে।’

ভক্তদের ভোটে সর্বকালের সেরা টেস্ট একাদশ নির্বাচিত করেছে আইসিসি। আর নিজের দেশের খেলোয়াড়দের বেশি প্রাধান্য দিতে গিয়ে নিজেই অনেক বড় বড় অর্জন সৃষ্টি করা খেলোয়াড়দের একাদশে রাখেননি ৭৬ বছর বয়সী বয়কট। টেন্ডুলকার-মুরালিধরন-ইমরান খান ছাড়াও আরো অনেকে। তাহলে তো রেকর্ড বইয়ের পাতা থেকে টেন্ডুলকার-মুরালি-ইমরানের রেকর্ডগুলো না রাখাই শ্রেয়। ভাগ্যিস, নিজের একাদশে নিজের নামটিই যোগ করে ফেলেননি ১০৮ টেস্টে ৮১১৪ রান ও ৩৬ ওয়ানডেতে ১০৮২ রান করা বয়কট।

ভিডিও:কেঁচো খুড়তে সাপ বেড়লো!ঠিক তেমনই ভাঙ্গা ডিমের উৎপতি খুঁজতে যেয়ে যা বেরিয়ে আসলো সেটা সবার কাছে ছিলো অকল্পনীয়!

Add Comment

Click here to post a comment