জাতীয় রাজনীতি

বেকুব না হলে কেউ আ.লীগ করে!

আওয়ামী লীগকে বুঝতে ড. কামালের কত সময় লেগেছে জানি না, কিন্তু আমার বুঝতে অতো সময় লাগেনি” বলে মন্তব্য করেছেন নাগরিক ঐক্যের আহ্বায়ক মাহমুদুর রহমান মান্না। আওয়ামী লীগে যোগ দেওয়াকে নিজের বোকামি বলেও মনে করছেন তিনি । মান্না বলেন, “নৌকায় (আওয়ামী লীগ) তো আমিও ছিলাম। ড. কামাল নৌকা থেকে নেমেছেন, সেই নৌকায় আমিও চড়েছি। বেকুব না হলে কি করে এরকম হয়।”

শনিবার জাতীয় প্রেসক্লাবে এক অনুষ্ঠানে নিজের অভিজ্ঞতার কথা তুলে ধরে এসব কথা বলেন তিনি।

তিনি বলেন “মুক্তিযুদ্ধের চেতনার কথা যখন আওয়ামী লীগ বলে, এই আওয়ামী লীগের কাছে মুক্তিযুদ্ধের কোনো মূ্ল্যবোধ নেই। আমার কাছে মাঝে মাঝে মনে হয়, আওয়ামী লীগের কোনো মূল্যবোধই নেই।“তা না হলে বলেন, ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারির নির্বাচন, এটা কোনো নির্বাচন? এর চাইতে রাজনীতির নামে ফোর-টোয়েন্টি আর কী হতে পারে? এবং সেটা করে দিব্যি চালিয়ে যাচ্ছেন, গর্বের সাথে কথা বলছেন, অনুশোচনাও তাদের নেই।”

আ স ম রবের উত্তরার বাসায় অনুষ্ঠানের বিষয়ে মান্না বলেন, “আ স ম আবদুর রবের বাসায় আমরা কয়েকজন নিরীহ মানুষ গেলাম। আমি নিরীহ না, আমি দেশদ্রোহী, সেনা বিদ্রোহে উস্কানি দিয়েছি। সুব্রত চৌধুরী, মাহী তো নিরীহ মানুষ। আমাদের মিটিং করতে দেয়নি বাসার মধ্যে।

“রব ভাই বললেন, আমার বাসায় দাওয়াত করেছি, উনাদেরকে চা খাওয়াব। উনার স্ত্রী বললেন, এতগুলো বড় বড় মানুষ এসেছেন, উনাদের ডিনার খাওয়াব। রান্না-বান্না করতেও তো সময় লাগবে। তারা(পুলিশ) বলল, এখনই যান। না খেয়ে যাব আমরা? শেষ পর্যন্ত রেগে গিয়ে রব ভাই বললেন, ‘সারারাত থাকব, যা পারেন করেন। সেহেরি খেয়ে যাবেন।”

গ্রেফতার হয়ে ২২ মাস কারাগারে থাকার কথাও বলেন মান্না। “২২ ঘণ্টা আমি নিখোঁজ ছিলাম, প্রতিটা মুহূর্তে আমার নিকটজনরা ভেবেছেন, বোধহয় এখনই মারা গেল। মানবিক দৃষ্টিকোণ থেকে দেখুন, এটা মানবতার কত বড় অপমান।”

গুম-খুনের কারণে বাংলাদেশ এখন ‘মৃত্যু উপত্যকায়’ পরিণত হয়েছে বলে দাবি করেন তিনি।