জাতীয় বরিশাল বিভাগীয় সংবাদ

বরিশালে সড়কের এই দশা কেন? জানলে অবাক হবেন

বরিশালের গৌরনদী উপজেলার মাহিলাড়া, সরিকল ও খাঞ্জাপুর ইউনিয়নের তিনটি স্থানে শুক্রবার গভীর রাতে পাকা সড়ক কেটে ফেলেছে অজ্ঞাত দুর্বৃত্তরা। এ সময় ২৫/৩০টি বোমা ও গুলির বিস্ফোরন ঘটে। ঘটনার সময় কিছু লোক ধানের শীষের পক্ষে বিভিন্ন শ্লোগান দেয়। আওয়ামীলীগের নেতা-কর্মীদের অভিযোগ, বিএনপির নেতা-কর্মীরা এ ঘটনা ঘটিয়েছে। তারা আওয়ামীলীগের নেতা-কর্মীদের ওপর হামলা চালিয়ে ২৫/৩০ জনকে আহত করেছে। এ ঘটনায় বিএনপির নেতা-কর্মীদের বিরুদ্ধে গৌরনদী মডেল থানায় মামলা দায়ের প্রস্তুতি চলছে।

আওয়ামী লীগ নেতা-কর্মী ও পুলিশ জানায়, শুক্রবার রাত আনুমানিক ১১টার দিকে গৌরনদী উপজেলার মাহিলাড়া ইউনিয়ন যুবদলের সাবেক সাধারন সম্পাদক সজল সরকারের বাড়ির সন্নিকটে মাহিলাড়া নলচিড়া সড়কের পাশে ৭/৮টি বোমার বিস্ফোরন ঘটে। এ সময় তারা সড়কের লালপোল এলাকায় সড়ক কেটে ফেলে। একই রাত আনুমানিক সাড়ে ১১টার দিকে সরিকল ইউনিয়নের হোসনাবাদ ষ্টিমারঘাট লুত্ফর রহমান হাওলাদারের বাড়ির সন্নিকটে (হোসনাবাদ বড় ব্রিজের পূর্ব পার্শ্বে) ১০/১২টি বোমা ও কয়েক রাউন্ড ফাকা গুলি ছোড়ে অজ্ঞাতনামা দূর্বৃত্তরা। এ সময় তারা ওই বাড়ির সামনের পাকা রাস্তা কেটে যোগাযোগ ব্যবস্থা বিচ্ছিন্ন করে দেয়। ওই রাতেই সাড়ে ১২টার দিকে খাঞ্জাপুর ইউনিয়নের মেদাকুল গ্রামের দ্বীনবন্ধু সাহার বাড়ির কাছে দীঘির পাড় নামক এলাকায় ৫/৭টি বোমার বিস্ফোরন ঘটে। এ সময় অজ্ঞাতনামা ব্যক্তিরা ইল্লা হতে দোনারকান্দি সড়কের দীঘির পাড় সড়ক কেটে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন করে।

উপজেলার সরকিল ইউনিয়নের উত্তর হোসনাবাদ গ্রামের লোকজন জানায়, এসব ঘটনায় এলাকার মানুষের মধ্যে এক ধরনের আতংক দেখা দিয়েছে। খাঞ্জাপুর ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান ও খাঞ্জাপুর ইউনিয়ন বিএনপির সভাপতি আকন সিদ্দিকুর রহমান বলেন, শনিবার সকালে হাটতে বের হলে রাস্তা কাটা দেখতে পাই। রাতে কে বা কারা, কি উদ্দেশ্যে রাস্তা কেটেছে তা বুঝে উঠতে পারিনি। তবে শরিকল ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি মেজবা উদ্দিন আকন ও উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা বিষয়ক সম্পাদক আনোয়ার হোসেন এ ঘটনার জন্য বিএনপি নেতা-কর্মীদের দায়ী করেছেন। গৌরনদী মডেল থানার পরিদর্শক (তদন্ত) মো. মাহাবুবুর রহমান বলেন, পুলিশ ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে আলামত সংগ্রহ করেছে। মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।

জুমবাংলানিউজ/ জিএলজি