জাতীয়

নিখোঁজ সিজারের প্রাক্তন স্ত্রীর আবেগঘন খোলা চিঠি

সন্ধান পাওয়া যায়নি ঢাকার বেসরকারি নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ড. মুবাশ্বার হাসান সিজারকে। গত ৭ নভেম্বর বিকাল থেকে নিখোঁজ রয়েছেন তিনি।

এতদিনেও সন্তানের খোঁজ না পেয়ে সিজারের বাবা মোতাহার হোসেন ভেঙে পড়েছেন৷ তবে এর পরও সিজারকে ফেরত পাওয়ার ব্যাপারে আশাবাদী তার পরিবার।

সিজারের কোন খোঁজ না পাওয়ায় প্রধানমন্ত্রী বরাবর তার প্রাক্তন স্ত্রী একটি খোলা চিঠি লিখেছেন।

‘নিখোঁজ সিজারকে ফিরিয়ে দিলে সে আর কোনোদিন ফেসবুক বা ব্লগে কিছু লিখবে না’, এমন নিশ্চয়তা দিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে পোস্ট করা আবেগঘন ওই চিঠিতে তিনি লিখেছেন: আমি চাই, আমার ছোট্ট মেয়ের বাবা মেয়ের কাছে ফিরে আসুক।

আবেগঘন খোলা চিঠিতে তিনি বলেন: ‘৭ই নভেম্বরের পর থেকে মোবাশ্বারের জন্যে অনেক লেখালেখি হচ্ছে, মানব-বন্ধন হচ্ছে। ওর বন্ধুরা ওকে ফেরত চায়, ওকে যারা গুম করেছে তাদের বিচার চায়। আমি শাস্তি বা বিচার চাই না। আমি শুধু চাই আমার ছোট্ট মেয়েটার বাবা মেয়ের কাছে ফিরে আসুক। ও শুধু একবার ফিরে আসুক, আমি কথা দিচ্ছি ও আর জীবনেও কোনো কিছু লিখবে না, ওর ফেইসবুক প্রোফাইল থাকবে না ওর ব্লগ থাকবে না। প্লিজ বিশ্বাস করেন।

আমাদের একটা মেয়ে আছে। ডিভোর্সের পর আমাদের কখনো দেখা বা কথা হয় নাই। মেয়ের পিতামাতা হিসাবে আমরা সিক্রোনাইজড ছিলাম। মেয়েটাকে আমি বলেছি তার বাবা বাইরে গেছে ৭ তারিখে পড়াশুনা করতে। ওর বাবা যেহেতু প্রায়ই বাইরে যায় তাই সে বেশি প্রশ্ন করেনি কিন্তু প্রচণ্ড অভিমান করেছে। কারণ এমন কখনো হয়নি যে ওর বাবা ওকে না জানিয়ে কোথাও গেছে। ও খুব অবাক হয়ে বলেছে, ‘কই, বাবা তো আমাকে বলে গেলো না’।

আমার মেয়ে জানে যে তার বাবা শুক্রবার তাকে খেলনা কিনতে নিয়ে যাবে কিন্তু বাবা তাকে না জানিয়ে বিদেশ যাবে এটা সে কিছুতেই মানতে পারছে না। ফুফুর সাথেও তার বেশ ভালো খাতির। বাবার উপর অভিমান করে সে ফুফুর সাথেও কথা বলে না এখন।

মেয়েটা জানে তার বাবা বাইরে থেকে খেলনা নিয়ে আসবে অনেক। নভেম্বরেই তার জন্মদিন। প্রতি বছর তার বাবা তার জন্যে একটা বার্থডে পার্টি করে আর আমি একটা করি। এবারও সে আমাকে জিজ্ঞেস করেছে, ‘আচ্ছা এবারও তো আমার ২ টা পার্টি হবে তাই না?’। বাবার সাথে খেলতে যাওয়া, মুভি দেখতে যাওয়ার খুব পাগল সে। আপনারা ইমোশন কতটুকু বুঝেন আমি জানি না, কিন্তু আমার মেয়ে বুঝে! এই মেয়েটাকে এভাবে মিথ্যা বলে আর কতদিন বুঝ দিয়ে রাখবো আমি?

আমার মেয়ের পছন্দের খেলনা My Little Pony। দুনিয়ার আর কোনো খেলনা ওকে টানে না। মোবাশ্বার যখনই বাইরে গেছে, খুঁজে খুঁজে ব্যাগ ভর্তি করে এই খেলনা নিয়ে এসেছে। আমার গোটা রুম এই খেলনা দিয়ে ভর্তি। আপনাদেরও নিশ্চয় বাচ্চা আছে, আপনাদের বাচ্চার কোন খেলনা পছন্দ? আপনারা দূরে গেলে সেই বাচ্চার কি অবস্থা হয়?

কার কি যায় আসে আমি জানি না কিন্তু মোবাশ্বারের বাবার গোটা দুনিয়া জুড়ে ছিল শুধু উনার ছেলে। উনাকে আমি যতটুকু চিনি, ছেলের অভাবে বেশিদিন সুস্থির থাকতে পারবেন না। ওর মেয়ে আর বাবার দিকে তাকিয়ে হলেও ওকে ফেরত আনার ব্যবস্থা করেন প্লিজ। দরকার হলে ও সারাজীবন বাসায় বসে থাকবে ওর বাবার কাছে। দরকার হলে ও চাকরি করবে না। তবুও ওর বাবা আর মেয়ের কাছে ওকে ফেরত দিন।’’