অপরাধ/দুর্নীতি

ফের রিমান্ডে সৎমেয়েকে ধর্ষণের মামলার আরমান

রাজধানীতে আট বছর ধরে সৎমেয়েকে ধর্ষণের অভিযোগে করা মামলায় আরমান হোসেন ওরফে সুমনকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য ফের দুই দিনের হেফাজতে পেয়েছে পুলিশ।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা পুলিশের কাউন্টার টেররিজম ইউনিটের সোশ্যাল মিডিয়া মনিটরিং টিমের পরিদর্শক মো. নাজমুল নিশাত জানান, দুই দিনের রিমান্ড শেষে ১৬ জুলাই রোববার সুমনকে আদালতে হাজির করে ১০ দিনের হেফাজতের আবেদন করা হয়। আবেদন শুনে ঢাকা মহানগর হাকিম সত্যব্রত শিকদার দুই দিনের রিমান্ডের আদেশ দেন।

এর আগে গত ১৩ জুলাই আসামি সুমনকে দুই দিনের রিমান্ডে পাঠান আদালত।

গত ১১ জুলাই মঙ্গলবার রাতে রাজধানীর রমনা থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন দমন আইনের ৯(১) ও তথ্য প্রযুক্তি আইনের ৫৭ ধারায় আরমান হোসেন সুমনের বিরুদ্ধে মামলা করেন এক তরুণী। ৩৮ বছর বয়সী সৎবাবার বিরুদ্ধে ২০ বছর বয়সী ওই তরুণীর অভিযোগ, তাকে গত আট বছর ধরে ধর্ষণ করা হচ্ছিল।

মঙ্গলবার রাতে রমনা থানায় মামলার পর পুলিশ বুধবার সুমনকে গ্রেফতার করে। গ্রেফতার আরমান একটি বেসরকারি টেলিভিশনের শব্দ প্রকৌশলী বলে পুলিশ জানতে পেরেছে।

ওই তরুণী মামলায় অভিযোগ করেছেন, সৎ বাবা সুমনের সঙ্গে সম্পর্কের কারণে তিনি একবার অন্তঃস্বত্বা হয়ে পড়েছিলেন। পরে একটি ক্লিনিকে নিয়ে গর্ভপাত ঘটানো হয়।

এজাহারের বরাত দিয়ে পুলিশ জানায়, এই তরুণীর বাবার সঙ্গে তার মায়ের ছাড়াছাড়ি হয়ে যাওয়ার পর ২০০৫ সালে সুমনের সথে তার মায়ের বিয়ে হয়। এর এক বছর পর সুমনের বাসায় থাকা শুরু করেন মামলার বাদী।

বাদীর অভিযোগ, ২০০৮ সালে যখন তার বয়স ১২ বছর তখন মোহাম্মদপুরের ভাড়া বাসায় তার মায়ের অনুপস্থিতিতে সুমন তাকে ধর্ষণ করে ছবি তুলে রাখে। পরে এই ছবি প্রকাশের ভয় দেখিয়ে বহুবার তাকে ধর্ষণ করা হয়।

অতিষ্ঠ হয়ে গত বছর বাসা ছেড়ে খালার বাসায় উঠেছিলেন বলে জানান ওই তরুণী। এরপর ওই তরুণীর বন্ধুর কাছে সুমন ওই সব ভিডিও পাঠান বলে মামলায় উল্লেখ করা হয়।