ঢাকা বিভাগীয় সংবাদ

`ফুটপাতে ব্যবসার পক্ষপাতিত্ব করি না, তবে মানুষের রুটি-রুজি কেড়ে নেয়া উচিত না`

ফুটপাতে ব্যবসার পক্ষপাতিত্ব করি না আমি। তবে ধর্মীয় দৃষ্টিকোণ থেকে মনে করি, মানুষের রুটি-রুজি কেড়ে নেয়া উচিত না। বললেন নারায়ণগঞ্জ-৪ আসনের সংসদ সদস্য শামীম ওসমান।

বৃহস্পতিবার দুপুরে নারায়ণগঞ্জ নগরীর ইসদাইর এলাকায় ওসমানী স্টেডিয়াম সংলগ্ন মাঠে জেলা প্রশাসন আয়োজিত তিনদিন ব্যাপী উন্নয়ন মেলার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এ কথা বলেন।

শামীম ওসমান বলেন, একটি বিশেষ শ্রেণির মানুষ এই হকারদের মিথ্যা স্বপ্ন দেখিয়ে তাদের নিয়ে রাজনীতি শুরু করেছে। অনশন করছে। কারণ ওই বিশেষ শ্রেণির মানুষ তাদেরই প্রেসক্রিপশন অনুযায়ী চলছে, যারা এই হকারদের উচ্ছেদ করেছে। উচ্ছেদের আগে অন্তত দুই মাস সময় দিলেও গরিব হকাররা হয়তো তাদের পুঁজি উঠিয়ে নিতে পারতো। তারা ক্ষতিগ্রস্ত হতো না।

গেলো ২৫ ডিসেম্বর স্থানীয় প্রশাসন নারায়ণগঞ্জের ফুটপাতের হকারদের উচ্ছেদের পর থেকে চাষাঢ়ায় শহীদ মিনারে হকাররা বিভিন্নভাবে প্রতিবাদ কর্মসূচী পালন করে আসছে। সেই প্রসঙ্গেই শামীম ওসমান এসব কথা বলেন।

এর আগে হকার পুনর্বাসন ইস্যুতে সিটি মেয়র সেলিনা হায়াৎ আইভী মন্তব্য করেন, ‘চার হাজার হকারের জন্য পাঁচ লাখ মানুষ জিম্মি থাকতে পারে না। ফুটপাতে নগরবাসী চলাচল করবে। সিটি করপোরেশনের জরিপ অনুযায়ী হকার সংখ্যা মাত্র ৬শ’, কিন্তু হকারদের দাবি চার হাজার আর শামীম ওসমানের বক্তব্য অনুযায়ী হকারের সংখ্যা ১০ হাজার। তিনি এত হকার কোথায় পেলেন আমি জানি না। তিনি বলেন, হকারের পেটে লাথি মারি নাই। আমিই প্রথম হকারদের পুনর্বাসনের জন্য হকার্স মার্কেট নির্মাণ করেছি। হকাররা সেই দোকান বিক্রি করে ফের রাস্তায় এসেছে। তিনি বলেন, শামীম ওসমান সাহেবের যদি হকারদের জন্য এতোই মায়া কান্না থাকে তবে তিনি হকারদের জন্য দুই-একটি মার্কেট করে দিলেই পারেন। যিনি ছেলের বিয়েতে ২৫ কোটি টাকা খরচ করেন তার জন্য হকারদের জন্য দুই-চারটি মার্কেট নির্মাণ করে দেয়া অস্বাভাবিক কিছু না।’

আইভীর এ মন্তব্যের জবাবে শামীম ওসমান আজ বলেন, আমি নাকি ছেলের বিয়েতে ২৫ কোটি টাকা খরচ করেছি। ২৫ কোটি টাকা কতগুলি টাকায় হয় সেটা আমি জানি না। তারা বলে, গরিব হকারদের জন্য কিছু করছি না। তারা যেন দোয়া করে ২৫ কোটি নয়, ২৫০০ কোটি টাকা যেন খরচ করতে পারি গরিব জনগণের জন্য।

তিনি আরো বলেন, আমরা যখন উন্নয়ন মেলা করছি ঠিক সেই সময় চাষাঢ়া শহীদ মিনারে হকার্সরা অনশন করছে। উন্নয়ন হচ্ছে মানুষের ভাগ্যের পরিবর্তন করা। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাংলার মানুষের ভাগ্য পরিবর্তনের জন্য দিন রাত পরিশ্রম করে যাচ্ছেন।

এ সময় শামীম ওসমান বর্তমান সরকারের আমলে নারায়ণগঞ্জের বিভিন্ন উন্নয়নের কথাও তুলে ধরেন। এ সরকারের আমলেই নারায়ণগঞ্জে একটি মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল ও একটি পূর্ণাঙ্গ বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠার পরিকল্পনার কথা জানান।

জেলা প্রশাসক রাব্বি মিয়ার সভাপতিত্বে উন্নয়ন মেলার উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন পরিকল্পনা মন্ত্রণালয়ের পরিসংখ্যান ও তথ্য ব্যবস্থাপনা বিভাগের সচিব কে এম মোজাম্মেল হক, স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব (সুরক্ষা ও সেবা) শাহ মো. ইমদাদুল হক, জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আবদুল হাই, সাধারণ সম্পাদক আবু হাসনাত মো. শহীদ বাদল প্রমুখ।

জুমবাংলানিউজ/আর