জাতীয়

গর্ভবতী স্ত্রীকে রাস্তায় ফেলে পালাল স্বামী, তারপর করুণ পরিণতি

নারায়ণগঞ্জের আড়াইহাজার উপজেলায় গর্ভবতী এক নারীকে রাস্তা থেকে তুলে নিয়ে মৃত্যুর হাত রক্ষা করলেন স্থানীয় স্বাস্থ্য কর্মকর্তা। রাস্তায় সন্তান প্রসবের পর নিজেকে বাঁচাতে যখন হালিমা বেগম (৩৬) মাটিতে ছটফট করছিলেন ঠিক তখনি উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রের পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. হাবিব ইসমাঈল ভুইয়া তাকে রাস্তা থেকে তুলে এনে হাসপাতালে ভর্তি করেন।

তার পাষণ্ড স্বামী তাকে স্বাস্থ্য কেন্দ্রের ভবনের পেছনে ফেলে রেখে যায় বলে অভিযোগ করেন হালিমা।

মঙ্গলবার সকালে আড়াইহাজার উপজেলার স্বাস্থ্য কেন্দ্রের ভবনের পেছন থেকে হালিমা বেগমকে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরে তার অবস্থা আশঙ্কাজনক হলে তাকে ঢাকা মেডিকেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয় বলে ডা. হাবিব ইসমাঈল ভুইয়া নিশ্চিত করেছেন।

এদিকে হালিমা বেগম রাস্তায় সন্তান প্রসব করলেও তিনি তার সন্তানকে খুঁজে পাচ্ছেন না বলে জানিয়েছেন। তবে যেখান থেকে হালিমা বেগমকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নেয়া হয় তার একশ গজ দূর থেকে পুলিশ এক নবজাতকের লাশ উদ্ধার করেছে।

নবজাতকের লাশটিই হালিমা বেগমের সন্তান কীনা এ নিয়ে এলাকাবাসীর মাঝে নানা ধরনের প্রশ্ন উঠেছে। এছাড়া এলাকার অনেকেই বলছে হালিমা বেগম মানসিক ভারসাম্যহীন। কিন্তু উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রের পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. হাবিব ইসমাঈল ভুইয়া বলছে তিনি মানসিক ভারসাম্যহীন নয়। তাকে নির্যাতন করে মানসিক ভারসাম্যহীনে পরিণত করা হয়েছে।

এ ঘটনায় আড়াইহাজার থানা পুলিশের উপ-পরিদর্শক (এসআই) মজিবুর রহমান জানান, উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রের একটু দূর থেকে নবজাতকের লাশ উদ্ধার করা হয়। নবজাতকের পরিচয় পাওয়া না গেলেও উপজেলা স্বাস্থ্য কেন্দ্রের কর্তৃপক্ষ বলছে নবজাতকটির মা হালিমা বেগম। তবে ঘটনার তদন্ত করে বিস্তারিত জানার চেষ্টা চলছে।