খেলা-ধুলা

পাকিস্তান সুপার লিগে যে কারণে ডাক পাননি ব্যাটিং দানব গেইল

গেইল মানেই প্রতিপক্ষ বোলারের হাঁটুতে কাঁপন। বলা যায়, বিশ্বসেরা টি-২০ স্পেশালিস্টদের অন্যতম ওয়েস্টইন্ডিজের এই মারকুটে ওপেনার। কিন্তু তার পরও পাকিস্তান সুপার লিগে (পিএসএল) এই ব্যাটিং দানবের প্রতি আগ্রহ দেখায়নি কোনো ফ্রাঞ্চাইজি। ফলে আসরটির তৃতীয় সংস্করণে অবিক্রিতই থেকে গেছেন তিনি।

লাহোরে অনুষ্ঠিত প্লেয়ার ড্রাফটে আগের পাঁচটি দলের সঙ্গে এবারে যোগ হয় মুলতান সুলতান।

৩৮ বছর বয়সী গেইলকে না নেওয়ার পর হইচই পড়ে যায় ক্রিকেট পাড়ায়। কিন্তু কেন তার প্রতি আগ্রহ দেখায়নি কেউ? এমনটি জানিয়েছেন নাম প্রকাশ না করা এক ফ্র্যাঞ্চাইজির মালিক, ‘গেইল আর আগের ফর্মে নেই। তাই তাকে আমরা দলে নেইনি।’

বিশ্বজুড়ে টি-টোয়েন্টির ফেরিওয়ালা গেইল অবশ্য তার ক্যারিয়ারে পিএসএলের হয়ে দাপট দেখাতে ব্যর্থ হয়েছেন। আগের দুটি আসরে খেললেও চিরচেনা গেইলকে পাওয়া যায়নি। ২০১৬ সালে প্রথম আসরে লাহোর কালান্দার্সের হয়ে পাঁচ ম্যাচে ২০.৬০ গড়ে ১০৩ রান করেন। পরের আসরে করাচি কিংসের হয়ে ৯ ম্যাচে ১৭.৭৭ গড়ে ১৬০ রান করেন।

এদিকে ৫০১ জন ক্রিকেটার নিয়ে পিএসএলের প্লেয়ার ড্রাফট অনুষ্ঠিত হয়। বাংলাদেশিদের মধ্যে বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসানকে ধরে রেখেছে তার আগের দল পেশোয়ার জালমি। আর মাহমুদুল্লাহ রিয়াদকে ধরে রেখেছে কোয়েটা গ্ল্যাডিয়েটর্স। দুই জনই দ্বিতীয় সর্বোচ্চ ক্যাটাগরি ‘ডায়মন্ড’ ক্যাটাগরিতে ছিলেন। ডায়মন্ড ক্যাটাগরির খেলোয়াড়দের মূল্য ৮০ হাজার মার্কিন ডলার।

সাকিব-রিয়াদকে ধরে রাখলেও ড্যাশিং ওপেনার তামিম ইকবালকে নিলামের জন্য ছেড়ে দিয়েছিল পেশোয়ার। তবে, নিলামে আবার সেই পেশোয়ার তামিমকে বেছে নেয়। এদিকে, মোস্তাফিজকে নিয়েছে লাহোর কালান্দার্স।