অপরাধ/দুর্নীতি চট্টগ্রাম

নির্বাচনকে ঘিরে নাশকতার পরিকল্পনা, রাঙামাটিতে আটক ২

রাঙামাটি প্রতিনিধি : রাঙামাটি শহরে সেনাবাহিনী ও পুলিশের যৌথ অভিযানের সময় সন্তু লারমার সশস্ত্র গ্রুপের দুজন সদস্যকে আটক করা হয়েছে।  তারা হলেন-আলোময় চাকমা (৩৯) এবং আনন্দ কুমার চাকমা (৪১)।  বুধবার (৫নভেম্বর) রাতে শহরের তবলছড়ি এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করা হয়।

আটক আলোময় বাঘাইছড়ি উপজেলার মেদিনাপুর গ্রামের অশোক কুমার চাকমার ছেলে এবং আনন্দ রাঙামাটি সদরের মগবান ইউনিয়নের যৌথ খামার পাড়ার মন্টু লাল চাকমার ছেলে।

যৌথ বাহিনী সূত্রে জানানো হয়, আলোময় এবং আনন্দ জেএসএস সশস্ত্র গ্রুপের সদস্য। চলতি বছরের শুরু থেকে বছরের শেষ সময় পর্যন্ত ৭৩জন পাহাড়ি যুবককে জেএসএস’র সশস্ত্র গ্রুপের হয়ে কাজ করতে ভারতের মিজোরাম প্রদেশের দেবাছড়ায় এলাকায় প্রশিক্ষণ নেওয়ার জন্য প্রেরণ করে তারা। পরবর্তী সময়ে আসন্ন নির্বাচনকে সামনে রেখে নাশকতা সৃষ্টির লক্ষ্যে আরও ১৩৭ জনকে প্রশিক্ষণে পাঠানোর পরিকল্পনার অংশ হিসাবে রাঙামাটি শহরে যুবক রিক্রুটের কাজ করছিলো।

ইতোমধ্যে ৮ সদস্যের একটি যুবক টিমকে তারা প্রশিক্ষণের জন্য সংগ্রহ করেছিল। অপারেশনকালে ঐ আস্তানা থেকে অমর শান্তি চাকমা ও অমর বিকাশ চাকমা নামে প্রশিক্ষণের উদ্দেশ্যে আনা দুই যুবককে আটক করা হয়। কিন্তু ক্যাম্পে থাকা অপর ৬ সদস্য পালিয়ে যেতে সক্ষম হয়। আটক যুবকদের সাথে কথা বলে তাদের নির্দোষ ও জোর করে আটকে রাখা হয়েছে বলে মনে হওয়ায় তাদেরকে তাদের অভিভাবকের হাতে তুলে দেয়া হয়।

আটককৃত আলোময় চাকমা ও আনন্দ কুমার চাকমা প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে জানান, তারা জেএসএস’র চিফ কালেক্টর গতি চাকমা ওরফে গতি বাবু এবং সশস্ত্র গ্রুপ কমান্ডার আদি বাবু চাকমার নির্দেশে পার্বত্যঞ্চলের বিভিন্ন স্থানে নাশকতা করার জন্য তাদের নির্দেশ প্রদান করে। আর সে নির্দেশ মোতাবেক তারা এ কর্মকাণ্ড পরিচালনা করছে।

রাঙামাটি কোতয়ালী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) জাহিদুল হক রণি ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে  জানান- আটককৃতদের বিরুদ্ধে মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।

জুমবাংলানিউজ/এইচএম