বরিশাল বিভাগীয় সংবাদ

নববধূকে ধর্ষণকারী বানারীপাড়ার ছাত্রলীগ সভাপতি বহিষ্কার

স্বামীকে আটকে রেখে নববধূকে ধর্ষণকারী বানারীপাড়া বানারীপাড়া উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি সুমন মোল্লাকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। রোববার দিবাগত রাত দশটার দিকে নগরীর কালীবাড়ি রোড এলাকা থেকে সুমন মোল্লাকে গ্রেফতার করে বানারীপাড়া থানা ও জেলা গোয়েন্দা ডিবি পুলিশ। এ ঘটনায় তাকে দল থেকে বহিষ্কার করেছে জেলা ছাত্রলীগ।
ধর্ষিতার স্বামী টেম্পু চালক সেলিম মিয়া জানান, ১৫ দিন আগে চট্টগ্রামের লক্ষ্মীপুরের রামগতি উপজেলার পূর্ব সরসীতা গ্রামের এক মেয়েকে দ্বিতীয় বিয়ে করে তিনি বানারীপাড়ায় নিয়ে আসেন। তার দ্বিতীয় বিবাহ প্রথম স্ত্রী মেনে না নেয়ায় নববধূকে নিয়ে গত শনিবার রাতে তিনি (সেলিম) উপজেলার বেতাল গ্রামের নানা বাড়ি শামসুল হক হাওলাদারের বাড়িতে যান।

প্রথম স্ত্রীর পক্ষালম্বন করে উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি সুমন মোল্লা তার সহযোগীদের নিয়ে ওই বাড়িতে যান। এসময় নববধূকে সেলিম আনুষ্ঠানিকভাবে বিয়ে করেননি বলে অভিযোগ তুলে এক লাখ টাকা চাঁদা দাবি করেন।
সেলিম আরো জানান, তাদের দাবিকৃত চাঁদার টাকা দিতে অস্বীকার করায় রাতেই জোরপূর্বক তাকে ধরে নিয়ে বেতাল ক্লাবের একটি কক্ষে আটক করে রেখে তার নববিবাহিতা স্ত্রীকে স্থানীয় আনোয়ার বেগমের বাসায় নিয়ে রাতভর ধর্ষণ করা হয়। রোববার সকালে এলাকাবাসী সেলিমকে ক্লাবের কক্ষ থেকে উদ্ধার করে। পরে তারা থানা পুলিশের শরণাপন্ন হন।বানারীপাড়া থানার ওসি সাজ্জাদ হোসেন জানান, গোপন সংবাদের ভিত্তিতে নগরীর কালীবাড়ি রোড থেকে ছাত্রলীগ নেতা সুমনকে গ্রেফতার করার পর সোমবার দুপুরে আদালতের মাধ্যমে জেলহাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।
বরিশাল বানারীপাড়া উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি সুমন মোল্লাকে দলীয় পদ থেকে বহিঃস্কার করা হয়েছে। সোমবার দুপুরে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন জেলা ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রাজ্জাক।
তিনি জানান, এক জরুরি সভার মাধ্যমে দলীয় শৃঙ্খলা ভঙ্গের দায়ে বানারীপাড়া উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি সুমন মোল্লাকে বহিঃস্কারের জন্য কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের কাছে সুপারিশ করে জেলা ছাত্রলীগ। সেই পরিপ্রেক্ষিতে সোমবার সকালে কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগ থেকে সুমন মোল্লাকে বহিঃস্কারের বিষয়টি নিশ্চিত করা হয়।
সূত্রমতে, বানারীপাড়ার সলিয়াবাকপুর ইউনিয়নের বেতাল গ্রামে স্বামীকে আটকে রেখে এক নববধূকে ধর্ষণের ঘটনায় বানারীপাড়া উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি সুমন মোল্লার বিরুদ্ধে রোববার বিকেলে একটি মামলা দায়ের করা হয়। ওইদিন রাতেই পুলিশ নগরীর কালীবাড়ি এলাকা থেকে সুমন মোল্লাকে গ্রেফতার করে। এজন্য ছাত্রলীগের ইমেজ রক্ষায় সুমন মোল্লাকে বহিঃস্কার করা হয়েছে।