মতামত/বিশেষ লেখা/সাক্ষাৎকার

‘ধর্ষণ কি খুনের চেয়েও বড় কিছু?’

লখনৌ আর কাশ্মীরে দুটি শিশু ধর্ষণের ঘটনা কাঁপিয়ে দিয়েছে গোটা ভারতকে। প্রতিবাদ হচ্ছে বাংলাদেশ থেকেও। আসিফা ধর্ষণ ও হত্যার ঘটনায় জড়িয়ে পড়েছে মন্দিরের পুরোহিত থেকে শুরু করে প্রশাসন এবং রাজনৈতিক নেতাও। এই তুলকালামের মাঝেই একের পর এক টুইট করছিলেন নারীবাদী লেখিকা তসলিমা নাসরিন। তার সর্বশেষ টুইটটি নিয়ে বেশ আলোচনা চলছে সোশ্যাল সাইটে।

বাংলাদেশ থেকে নির্বাসিত এই লেখিকা টুইটারে লিখেছেন, ‘মেয়েরা যখন ধর্ষণ এবং খুনের শিকার হয় তখন সবাই বলে থাকে, মেয়েটিকে ধর্ষণ করা হয়েছে। ধর্ষকের শাস্তি চাই। তাকে ফাঁসিতে ঝুলানো হোক। কিংবা ধর্ষণ থামাও। কিন্তু কেউ তো বলে না যে, মেয়েটিকে হত্যা করা হয়েছে। খুনীদের শাস্তি চাই!’

শেষে তিনি লিখেছেন, ‘ধর্ষণ কি খুনের চেয়েও বড় কিছু? নাকি ধর্ষিতা একজন নারী বলেই ধর্ষণটাকে হাইলাইট করা হয়? আপনিও কি মনে করেন তার যোনি তার জীবনের চেয়ে মূল্যবান?’

উল্লেখ্য, ভারত-নিয়ন্ত্রিত কাশ্মীরে যাযাবর মুসলিম সম্প্রদায় গুজার গোত্রের ৮ বছর বয়সী শিশু আসিফা বানুকে অপহরণ করে কিছু হিন্দু ব্যক্তি। টানা কয়েকদিন এই শিশুটিকে নেশাজাতীয় দ্রব্য খাইয়ে আটকে রাখা হয় একটি পরিত্যক্ত স্থানে। দেশটির মিডিয়ার মতে, মোট ৮ জন প্রতিদিন পালাক্রমে ধর্ষণ করে এই শিশুটিকে। এমনকী হত্যার আগেও তাকে ধর্ষণ করে এক পুলিশ কর্মকর্তা। ঝোপের মাঝে পরে থাকা আসিফার মৃতদেহের মাথা পাথর দিয়ে থেঁতলে দেওয়া হয়েছিল।

taslima

আসিফার মৃত্যুর ঘটনায় পুলিশ ৮ জন পুরুষকে গ্রেপ্তার করেছে। গ্রেপ্তারকৃতদের মধ্যে রয়েছেন একজন অবসরপ্রাপ্ত সরকারী কর্মকর্তা, চার জন পুলিশ কর্মকর্তা ও এক কিশোর। তবে এদেরকে আটকের ঘটনায় জম্মুতে বিক্ষোভ শুরু হয়ে যায়। জম্মুর আদালতে পুলিশ চার্জশিট দাখিল করতে গেলে সেখানকার আইনজীবীদের বাধায় ব্যর্থ হন। ক্ষমতাসীন বিজেপির দুই মন্ত্রী অভিযুক্তদের পক্ষে আয়োজিত সমাবেশে যোগ দেন।

জুমবাংলানিউজ/আর