আন্তর্জাতিক

ধর্ষণ এবং অত্যাচারের ক্ষেত্রেও গর্ভপাত নিষিদ্ধের উদ্যোগ!

আন্তর্জাতিক ডেস্ক : মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সুপ্রিম কোর্টের দেয়া গর্ভপাত বিষয়ক এক ঐতিহাসিক সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে এবার ঐকবদ্ধ হয়েছে দেশটির ১৪টি রাজ্য৷ ‘রো ভার্সেস ওয়েড’ নামে পরিচিত সেই সিদ্ধান্তে মার্কিন সংবিধান অনুসারে গর্ভপাতের বিষয়ে একজন নারীকে কার্যত স্বাধীনভাবে সিদ্ধান্ত নেয়ার সুযোগ দেয়া হয়েছিল৷

মার্কিন রাজ্য আলাবামার রিপাবলিকান-সংখ্যাগরিষ্ঠ সেনেট মঙ্গলবার প্রায় সব ধরনের গর্ভপাত বাতিলের একটি বিল পাস করেছে৷ এমনকি ধর্ষণ এবং অজাচারেরক্ষেত্রেও গর্ভপাতের সুযোগ বাতিল করা হয়েছে এই রিটে৷ এই বিল যদি রিপাবলিকান গভর্নর কে আইভি অনুমোদন করেন, তাহলে তা হবে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে গর্ভপাত সংক্রান্ত সবচেয়ে কঠোর আইন৷ গভর্নর অবশ্য বিলটি অনুমোদন করবেন কিনা সেই বিষয়ে এখনো কিছু জানাননি৷ অনুমোদন করার ছয় মাসের মধ্যে তা প্রয়োগ করা যাবে৷

গর্ভপাত সংক্রান্ত এই বিল নিয়ে দীর্ঘ আইনি লড়াইয়েরও সম্ভাবনা রয়েছে৷ রিপাবলিকান আইনপ্রণেতারা এবং গর্ভপাতবিরোধী অ্যাক্টিভিস্টরা আশা করছেন যে, নতুন এই আইন ১৯৭৩ সালে সুপ্রিম কোর্টের দেয়া গর্ভপাত বিষয়ক ঐতিহাসিক ‘রো ভার্সেস ওয়েড’ সিদ্ধান্তকে বাতিলের পথ তৈরি করবে৷

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প সুপ্রিমকোর্টের দুই বিচারপতির নাম ঘোষণা করার বিষয়টি গর্ভপাতবিরোধীদের আশাবাদী করে তুলেছে৷ বিলটির সমর্থক রিপাবলিকান স্টেট সেনেটর ক্লাইড চামব্লিস স্বীকার করেছেন যে, এসব করা হয়েছে যাতে সরাসরি সুপ্রিম কোর্টে গিয়ে ‘রো ভার্সেস ওয়েড’-কে চ্যালেঞ্জ করা যায়৷

প্রসঙ্গত, আলাবামার সেনেটে পাস হওয়া গর্ভপাতবিরোধী বিলটিতে গর্ভপাত ঘটালে ৯৯ বছর পর্যন্ত কারাদণ্ডের শাস্তি রাখা হয়েছে৷ তবে যে নারীর গর্ভপাত করা হবে, তাঁর ক্ষেত্রে এই শাস্তি প্রযোজ্য হবে না৷ বিলটিতে শুধুমাত্র গর্ভধারণের কারণে কোনো নারী যদি স্বাস্থ্যগতভাবে চরম ঝুঁকিতে পরেন, সেক্ষেত্রে গর্ভপাত করার সুযোগ রাখা হয়েছে৷

উল্লেখ্য, গর্ভপাতের বিপক্ষে যে রিপাবলিকান আইনপ্রণেতারা ভোট দিয়েছেন, তাঁদের মধ্যে কোনো নারী ছিলেন না৷ আর ডেমোক্র্যাটরা এই বিলের বিরোধিতা করে বলেছেন যে, শুধুমাত্র রাজনৈতিক স্বার্থ হাসিলের উদ্দেশ্যে এমন বিল করা হয়েছে, যেখানে নারীর স্বার্থকে বিবেচনায় নেয়া হয়নি৷

সূত্র : ডয়চে ভেলে

জুমবাংলানিউজ/এএসএমওআই