অন্যরকম খবর আন্তর্জাতিক

দেশজুড়ে আতঙ্কের বিষয় যখন উকুন !

জুমবাংলা ডেস্ক: উকুনের কথা তো সবাই জানেন। বিশেষ করে মেয়েরা উকুনের সাথে বেশি পরিচিত। এই উকুনের কারণে অনেকে অতিষ্ট হয়ে প্রায় অস্ত্বির হয়ে উঠে। অনেককে দেখা যায় এই উকুনের ভয়ে মাথার চুল ফেলে দিতে। আজকে জুমবাংলার পাঠকদের জন্য উকুনের কী পরিমাণ ভয়াবহ পরিণত হতে পারে সে বিষয়ে ছোট্ট একটি উদাহারণ তুলে ধরবো। সেই অনেক আগের কথা মিশরে  একসময় রীতিমত আতঁঙ্কের বিষয় হিসেবে দাড়িয়ে ছিল উকুন।

প্রাচীন মিশরের নানা ছবি এবং অন্যান্য এলাকার মানুষদের বর্ণনা থেকে তৎকালীন মিশরের এক অদ্ভুত ফ্যাশন সম্পর্কে জানা যায়। জানা যায় মিশরীয়দের কাছে খুব দ্রুত ছড়িয়ে পড়িয়েছিল এই ফ্যাশন।  সেসব জায়গায় উল্লেখ আছে, মিশরের অনেক মানুষই নাকি মাথা টাক করে রাখতো। শুরুতে বাইরের লোকজন বুঝতে পারতো না, কেন এই টাক মাথাকে মিশরের লোকজন সৌন্দর্যচর্চার অংশ হিসেবে বেছে নিল। কিন্তু  বাস্তবে তা ছিলনা। এই টাক ফ্যাশনের জন্য নয়। অবশেষে প্রত্নতত্ত্ববিদদের গবেষণা থেকে বেরিয়ে আসলো এক ভয়ঙ্কর তথ্য।

সেইসময় মিশরের সবদিকে উকুন ছড়িয়ে পড়েছিল ভয়াবহ মাত্রায়। চারদিকে এক আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়লো। এসব উকুন সবচেয়ে বেশি ছিল মৃত মিশরীয় শাসকদের কবরে। অনেকে মনে করেছিলেন সেখান থেকেই সেগুলোর উৎপত্তি ঘটেছিল। যদিও তখন  তাদের কাছে উকুন প্রতিরোধের  অনেক ওষুধ ছিল। তবে এইসব ওষুধ তেমন কাজের ছিলনা।

তাই কোন উপায় না  দেখে নারী-পুরুষ নির্বিশেষে সবাই মাথার চুলগুলো ফেলে দিয়েছিল। কেউ শুধু তাই নয় অনেকে এইসব উকুনের  ভয়ে গায়ের লোমগুলো পর্যন্ত শেভ করে ফেলেছিল! সত্যি বড়ই অবাক করার মত উকুনের ভয়ে মাথার টাক করার ব্যাপারটা। যদিও আজকাল উকুন তাড়ানো তেমন কষ্টের ব্যাপারনা।