চট্টগ্রাম জাতীয় বিভাগীয় সংবাদ

তিন কন্যা শিশু ও স্ত্রীকে রেখে রোহিঙ্গা নারীকে বিয়ে করে আশ্রয়কেন্দ্রে বাংলাদেশি যুবক

তিন কন্যা শিশু ও স্ত্রীকে রেখে রোহিঙ্গা নারীকে বিয়ে করে ঘর ছেড়েছেন বান্দরবানের নূর আলম (৪০)।

রোহিঙ্গা স্ত্রীর সঙ্গে এখন শরণার্থী শিবিরেই নতুন সংসার বেঁধেছেন তিনি।

নূর আলম বান্দরবান জেলা শহরের ইসলামপুরের বাসিন্দা আবুল কাশেমের ছেলে। পেশায় একজন গাড়িচালক।

জানা গেছে, গাড়ি চালানোর সুবাদে বাংলাদেশি যুবক নূর আলমের পরিচয় হয় মিয়ানমারের রোহিঙ্গা নারী সেনোয়ারার সঙ্গে। এর পর তাকে বিয়ে করে নতুন ঘর বাঁধেন।

এর পর যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন রেখেছেন তিন কন্যাসন্তান ও প্রথম স্ত্রী খালেদা বেগমের সঙ্গে।

নূর আলমের প্রথম স্ত্রী খালেদা বেগম বলেন, আমার তিন মেয়ে। বড় মেয়ে সায়রা আকতার সোসিনা ক্লাস নাইনে পড়ে। মেজ মেয়ে নুসরাত জাহান তানিয়া পড়ে তৃতীয় শ্রেণিতে। ছোট মেয়ে আসমা আকতারও তৃতীয় শ্রেণিতে পড়ছে। তাদের ভবিষ্যৎ এখন কি হবে?

তিনি বলেন, দেড় মাস ধরে স্বামী (নূর আলম) তাদের কোনো খোঁজখবর নিচ্ছেন না। রোহিঙ্গা নারীকে বিয়ে করে বাংলাদেশি হয়েও স্বামী নূর আলম আশ্রয় নিয়েছেন বালুখালী রোহিঙ্গা ক্যাম্পে।

খালেদা বলেন, আমার তিন মেয়ে বাবার জন্য খুব কান্নাকাটি করে। মেজ মেয়েকে নিয়ে আমি এখন চট্টগ্রামে বাবার বাড়িতে অবস্থান করছি। ছোট ও বড় মেয়ে দাদার বাড়িতে থাকে। আমার স্বামীকে ফিরে পেতে আমি সরকারের কাছে সহযোগিতা চাই।