খেলা-ধুলা

টাইগাররা হেরে গেল প্রস্তুতি ম্যাচে

হার দিয়ে শুরু হলো টাইগারদের নিউজিল্যান্ড মিশন। একমাত্র প্রস্ততি ম্যাচে প্রায় পূর্ণশক্তির দল নিয়ে খেলেও ডাকওয়ার্থ-লুইস পদ্ধতিতে কিউই একাদশের কাছে ৩ উইকেটে হেরে গেল মাশরাফি বিন মুর্তাজার দল।

 

বৃষ্টিবিঘ্নিত ম্যাচে ৪৩ ওভার খেলা নির্দিষ্ট করে দেওয়া হয়েছিল। বাংলাদেশের দেওয়া ২৪৬ রানের টার্গেট ৮ বল হাতে রেখেই পেরিয়ে গেলে নিউজিল্যান্ডের তারকাবিহীন দল।

এই সিরিজে সাকিব আল হাসান আর মুস্তাফিজুর রহমানকে নিয়েই বেশি চিন্তায় ছিল কিউইরা। ‘কাটার মাস্টার’ খ্যাত মুস্তাফিজ দীর্ঘ ৬ মাস পর কোনো আন্তর্জাতিক দলের বিরুদ্ধে বল করতে নামলেন। যথারীতি শুরুতেই তুলে নিলেন উইকেট। কিন্তু এরপর ঘুরে দাঁড়ায় নিউজিল্যান্ড একাদশ।

 

বেকহাম ওভালে অনুষ্ঠিত ম্যাচে টসে জিতে ব্যাট করার সিদ্ধান্ত নেয় বাংলাদেশ। এর আগে বৃষ্টির কারণে ম্যাচ আধাঘণ্টা দেরিতে শুরু হয়। এরপর আবারও বৃষ্টির আগমন ঘটলে ম্যাটি ৪৩ ওভারে পরিণত হয়। নির্ধারিত ৪৩ ওভারে ৮ উইকেটে ২৪৫ রান সংগ্রহ করে টাইগাররা।

 

দলীয় ৭ রানেই বিদায় নেন ড্যাশিং ওপেনার তামিম ইকবাল। এরপর ৫৫ রানের জুটি গড়েন আরেক ওপেনার ইমরুল কায়েস এবং ওয়ান ডাউনে নামা সৌম্য সরকার। ফর্মহীনতায় ভুগতে থাকা এই তরুণ ওপেনারের ব্যাটে অনেকদিন পর দেখা যায় রানের ঝলক। ৪৭ বলে ৪ বাউন্ডারিতে তিনি তৃতীয় সর্বোচ্চ ৪০ রান করেন। ইমরুল কায়েস ৩৬ রান করে হ্যাম্পটনের বলে প্যাভিলিয়নে ফিরেন।

 

দলীয় ৯৬ রানের মাথায় সৌম্য ফিরে গেলে সাকিব-মাহমুদ উল্লাহ ৫৯ রানের জুটি গড়েন। সাকিবের ইনিংসটি বেশি বড় হয়নি। তিনি ২৩ রান করে আউট হয়ে যান। কিন্ত নির্ভরতার প্রতীক মাহমুদ উল্লাহ ৪৬ বলে ২ বাউন্ডারি এবং ১ ওভার বাউন্ডারিতে ৪৩ রান করে রিটায়ার্ড হার্ট হয়ে মাঠ ছাড়েন। টাইগারদের ইনিংসে সর্বোচ্চ রান করেন মুশফিকুর রহিম। তিনি ৪১ বলে ২ বাউন্ডারি এবং ১ ওভার বাউন্ডারিতে ৪৫ রান করেন। নিজেকে মেলে ধরতে পারেননি সাব্বিরও। তিনি ১১ রান করে আউট হন। শেষ দিকে অধিনায়ক মাশরাফির ১৯ বলে অপরাজিত ২১ রানে লড়াই করার মত স্কোর পায় টাইগাররা।

 

২৪৬ রানের টার্গেটে ব্যাট করতে নেমে শুরুতেই বিপদে পড়ে নিউজিল্যান্ড। তৃতীয় ওভারে মুস্তাফিজুর রহমানের কাটার বুঝতে না পেরে উইকেট কিপার মুশফিকুর রহিমের হাতে ক্যাচ দিয়ে ফিরে যান রায়ান ডাফি। এই ধাক্কা বাংলাদেশের জন্য ভালো কিছুর ইঙ্গিত দিয়েছিল। কিন্তু বেন স্মিথ ও ভরত পপলির ব্যাটে ঘুরে দাঁড়ায় স্বাগতিকরা। দুজনের দায়িত্বশীল ব্যাটিং কিউই একাদশকে ম্যাচের নিয়ন্ত্রণ এনে দিয়েছে। এরপর বেন স্মিথকে (৫০) প্যাভিলিয়নে ফেরত পাঠিয়ে এই জুটি ভাঙেন কিউইদের অপর ‘দুশ্চিন্তা’ সাকিব আল হাসান।

 

স্মিথের বিদায়ের পর দলীয় ৯৪ থেকে ১০৮ রানের মধ্যে ৩ উইকেট হারিয়ে বসলে ম্যাচ বাংলাদেশের দিকে হেলে পড়ে। কিন্তু দলের হাল ধরেন বেন হর্ন। ৫৩ বলে অপরাজিত ৬০ রান করে দলকে জয়ের বন্দরে নিয়ে যান তিনি। এ ছাড়া নিউজিল্যান্ডের হয়ে ভরত পপিল ৪৫ এবং ব্রেট হ্যাম্পটন ২৯ রান করেন।

বাংলাদেশের হয়ে ৩ উইকেট নেন বিশ্বের অন্যতম সেরা অল-রাউন্ডার সাকিব আল হাসান। ২ উইকেট নেন কাটার মাস্টার মুস্তাফিজুর রহমান এবং ২ ওভারে ১৪ রান দিয়ে ১ উইকেট নেন মাহমুদ উল্লাহ রিয়াদ। তাসকিন, মেহেদী মিরাজ, রুবেল হোসেন, তানবীর হায়দার এবং অধিনায়ক মাশরাফি উইকেট-শূন্য থাকেন।

ভিডিওঃ শাহরুখের সঙ্গে ‘লায়লা ও লায়লা’গানে সানির বাজিমাত (ভিডিও)

Add Comment

Click here to post a comment