আন্তর্জাতিক গসিপ

পৃথিবীকে থেকে হারিয়েছে যে তিন সম্পদ

জুমবাংলা ডেস্ক: স্বয়ং পৃথিবীই চিরস্থায়ী নয়। আর এই পৃথিবীর সবকিছুর স্থায়িত্বই যে নড়বড়ে তাতো আর বলার অপেক্ষা রাখে না। তাছাড়া পৃথিবীর মাঝে ভিনগ্রহের প্রাণির কাল্পনিক বিচরণের মিথস্ক্রিয়া কতরকম কল্পকাহিনীই না মনে জন্ম দেয়। জানা গেছে পৃথিবী থেকে একটি সোনার শহরসহ তিনটি জিনিস হারিয়ে গেছে। আর এসব জিনিস হারিয়ে যাওয়ার রহস্য নিয়েও মনে আরো অনেক কল্পরহস্যের জন্ম দেয় অজানাকে জানার লক্ষ্যে।

সোনাভর্তি শহর

ইনকা সভ্যতার মানুষ ইউরোপীয়ানদের ভয়ে কখনও নিজেদের ধনসম্পদ নিয়ে শান্তিতে থাকতে পারেনি। তাই সম্পদ লুকোতে তারা আশ্রয় নিয়েছিল পাইতিতি নামের এক শহরে। আর সেখানে সোনার গুদাম বানিয়ে ফেলেছিল তারা। কিন্তু সময়ের স্রোতে ইনকা সভ্যতা হারিয়ে গেলে মুছে যায় সেই সোনাভর্তি শহরের চিহ্ন। শহরটির সন্ধানে এখনও পেরুতে অভিযান চালান অনুসন্ধানীরা।

 

ভিক্টোরিয়ার সংসদীয় দণ্ড

সংসদীয় এই দণ্ড ছিল স্পিকার এবং অস্ট্রেলিয়ার ভিক্টোরিয়ার মানুষদের সাংবিধানিক অধিকারের প্রতীক। ১৮৯১ সালের ৯ অক্টোবর হঠাৎ উধাও হয়ে যায় দণ্ডটি। সংসদীয় প্রকৌশলী থমাস জেফরিকে সেদিন দৌঁড়ে পালাতে দেখা যায়। সে সময় তার হাতে ছিল একটি বড় থলে। পরবর্তী সময়ে তার ঘরে অনুসন্ধান করা হয়। কিন্তু প্রমাণের অভাবে জেলে যেতে হয়নি জেফরিকে।

 

পাতিয়ালা নেকলেস

এটি একটি বহুমূল্য নেকলেস যেটা ২ হাজার ৯৩০টি হীরার সমন্বয়ে তৈরি করা হয়েছিলো যার ভিতরে পৃথিবীর সপ্তম বৃহত্তম হীরা, ৪২৮ ক্যারেটের ‘দি বিয়ারস’ ছিল। কিছু হীরা পরে পুনরুদ্ধার করা হয়েছিলো। এই নেকলেসটি তৈরি করেছিলেন হাউজ অফ কার্টিয়ার নামে একটি কোম্পানি ১৯২৮ সালে পাতিয়ালার ভূপতি সিং ও পরবর্তী শাসনকারী মহারাজার জন্য।

১৯৪৮ সালে হারটি সর্বশেষ দেখা যায় যাদাবিন্দ্র সিংয়ের গলায়। এরপর ৫০ বছর পর লন্ডনে আবার দেখা যায় হারটি। কিন্তু তিন কোটি ডলার সমমূল্যের হীরাটিকে আর কখনও খুঁজে পাওয়া যায়নি।

জুমবাংলানিউজ/এএসএমওআই