খুলনা জাতীয় বিভাগীয় সংবাদ

‘ছাত্রলীগ নেতা শাহীর সাথে আমার মেয়ের বিয়ে হয়নি’

যশোর জেলা ছাত্রলীগের নবনির্বাচিত সভাপতি রওশন ইকবাল শাহীর সাথে ইসরাত আরা নাজনীন বিপাশার বিয়ের কাবিননামা ভুয়া দাবি করেছেন ওই মেয়ের বাবা এহসানুল কবির সাগর।

শনিবার প্রেসক্লাব যশোর মিলনায়তনে সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ দাবি করেন।

সংবাদ সম্মেলনে সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে বিপাশার বাবা এহসানুল কবির সাগর বলেন, কাবিননামাটি ভুয়া। আমার চার মেয়ে। একজনেরও বিয়ে হয়নি। দুই মেয়ে ঢাকায় থাকে। আর যে কাবিননামা নিয়ে আলোচনা হচ্ছে। সেটিতে ইসরাত বিপাশার পিতার নাম সাগর উদ্দিন লেখা। কিন্তু আমার নাম এহসানুল কবির সাগর। মেয়ের নাম ইসরাত আরা নাজনীন বিপাশা। যা জাতীয় পরিচয়পত্র ও সনদপত্রে রয়েছে।

লিখিত বক্তব্যে সাগর আরো বলেন, ‘স্থানীয় পত্রিকায় প্রকাশিত সংবাদ ও কিছু লোক আমার বাড়ি যাচ্ছে। এরপর জানতে পারি মেয়ের বিয়ে সংক্রান্ত বিষয়। যা আমার এবং মেয়ের মান সম্মানের ব্যাপার। তাই আমি আপনাদের মাধ্যমে প্রধানমন্ত্রীর কাছে বিচার আশা করছি। এই রকম অপবাদ আর কারো না হয়।

তিনি বলেন- ইসরাত আরা নাজনীন বিপাশা সরকারি এমএম কলেজে লেখাপড়া অবস্থায় রওশন ইকবাল শাহীর সঙ্গে তার সম্পর্ক ছিল। কিন্তু তিনি রাজি না হওয়ায় বিয়ে হয়নি।

উলে­খ্য, গত ১০জুলাই যশোর জেলা ছাত্রলীগের সম্মেলনের দ্বিতীয় অধিবেশনে কাউন্সিলরদের ভোটে সভাপতি পদে রওশন ইকবাল শাহী ১০৪ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হন। এই সম্মেলনের পর একটি পক্ষ অভিযোগ তোলে নবনির্বাচিত সভাপতি রওশন ইকবাল শাহী বিবাহিত।

ছাত্রলীগের গঠনতন্ত্র অনুযায়ী বিবাহিতরা ছাত্রলীগের নেতৃত্বে আসতে পারে না। ওই পক্ষটি এই অভিযোগের সপক্ষে একটি কাবিননামাও কেন্দ্রে জমা দেয়। কথিত ওই কাবিননামা অনুযায়ী, যশোর সদর উপজেলার দাইতলা ফতেপুর এলাকার সাগর উদ্দিনের মেয়ে ইসরাত বিপাশার সাথে ২০১৩ সালের ২৩ মার্চ রওশন ইকবাল শাহীর বিয়ে হয়। তবে ছাত্রলীগ সভাপতি রওশন ইকবাল শাহী দাবি করেন, কথিত ওই কাবিনটি ভুয়া। তিনি বিবাহিত নন।