slider জাতীয়

চিকুনগুনিয়ার ভেষজ দাওয়াই

চিকুনগুনিয়া জ্বরে দেহের তাপমাত্রা ১০৫ ডিগ্রি পর্যন্ত উঠে যায়। জ্বরের সঙ্গে হাত পা ও কোমরের অস্থিসন্ধিতে তীব্র ব্যথা, হাঁটাচলা করতে অসুবিধা, মাথাব্যথা, চোখ জ্বালা, গায়ে লাল লাল দানার মতো র‌্যাশ, বমি বমি ভাব দেখা দেয়।

♦ দুটি কাগজিলেবুর রস এক গ্লাস আখের গুড়ের শরবতে মিশিয়ে সকালে ও সন্ধ্যায় পান করলে চোখ জ্বালা ও বমি বমি ভাব দূর হবে।

♦ ছোট আনারস কুচি করে কেটে ব্লেন্ড করে সামান্য গোল মরিচ ও বিট লবণের গুঁড়া মিশিয়ে পান করলে জ্বরে আরাম পাবেন এবং রুচি বাড়বে।

♦ জাম্বুরা ব্লেন্ড করে রস ছেঁকে বিট লবণ ও গোল মরিচের গুঁড়া মিশিয়ে পান করলে জ্বর কমবে।

♦ তুলসী পাতার রস চার চা চামচ মধুর সঙ্গে মিশিয়ে দুবার চেটে খেলে ঠাণ্ডার কষ্ট কমবে।

♦ বাঙ্গি বীজ গুঁড়া পাঁচ গ্রাম, শসা বীজ গুঁড়া পাঁচ গ্রাম একত্রে ১২ ঘণ্টা ভিজিয়ে এরপর পাটায় পিষে গুলে দিনে দুবার পান করলে ব্যথা কমবে এবং আরাম পাওয়া যাবে।

♦ আফসানতীন পাঁচ গ্রাম দুই কাপ পানিতে ভিজিয়ে ১২ ঘণ্টা পর জ্বাল দিয়ে ছেঁকে সকালে ও সন্ধ্যায় পান করলে শরীরে ওঠা র‌্যাশ কমে যাবে।

♦ নিমের কচি পাতা পাঁচ গ্রাম সঙ্গে পাঁচটি গোলমরিচ মিশিয়ে পাটায় বেটে সকালে ও সন্ধ্যায় পান করলে পা ও কোমড়ে ব্যথায় আরাম পাওয়া যাবে।

♦ গুলঞ্চ লতা পাঁচ গ্রাম ছেঁচে রস করে সকালে ও সন্ধ্যায় খালি পেটে পান করলে জ্বর ও পায়ের ব্যথায় উপকার হবে।

♦ নাটাকরঞ্জ বীজের শাঁস তিন গ্রাম, গোলমরিচ পাঁচটি একত্রে পাটায় পিষে সকাল-সন্ধ্যা খেলে জ্বর ও ব্যথায় আরাম পাওয়া যাবে।

♦ জৈন পাঁচ গ্রাম, বাসক পাতা পাঁচ গ্রাম একত্রে পাটায় পিষে সকালে ও সন্ধ্যায় খেলে জ্বর, কোমর ও পা ব্যথায় আরাম হবে।

♦ চিরতা পাঁচ গ্রাম, আনীসুন পাঁচ গ্রাম একত্রে তিন কাপ গরম পানিতে ১২ ঘণ্টা ভিজিয়ে জ্বাল দিয়ে অর্ধেক হলে ছেঁকে হালকা গরম অবস্থায় সকালে ও পান করতে হবে। এতে চিকুনগুনিয়ায় সহ ভাইরাস জ্বর দ্রুত সেরে যাবে।



আজকের জনপ্রিয় খবরঃ

গুরুত্বপূর্ণ অ্যাপ:

  1. বুখারী শরীফ Android App: Download করে প্রতিদিন ২টি হাদিস পড়ুন।
  2. পুলিশ ও RAB এর ফোন নম্বর অ্যাপটি ডাউনলোড করে আপনার ফোনে সংগ্রহ করে রাখুন।
  3. প্রতিদিন আজকের দিনের ইতিহাস পড়ুন Android App থেকে। Download করুন