অর্থনীতি-ব্যবসা জাতীয়

চালের দামে মন্দা

বিজনেস ডেস্ক : এশিয়ার বাজারে চালের দামে মন্দাভাব বজায় রয়েছে। এ সময় ভারতের বাজারে চালের রফতানি মূল্য আগের সপ্তাহের তুলনায় টনে ৩ ডলার কমে গেছে। তবে ভিয়েতনামের বাজারে স্থিতিশীল থাকলেও গত সপ্তাহে থাইল্যান্ডের বাজারে চালের রফতানি মূল্য আগের তুলনায় কিছুটা বেড়েছে।

ভারত বিশ্বের শীর্ষ চাল রফতানিকারক দেশ। সর্বশেষ সপ্তাহে দেশটির বাজারে রফতানিযোগ্য ৫ শতাংশ ভাঙা চাল টনপ্রতি ৩৮৭-৩৯০ ডলারে বিক্রি হয়েছে। আগের সপ্তাহে দেশটিতে প্রতি টন রফতানিযোগ্য চাল ৩৯০-৩৯৩ ডলারে বিক্রি হয়েছিল। সেই হিসাবে এক সপ্তাহের ব্যবধানে ভারতের বাজারে চালের দাম টনপ্রতি ৩ ডলার কমেছে।

দেশটির অন্ধ্রপ্রদেশের রফতানিকারকরা জানান, ভারত থেকে আন্তর্জাতিক বাজারে চালের রফতানি চাহিদা অন্যান্য বছরের তুলনায় কম রয়েছে। এর প্রভাব পড়েছে বাজারে। মাস দুয়েক আগেও দেশটির বাজারে রফতানিযোগ্য ৫ শতাংশ ভাঙা চালের দাম ছিল টনপ্রতি ৪০০ ডলারের বেশি। বর্তমানে চাহিদায় মন্দাভাবের জের ধরে খাদ্যপণ্যটির রফতানি মূল্য টনপ্রতি ৩৯০ ডলারের নিচে নেমে এসেছে।

বিশ্বের দ্বিতীয় শীর্ষ চাল রফতানিকারক দেশ থাইল্যান্ড। সর্বশেষ সপ্তাহে দেশটির বাজারে ফ্রি অন বোর্ড (এফওবি) চুক্তিতে রফতানিযোগ্য ৫ শতাংশ ভাঙা চালের দাম দাঁড়িয়েছে টনপ্রতি ৪০৫-৪১০ ডলার। এর আগের সপ্তাহে থাই চালের রফতানি মূল্য ছিল টনপ্রতি ৩৯৫-৩৯৬ ডলার। সেই হিসাবে এক সপ্তাহের দেশটিতে চালের রফতানি মূল্য টনে ১৪ ডলার বেড়েছে।

তবে আগের সপ্তাহের তুলনায় বাড়লেও বর্তমানে থাইল্যান্ডের বাজারে অন্যান্য বছরের তুলনায় বেশ কম দামে চাল বিক্রি হচ্ছে বলে জানান খাতসংশ্লিষ্টরা। চাহিদা কমতির দিকে থাকায় বছরের শুরু থেকে দেশটির বাজারে চালের রফতানি মূল্য তুলনামূলক কম রয়েছে বলে মনে করছেন তারা। তবে সরবরাহ কমে আসায় সাম্প্রতিক সময়ে দাম বাড়তে শুরু করেছে থাই চালের। অন্যদিকে ভিয়েতনামে চালের রফতানি মূল্য টনপ্রতি ৩৬০ ডলারে অপরিবর্তিত রয়েছে।

খবর : বিজনেস রেকর্ডার

জুমবাংলানিউজ/পিএম