জাতীয় রাজনীতি

খালেদা জিয়ার জামিনে সরকারের হাত আছে কাদেরের কথায় প্রমাণিত : রিজভী

জুমবাংলা ডেস্ক : কারাবন্দি বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার জামিনে সরকারের হাত আছে, সেটি আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের কথায় প্রমাণিত হয়েছে বলে দাবি করেছে বিএনপি।

আজ বুধবার (১৯জুন) নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে দলের যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী এ দাবি করেন।

রিজভী বলেন, গতকাল (মঙ্গলবার) উচ্চ আদালত কথিত মানহানির অভিযোগে করা বানোয়াট দুই মামলায় দেশনেত্রী খালেদা জিয়াকে ছয় মাসের জামিন দিয়েছেন। কারণ এ দুটি ভুয়া মামলা সরকারি দলের যে ব্যক্তি করেছেন, তিনি মামলাবাজ ও মানুষের বিরুদ্ধে বানোয়াট মামলা করেই তিনি আনন্দ পান। তাকে সবাই চেনে ও জানে। যে অভিযোগে মামলা করা হয়েছে, তা সম্পূর্ণরূপে অসত্য এবং মামলারই যোগ্য না। তা কেবল প্রতিহিংসামূলক। তার প্রমাণ হলো- গতকাল আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ‘বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়াকে আদালত জামিন দিলে সে ক্ষেত্রে সরকার কোনো হস্তক্ষেপ করবে না।’

বিএনপির এ নেতা বলেন, কিছুদিন আগে লন্ডন সফরকালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দেয়া বক্তব্য আর ওবায়দুল কাদেরের এ কথায় বোঝা যায়, জামিনযোগ্য হলেও সরকারের বাধার কারণেই খালেদা জিয়ার জামিন হচ্ছে না। অর্থাৎ সরকার যদি খালেদা জিয়ার মুক্তির প্রশ্নে কোনো হস্তক্ষেপ না করে, তা হলে খালেদা জিয়ার জামিন হবে এবং তিনি মুক্তি পাবেন।

খালেদা জিয়ার মুক্তি দাবি করে রিজভী বলেন, কালবিলম্ব না করে সামনে আরও দুটি বানোয়াট মামলায় দেশনেত্রীর জামিন নিশ্চিত হলে উচ্চতর আদালতের ওপর মানুষের আস্থা বাড়বে। এ দুই মামলায় নিম্ন আদালতকে প্রভাবিত করে সরকার খালেদা জিয়াকে সাজা দিয়েছে। নিম্ন আদালতের সেই সাজার ওপর আপিল করা হলেও এখনও পর্যন্ত তাকে জামিন দেয়া হয়নি। আইনের শাসন ও স্বাধীন বিচারব্যবস্থা থাকলে বেগম জিয়াকে মিথ্যা মামলায় সাজা দেয়া যেত না। আমরা আশা করব উচ্চতর আদালত সব চাপকে উপেক্ষা করে ন্যায়বিচার নিশ্চিত করবেন এবং জনগণের নেত্রী জনগণের মাঝে ফিরে আসবেন ইনশাআল্লাহ। আমরা আরও আশা করব- দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়ার জামিন নিয়ে সরকার আর কোনো কারসাজি করবে না, বাধা দেবে না।

উপজেলা নির্বাচনে অনিয়মের অভিযোগ তুলে রিজভী বলেন, গতকাল অনুষ্ঠিত পঞ্চম ও শেষ ধাপের উপজেলা নির্বাচনে আওয়ামী সংস্কৃতির ধারাবাহিকতায় পুলিশ ও ক্ষমতাসীন দলের ক্যাডাররা ন্যক্কারজনক ভূমিকা পালন করেছে। ২০টি উপজেলার প্রায় সবখানে পুলিশের ভূমিকা ছিল দলীয় ক্যাডারের মতো। নৌকা প্রার্থী ছাড়া অন্য যারা প্রার্থী হয়ে নির্বাচন করেছেন, তাদের ঠেকানোর জন্য মাঠে সক্রিয় ছিল পুলিশ ও আওয়ামী লীগ। বিভিন্ন ভোটকেন্দ্রে এজেন্টদের ঢুকতে দেয়া হয়নি। রাতে ভোটারদের বাড়িতে গিয়ে ভয়ভীতি দেখানো হয়েছে। নৌকার প্রতীকে ভোট না দিলে দেখে নেয়া হবে বলেও হুমকি দেয়া হয়। এই আওয়ামী জবরদস্তিমূলক শাসন দীর্ঘায়িত হতে থাকলে নির্বাচন শব্দটি থাকলেও সুষ্ঠু শব্দটি পরলোকেই অবস্থান করবে। ভোটার থাকলেও ভোট দেয়ার অধিকার থাকবে শুধু আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর। নির্বাচন কমিশন ভোট তামাশার রঙ্গমঞ্চে প্রধান অভিনেতা হিসেবেই ভূমিকা পালন করবে।

সূত্র : যুগান্তর

জুমবাংলানিউজ/পিএম