আইন-আদালত জাতীয় স্লাইডার

খালাস ও জামিন চেয়ে আপিল করেছেন খালেদা জিয়া

নিজস্ব প্রতিবেদক : জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় ১০ বছরের কারাদণ্ড থেকে খালাস চেয়ে হাইকোর্টে আপিল করেছেন বিএনপির চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া। বৃহস্পতিবার (১৪ মার্চ) সুপ্রিম কোর্টের আপিল বিভাগের সংশ্লিষ্ট শাখায় তার আইনজীবীরা এ আপিল দায়ের করেন।

গণমাধ্যমকে তার অন্যতম আইনজীবী কায়সার কামাল এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

২০১৮ সালের ৩০ অক্টোবর এই মামলায় খালেদার সাজা বৃদ্ধিতে দুদকের আবেদন গ্রহণ করে বিচারপতি এম. ইনায়েতুর রহিম ও বিচারপতি মো. মোস্তাফিজুর রহমানের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ এবং দীর্ঘ শুনানির পর খালেদা জিয়ার ১০ বছর কারাদণ্ড দেয় হাইকোর্ট।

হাইকোর্টের ওই আদেশে ৫ বছরের দণ্ডথেকে খালাস চেয়ে খালেদা জিয়ার করা আপিল খারিজ করে দেয় উচ্চ আদালত। এ ছাড়া ১০ বছরের দণ্ড থেকে খালাস চেয়ে মাগুরার সাবেক সংসদ সদস্য (এমপি) কাজী সালিমুল হক কামাল ওরফে কাজী কামাল ও ব্যবসায়ী শরফুদ্দিন আহমেদের আপিলও খারিজ করে আদালত।

২০১৮ সালের ২৯ অক্টোবর জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় কারাদণ্ডপ্রাপ্ত খালেদা জিয়ার খালাস চেয়ে  করা আপিল ও সাজা বৃদ্ধি চেয়ে দুদকের আপিলের শুনানি  সমাপ্ত ঘোষণা করে হাইকোর্ট।

জিয়া অরফানেজ ট্রাস্ট দুর্নীতি মামলায় ২০১৮ সালের ৮ ফেব্রুয়ারি খালেদা জিয়াকে পাঁচ বছরের কারাদণ্ড দেয় বিচারিক আদালত। রায় ঘোষণার পরপরই তাকে ওই দিনই রাজধানীতে পুরোনো কেন্দ্রীয় কারাগারে নিয়ে যাওয়া হয়।

এ মামলায় ছয় আসামির মধ্যে খালেদা জিয়াসহ তিনজন কারাগারে আছেন। অন্য তিন আসামি পলাতক। খালেদা জিয়া ছাড়া কারাবন্দী বাকি দু’জন হলেন- মাগুরার প্রাক্তন সংসদ সদস্য (এমপি) কাজী সালিমুল হক কামাল ওরফে ইকোনো কামাল ও ব্যবসায়ী শরফুদ্দিন আহমেদ।

পলাতক তিনজন হলেন- বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারপারসন তারেক রহমান, সাবেক মুখ্য সচিব কামাল উদ্দিন সিদ্দিকী ও বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা জিয়াউর রহমানের ভাগ্নে মমিনুর রহমান।

জুমবাংলানিউজ/পিএম