আইন-আদালত গাজীপুর ঢাকা বিভাগীয় সংবাদ

কালীগঞ্জে ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযানে ৩ প্রতিষ্ঠান বন্ধ ও অর্থদন্ড

গাজীপুর প্রতিনিধি : গাজীপুরের কালীগঞ্জে ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযান পরিচালিত হয়েছে। অভিযানে পরিবেশ অধিদপ্তরের ছাড়পত্র না থাকায় উপজেলা নাগরী ইউনিয়নের কেটুন এলাকায় টায়ার পুড়িয়ে অবৈধ ভাবে ফুয়েল (তেল), কালি উৎপাদন করা এক্সটিম পাইরোলাইসিস ফুয়েল এন্ড প্রাইভেট লিমিটেড ও গ্যালান্ট এনার্জি লিমিটেড নামের ২টি কারখানা এবং এমএসএম নামের একটি ইট ভাটাকে সাময়িক ভাবে বন্ধ করে দেওয়া হয়েছে। বুধবার (২২ মে) দুপুরে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন অভিযান পরিচালনাকারী নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও কালীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. শিবলী সাদিক এবং নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মোহাম্মদ জুবের আলম।

জানা গেছে, কোন নিয়ম-নীতির তোয়াক্কা না করেই একটি প্রভাবশালী মহল দীর্ঘদিন ধরে কেটুন এলাকায় অবৈধ ভাবে গড়ে তুলে ২টি ফুয়েল কারখানা। যেখানে জনসাধারণের স্বাস্থ্য ঝুঁকি ও পরিবেশের ক্ষতি করে টায়ার পুড়িয়ে তৈরী করা হচ্ছিল এক প্রকার ফুয়েল (তেল) ও কালী। খবর পেয়ে সকালে ভ্রাম্যমাণ আদালতের মাধ্যমে এক্সটিম পাইরোলাইসিস ফুয়েল এন্ড প্রাইভেট লিমিটেড ও গ্যালান্ট এনার্জি লিমিটেড কারখানায় অভিযান পরিচালিত হয়। এ সময় কারখানায় দায়িত্বপ্রাপ্তরা প্রয়োজনীয় কাগজপত্র দেখাতে না পারায় পরিবেশ সংরক্ষণ আইন ১৯৯৫ এর ১২ ধারায় ওই ২ কারখানার প্রত্যেকটিকে ১ লক্ষ টাকা করে অর্থদন্ড করা হয়। অপরদিকে কালীগঞ্জ পৌর এলাকার এমএসএম একটি ইটভাটাকে ইট প্রস্তুত ভরাট স্থাপনা নির্মাণ আইনে ২০১৩ এ ৪ ও ১৪ ধারা মোতাবেক ১০ হাজার টাকা অর্থদন্ড করা হয়। অভিযানে ৩টি প্রতিষ্ঠানকে মোট ২ লক্ষ ১০ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। পাশাপাশি ফুয়েল উৎপাদন করা ওই ২ কারখানার পরিবেশের ছাড়পত্র ও ইট ভাটার জেলা প্রশাসনের অনুমতিপত্র না থাকায় সাময়িক ভাবে বন্ধ করে দেয়া হয়।


কালীগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. শিবলী সাদিক জানান, সকালে ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযান হয়। তবে পরিবেশ সংরক্ষণ আইন ও ভোক্তা অধিকার আইনে ভেজাল বিরোধী ভ্রাম্যমাণ আদালতের এ ধরণের অভিযান অব্যাহত থাকবে।