গাজীপুর জাতীয় বিভাগীয় সংবাদ

কালীগঞ্জে পৌর কর্মকর্তা-কর্মচারীদের কর্মবিরতি, জনসাধারণের দুর্ভোগ

গাজীপুর প্রতিনিধি: গাজীপুরের কালীগঞ্জ পৌরসভার মূল ফটকে ঝুলছে তালা। ভেতরে পৌর কর্মকর্তা-কর্মচারীরা দাবি আদায়ের আন্দোলন হিসেবে চলছে কর্মবিরতি। দেয়ালে ব্যানার সাঁটানো। আর তাতে লেখা, ‘এক দেশে দুই নীতি মানি না, মানব না’

তাদের দাবি রাষ্ট্রীয় কোষাগার হতে পৌরসভার কর্মকর্তা-কর্মচারীদের শত ভাগ বেতন-ভাতা প্রদানসহ পেনশন প্রথা চালুর দাবি এবং জনপ্রতিনিধিদের সম্মানী ভাতা প্রদানের দাবিতে কালীগঞ্জ পৌরসভা সম্মূখে পৌর কর্মকর্তা-কর্মচারীরা অবস্থান কর্মসূচী পালন করেন। কর্মকর্তা-কর্মচারীরা যখন দাবি আদায়ের এ আন্দোলনে ব্যস্ত তখন স্থানীয় পৌর সেবা প্রত্যাশিরা পড়েছেন চরম বিপাকে। এ সময় পৌরসভায় সেবা নিতে আসা জনসাধারণ পৌর ফটকে তালা দেখে ফিরে যাচ্ছে। এতে করে তাদের গুরুত্বপূর্ণ অনেক কাজ সমস্যায় পড়ে।

সোমবার (১ জুলাই) বেলা সাড়ে ১১টায় সরজমিনে কালীগঞ্জ পৌর সভার সামনে গিয়ে দেখা গেছে, পৌর ফটকে তালা ঝুলছে ও ব্যানার সাটানো। তাতে বড় করে লেখা দাবি আদায়ের আন্দোলনে কর্মকর্তা-কর্মচারীরা কর্মবিরতি কর্মসূচী পালন করছে। আর সেবা প্রত্যাশিদের সাময়িক অসুবিধার জন্য তারা পৌরবাসীর কাছে আন্তরিকভাবে দুঃখও প্রকাশ করছেন।

পৌর এলাকার ১নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা মো. রিয়াদ হোসেন পৌরসভার ফটকে দাঁড়িয়ে প্রতিবেকদকে বলেন, নাগরিক সনদের জন্য এসেছিলাম। এসে দেখি পৌরসভার মূল ফটকে তালা ঝুলছে। বছরে বছরে পৌরসভাকে টেক্স দিয়ে থাকি। কিন্তু তারপরও সেবার জন্য আসলে আমরা সাধারণ মানুষ তাদের আন্দোলনের কারণে কেন সেবা না নিয়ে ফিরে যাব?

এ সময় পৌর কর্মকর্তা-কর্মচারীদের আন্দোলনের কারণে চরম ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন বলে জানান ভূক্তভোগী আরও কয়েকজন সেবা প্রত্যাশী।

এ ব্যাপারে পৌর সচিব মো. মিলন মিয়া ও বাংলাদেশ পৌর কর্মকর্তা-কর্মচারী এসোসিয়েশন ঢাকা বিভাগীয় যুগ্ম সম্পাদক দুলাল মোড়ল প্রতিবেদককে জানান, পৌরবাসীদের সেবা তারাও করতে চান। তবে তাদের দাবি আদায় হলেই কেবল তারা কাজে ফিরে যাবে। দাবি আদায় না হলে সামনে তাদের এ আন্দোলন আরো কঠোর আকার ধারণ করবে বলেও জানান তারা।

কালীগঞ্জ পৌর মেয়র মো. লুৎফুর রহমান জানান, এ ব্যাপারে তার কিছু বলার বা করার নেই। এটা সরকারের এবং পৌর কর্মকর্তা-কর্মচারী এসোসিয়েশনের বিষয়। স্থানীয়রা সেবা না নিয়ে ফিরে যাচ্ছে এটা দেখে জনগণের ভোটে নির্বাচিত একজন মেয়র হিসেবে খুব খারাপ লাগছে। তবে খুব দ্রুত এ আন্দোলনের অবসান হবে বলে তিনি আশা করেন।

জুমবাংলানিউজ/একেএ